চট্টগ্রাম বিভাগীয় সংবাদ

কক্সবাজারের রাস্তায় হাজারো পর্যটকের নির্ঘুম রাত!

শীতকালীন অবকাশে খ্রিস্টমাস ডে (বড়দিন) ও সপ্তাহিক মিলে তিনদিনের ছুটি চলছে। এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে কক্সবাজার ছুটে এসেছেন বিপুল পর্যটক।

প্রত্যাশার অধিক পর্যটক আসায় আবাসিক সুবিধাসহ সব ধরণের সেবা দিতে হিমশিম খাচ্ছেন পর্যটন সংশ্লিষ্টরা। ফলে আগাম বুকিং না দিয়ে বেড়াতে চলে আসা বিপুল সংখ্যক পর্যটক রাস্তায় নির্ঘুম রাত কাটিয়েছেন।

এসব পর্যটকরা নিজেদের পরিবহনকারী বাসসহ অন্যান্য যানবাহন, সৈকতের কিটকট, বালুচর, মসজিদে, শহরের প্রধান সড়কে ঘুরে বেড়িয়েছেন। এতে শিশু ও মহিলারা ভোগান্তিতে পড়েন বেশি। আবার কিছু পর্যটক নিরাপত্তার আশায় ঠাঁই নিয়েছিলেন পত্রিকা অফিসে। কিছু পর্যটক স্থানীয় বাসা-বাড়িতেও রাত্রি যাপন করে।

প্রাথমিক হিসাব মতে, শুক্রবার দিনে-রাতে কক্সবাজারে প্রায় ২ লক্ষাধিক পর্যটক এসে অবস্থান করছেন।

কক্সবাজার হোটেল-মোটেল গেস্ট হাউস মালিক সমিতির সভাপতি ওমর সুলতানের মতে, শহরের আবাসিক হোটেল, গেস্ট হাউস, কটেজ ও সরকারী রেস্ট হাউসে প্রায় ১ থেকে সোয়া লাখ মানুষের রাত যাপনের সুবিধা রয়েছে। গাদাগাদি করে থাকলে হয়তো আরো কয়েক হাজার পর্যটক কক্ষে রাত যাপন করতে পারে। কিন্তু পর্যটক বেশি হওয়ায় এ দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে।

তিনি আরো জানান, পুরো ডিসেম্বর মাস জুড়েই আবাসিক হোটেলগুলোতে শতকরা ৮০ ভাগ কক্ষ ভরপুর ছিল। আর সপ্তাহিক ছুটি ও বড়দিন মিলে টানা তিনদিনের জন্য প্রায় সব হোটেলের কক্ষই অগ্রিম বুকিং হয় আরো কয়েক মাস আগেই।

ভিডিও: ৯ মাস ১০ দিনে কিভাবে মায়ের গর্ভে বেড়ে ওঠে নবজাত!! দেখুন, ৪ মিনিটের ভিডিওতে

জুমবাংলানিউজ/আর