আন্তর্জাতিক

কারা এই শ্বেতাঙ্গ শ্রেষ্ঠবাদে বিশ্বাসী সন্ত্রাসী?

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের আল নূর মসজিদে শুক্রবার জুমার নামাজের সময় এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়ে ৪০ মুসল্লিকে হত্যা করেন এক শ্বেতাঙ্গ শ্রেষ্ঠবাদে বিশ্বাসী সন্ত্রাসী।

তিনি মুসলমানসহ যারা ধর্মান্তরিত হয়েছেন, তাদের ঘৃণা করার কথা নিজের ৭৩ পাতার ইশতেহারে জানিয়েছেন। তার মতে, যারা ধর্ম ত্যাগ করেন, তারা হচ্ছেন রক্তের সঙ্গে প্রতারণাকারী।

গণহত্যার বিস্তারিত পরিকল্পনায় তিনি বলেন, অধিকাংশই দেখেন যে আমাদের ভূখণ্ডকে কখনোই অনুপ্রবেশকারীদের ভূখণ্ড হবে না। আমাদের মাতৃভূমি আমাদের এবং যখনক্ষণ পর্যন্ত শেতাঙ্গরা জীবিত থাকবে, ততদিন তারা আমাদের ভূখণ্ড বিজয় করতে পারবে না। তারা কখনোই আমাদের লোকদের জায়গা দখল করতে পারবেন না।

শ্বেতাঙ্গ শ্রেষ্ঠবাদ- একটি বর্ণবাদী ধারণা। যারা এই মতবাদে বিশ্বাস করেন, তারা বলছেন- অন্য বর্ণের মানুষের তুলনায় তারাই শ্রেষ্ঠ। এর জন্যই সবার ওপরে তারাই কর্তৃত্ব ও আধিপত্য বিস্তার করবে।

বৈজ্ঞানিক বর্ণবাদ থেকেই শ্বেতাঙ্গ শ্রেষ্ঠবাদ ধারণাটি এসেছে। এটি কখনও কখনও ছ্দ্মবিজ্ঞান যুক্তির ওপরও নির্ভর করে। এ ধারণাকে নতুন-নাৎসি আন্দোলনের সঙ্গে তুলনা করা হচ্ছে।

ইহুদিসহ অন্যান্য বর্ণের সদস্যেরও বিরোধিতা করেন তারা।

এটিকে একটি রাজনৈতিক মতাদর্শ পরিভাষা হিসেবেও ব্যবহার করা হয়। যাতে শ্বেতাঙ্গদের সামাজিক, রাজনৈতিক, ঐতিহাসিক ও প্রাতিষ্ঠানিক আধিপত্যের কথা বলা হয়েছে।

যার মধ্যে আটলান্টিক দাস বাণিজ্য, যুক্তরাষ্ট্রের জিম ক্র আইন ও দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ণবৈষম্য নীতিও রয়েছে।

সতেরো শতকের বৈজ্ঞানিক বর্ণবাদ থেকে শ্বেতাঙ্গ শ্রেষ্ঠবাদিতার উৎপত্তি। আমেরিকান গৃহযুদ্ধের আগে ও পরে সেখানে শ্বেতাঙ্গ শ্রেষ্ঠবাদীদের আধিপত্য ছিল।

বিভিন্ন মিউজিক ভিডিও, ফিচার ফিল্ম ও প্রামাণ্যচিত্রে শ্বেতাঙ্গ শ্রেষ্ঠবাদের চরিত্র ফুটিয়ে তোলা হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের কু ক্লাক্স ক্লানও (কেকেকে) শ্বেতাঙ্গ শ্রেষ্ঠত্ববাদ আন্দোলনের সঙ্গে জড়িত।

অনেক শ্বেতাঙ্গ শ্রেষ্ঠত্ববাদ আন্দোলন জিনগত বিশুদ্ধতার বিশ্বাসের ওপর ভিত্তি করে উৎপত্তি হয়েছে। কাজেই তারা কেবল গায়ের বর্ণের ওপর ভিত্তি করেই নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব দাবি করছে না।

আবার কেকেকে ধর্মীয় মতাদর্শের ওপর ভিত্তি করেই কেবল প্রাথমিকভাবে বর্ণবাদী বিচ্ছিন্নতাকে সমর্থন করছে না। তাদের কিছু কিছু দল প্রটেস্ট্যান্ট মতবাদে বিশ্বাসী।

তবে কেকেকের মতো আরইয়ান নেশনস, দ্য অর্ডার, হোয়াট প্যাট্রিওয়ট পার্টিগুলো ইহুদি বিদ্বেষী।

জুমবাংলানিউজ/ জিএলজি