Exceptional News ফেসবুক মতামত/বিশেষ লেখা/সাক্ষাৎকার

কার কাছে শিখবেন, কে এই মহান ব্যক্তি?

কারো কারো কাছে এ কথাগুলো অতিরন্জন বা অন্যকিছু মনে হতেই পারে।
কারন ছবির এ লোকটি একটি স্বনামধন্য বেসরকারী ব্যাংকের ম্যানেজিং ডিরেক্টর(MD)। ব্যাংকের সর্বোচ্চ ক্ষমতাধর এ মানুষটির খাবার প্লেট এগিয়ে দিয়ে খুশি করার আপ্রান প্রচেষ্টাকারী লোকের অভাব হতনা।কিন্তু ঢাকার এক বিলাসবহুল সেল্ফ সার্ভিস খাবার হোটেলে নিজ হাতে দুটি খাবার প্লেট নিয়ে টেবিল ধরতে দেখা গেল তাকে।একটি হয়ত নিজের, আরেকটি প্লেট নিশ্চয় উনার কোন সহকর্মীর।

একটা প্রতিষ্ঠানের সর্বোচ্চ থেকে সর্বনিম্ন সকল কর্মকর্তা কর্মচারীর সাথেই ব্যাক্তিগত আন্তরিক যোগাযোগ রক্ষা করার মত মানষিকতা তাহার রয়েছে।

বস হয়ে সহকর্মীকে খাবার প্লেট এগিয়ে দেওয়ার মধ্যে হয়ত আপনি তেমন কিছুই খুজে পাচ্ছেন না।কিন্তু আমি মুগ্ধ হয়েছি। এমন ভালবাসা, সহমর্মিতা এবং মুল্যায়ন কয়জন বসের মাঝে আপনি পাবেন?

ধমক, হুমকি, অপমান, মিথ্যা আশ্বাস, বহিস্কার ইত্যাদিই যখন কর্পোরেট জগতের কর্মচারী নিয়ন্ত্রনের হাতিয়ার হয়ে দাড়িয়েছে সেখানে তিনি স্রোতের বিপরিতে গিয়ে সহানুভুতি, ভালবাসা, উৎসাহ ও সহযোগিতার মাধ্যমে কর্মচারীর কর্মস্পৃহাকে ত্বরান্বিত করছেন।ছিনিয়ে আনছেন একের পর এক সাফল্য।

এ মানুষটির কাছ থেকে আমরা কি কিছুই শিখতে পারিনা? ছবিটি থেকে কিছু কি শেখার নেই?? আমরা সামান্য ক্ষমতার মালিক হলেই নিজেকে গুলিয়ে ফেলি।অহংকারে আমাদের কথা, কাজ, ভাবনা শারিরিক ভংগি সব বদলে যায়।
আসুন কাজকে মুল্যায়ন করি।ভালকে ভাল বলা শিখি।ব্যাক্তিগত হিংষা পরশ্রীকাতরতা ভুলে সংকীর্নতাকে বিদায় জানাই।ভালবাসা দিয়ে জয় করি বিশ্ব।

ছবিঃ সংগৃহিত
লেখাঃ ধারনা থেকে
লেখাটি ফেসবুক থেকে নেয়া

আছমত আলী
এসিস্ট্যান্ট রিলেশনশিপ অফিসার
ব্যাংক এশিয়া লিমিটেড়।