জাতীয় স্বাস্থ্য স্লাইডার

কমেছে শিশুমৃত্যুর হার, এগিয়েছে বাংলাদেশ

জুমবাংলা ডেস্ক : শিশুমৃত্যু ও নবজাতকের মৃত্যুহার কমানোর ক্ষেত্রে প্রতিবেশী দেশগুলোকে পেছনে ফেলেছে বাংলাদেশ। বর্তমানে দেশে শিশুমৃত্যুর হার হাজারে ৩২। সম্প্রতি জাতিসংঘের একটি  প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে আসে।

জাতিসংঘের প্রতিবেদন অনুসারে, দেশে এখন পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুমৃত্যু হার প্রতি হাজারে ৩২। গোটা দক্ষিণ এশিয়ায় এখন এদিক থেকে বাংলাদেশের তুলনায় এগিয়ে রয়েছে একমাত্র শ্রীলংকা।

প্রতিবেদনে জানানো হয়, ২০১২ সালে দেশে পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুমৃত্যু হার ছিল প্রতি হাজারে ৪১। ২০১৭ সালে তা নেমে এসেছে হাজারে ৩২টিতে। এদিক থেকে গোটা দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশের তুলনায় এগিয়ে শুধু শ্রীলংকা।

এ প্রসঙ্গে আলাপকালে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডা. মাহফুজা রিফাত বলেন, আমাদের দেশের শিশুরা এখন টিকা পাচ্ছে। তাই দেশে শিশুমৃত্যুর হারও কমছে। এ বিষয়ে সচেতনতাও পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর তুলনায় আমাাদের দেশে অনেক বেশি। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের শিশুও টিকা পাওয়া থেকে বঞ্চিত হচ্ছে না।

আগে বাংলাদেশে ডায়রিয়াজনিত মৃত্যুর হার বেশি ছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, ডায়রিয়া রোগে মৃত্যুর হার এখন কমেছে, খাওয়ার স্যালাইনের কারণে সেটা সম্ভব হয়েছে। টিকা আর ডায়রিয়া এ দুটি কারণে শিশুমৃত্যু হার এখন অনেক কমেছে।

এছাড়া মাতৃশিক্ষা, স্যানিটেশন ব্যবস্থা ইত্যাদি উন্নয়নের মতো পরোক্ষ কিছু বিষয়ও শিশুমৃত্যু হার কমাতে ভূমিকা রেখেছে বলেও মনে করেন তিনি।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়ন, সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচি, ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়ার চিকিৎসার উন্নয়ন, প্রশিক্ষিত ধাত্রীর মাধ্যমে প্রসবসহ নানা ধরনের পদক্ষেপের কারণে দেশে শিশুমৃত্যু হার কমেছে। নবজাতকের বিশেষ যত্নে দেশের প্রান্তিক পর্যায়ের হাসপাতালগুলোতেও চালু করা হয়েছে বিশেষ সুবিধা। এছাড়া বেসরকারি নানা উদ্যোগও এক্ষেত্রে কার্যকর ভূমিকা রেখেছে। পাশাপাশি দেশে হাসপাতালগুলো শিশু প্রসবের হারও এখন আগের চেয়ে বেড়েছে।

জুমবাংলানিউজ/পিএম