খেলাধুলা

‘এবার অনেক কষ্ট করছি’

ফাইল ছবি

স্পোর্টস ডেস্ক : ডেথ ওভারে বোলিংয়ে ঠিক ধারাবাহিক নন রুবেল হোসেন। কখনও জেতাচ্ছেন দলকে, কখনও খরুচে এক ওভারে দলকে ফেলে দিচ্ছেন বিপদে। অভিজ্ঞ এই পেসার নিজের বোলিংয়ে চান ধারাবাহিকতা। তাই করছেন বাড়তি পরিশ্রম, ডেথ ওভারের বোলিংয়ের দিকে রাখছেন বাড়তি নজর।

গত মার্চে শ্রীলঙ্কায় ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজের ফাইনালে ২ ওভারে প্রয়োজন ছিল ৩৪ রান। রুবেল ১ ওভারেই দিয়েছিলেন ২২ রান। জুনে দেরাদুনে টি-টোয়েন্টিতে আফগানিস্তানের প্রয়োজন ছিল ২ ওভারে ২০ রান। রুবেলের ৫ বলেই জিতেছিল আফগানরা।

গত জুলাইয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তৃতীয় ওয়ানডেতে শেষ ২ ওভারে আবার প্রয়োজন ছিল ৩৪ রান। সেবার রুবেলের ওভার থেকে আসে মাত্র ৬ রান। বাংলাদেশ শেষ পর্যন্ত জেতে ১৮ রানে। এই ম্যাচের বোলিংটাই রুবেল করে যেতে চান সামনের দিনগুলোতে।

“শেষ দুই-তিনটা সিরিজে আমি খুব ভালো ছন্দে ছিলাম। সব সময় যা করি, সুযোগ পেলে নিজের সেরা ক্রিকেট খেলার চেষ্টা করব।”

“এবার অনেক কষ্ট করছি ডেথ ওভারের বোলিং নিয়ে। আমার মূল শক্তিই হচ্ছে ডেথ ওভারের বোলিং। আমাকে শেষ ১০ ওভারে বোলিং করতেই হবে। এমন পরিস্থিতিতে ভালো বোলিং করে দলকে জেতানো যায়, আবার খারাপ করলে দল হেরেও যায়। তাই আমাকে আরও বেশি মনোযোগ দিতে হয়। এখন আরেকটু বেশি জোর দিচ্ছি ডেথ ওভারের বোলিংয়ে।”

বোলিং নিয়ে রুবেলের পরিশ্রমের প্রসঙ্গ ধরেই এলো টেস্ট বোলিংয়ে অতটা পরিশ্রম না করতে না চাওয়ার অভিযোগ। তবে টেস্ট খেলতে অনীহা কিংবা এই সংস্করণে লম্বা স্পেল করতে না চাওয়ার অভিযোগ উড়িয়ে দিলেন এই পেসার।

“এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা। এ ধরনের কথা কারা বের করছে জানি না। আমি টেস্ট খেলতে চাইব না কিসের জন্য। এই ক্রিকেটই আমার রুটি-রুজি। এটার ওপরেই আমি চলি, আমার পরিবার চলে। তাই এটার সাথে তো আমার ‘চিটিং’ করার কিছু নেই। আমি জানি না এটা কারা বের করছে, কিন্তু আমি কখনই বলিনি আমি টেস্ট ক্রিকেট খেলতে চাই না।”

“আর লম্বা স্পেলের ব্যাপারে যদি বলেন, আমি বিসিএলে বোলিং করেছি না? প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ম্যাচ খেলছি। যদি টেস্ট উপভোগ না করতাম তাহলে আমি এটাকে এড়িয়ে চলে যেতাম। আমি কখনও নিজের খেলার সঙ্গে প্রতারণা করি না।”

জুমবাংলানিউজ/এসএস