খেলাধুলা স্লাইডার

ইতিহাস গড়ল ক্রোয়েশিয়া

অতিরিক্ত সময়ে ম্যাচে ২-১ গোলে ম্যাচ জিতল ক্রোয়েশিয়া। যার ফলে ইংল্যান্ডকে ২-১ গোলে হারিয়ে ক্রোয়েশিয়া রাশিয়া বিশ্বকাপের ফাইনালের টিকেট পায়। ১০৯তম মিনিটে গোলটি করলেন মারিও মানজুকিচ। ডি-বক্সের মধ্যে বল পেয়ে গোলরক্ষক জর্ডান পিকফোর্ডকে বোকা বানিয়ে বল জালে পাঠান মানজুকিচ।

নির্ধারিত ৯০ মিনিটে ম্যাচে ১-১ সমতা থাকায় অতিরিক্ত ৩০ মিনিটে গড়ায় ইংল্যান্ড ও ক্রোয়েশিয়ার মধ্যকার ম্যাচ। অতিরিক্ত সময়েও ফলাফল নির্ধারিত না হলে ম্যাচ গড়াবে টাইব্রেকারে। রাশিয়া বিশ্বকাপে বুধবার দ্বিতীয় সেমিফাইনাল ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে ইংল্যান্ড ও ক্রোয়েশিয়া। ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হচ্ছে মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামে।

আজ ম্যাচ শুরু হতে না হতেই এগিয়ে যায় ইংল্যান্ড। ম্যাচের পঞ্চম মিনিটে ফ্রি কিক থেকে গোলটি করেন কাইরান ট্রিপিয়ার। চতুর্থ মিনিটে ডি-বক্সের একেবারেই সামনে ডেলে আলিকে ফাউল করেন লুকা মদ্রিচ। ফ্রি-কিকের সিদ্ধান্ত দেন রেফারি। ফ্রি-কিকের সুযোগ কাজে লাগিয়ে দলকে এগিয়ে দেন ট্রিপিয়ার। আন্তর্জাতিক ফুটবলে ট্রিপিয়ারের এটি প্রথম গোল।

১৫তম মিনিটে ব্যবধান বাড়াতে পারত ইংল্যান্ড। কর্নার কিক থেকে উড়ে আসা বল হেড করেছিলেন মাগুইরি। কিন্তু বল চলে যায় সাইডবারের সামান্য পাশ দিয়ে। ২৯তম মিনিটে একেবারে সহজ সুযোগ মিস করেন ইংলিশ অধিনায়ক হ্যারি কেন। ৩১তম মিনিটে গোল পেতে পারতো ক্রোয়েশিয়া। কিন্তু রেবিচের জোরালো শট দুর্দান্তভাবে ঠেকিয়ে দেন ইংলিশ গোলরক্ষক জর্ডান পিকফোর্ড। ১-০ গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় ইংল্যান্ড।

বিরতির পর ম্যাচে ১-১ সমতা আনে ক্রোয়েশিয়া। ৬৮তম মিনিটে গোলটি করলেন ইভান পেরেসিচ। ডি-বক্সের মধ্যে থাকা পেরিসিচকে লক্ষ্য করে ক্রস দেন ভিরসাজকো। ক্রস থেকে পা বাড়িয়ে দিয়ে বল জালে পাঠিয়ে দেন পেরিসিচ।

৯৯তম মিনিটে গোল পেতে পারতো ইংল্যান্ড। কর্নার কিক থেকে দারুণভাবে হেড করেন স্টোনস। বল জালে পৌঁছাতে পারতো। কিন্তু তার আগে হেড বল ক্লিয়ার করে দেন ভিরসাজকো। (১০৫+২) মিনিটে গোল পেতে পারতো ক্রোয়েশিয়া। কিন্তু গোলরক্ষক পিকফোর্ডের প্রচেষ্টায় অল্পের জন্য বেঁচে যায় ইংল্যান্ড।

এই ম্যাচে যারা জিতবে ফাইনালে তারা ফ্রান্সের মুখোমুখি হবে। মঙ্গলবার প্রথম সেমিফাইনালে বেলজিয়ামকে ১-০ গোলে হারিয়ে প্রথম দল হিসাবে ফাইনাল নিশ্চিত করে ফ্রান্স। ম্যাচটিতে ইংল্যান্ড অপরিবর্তিত একাদশ নিয়ে মাঠে নেমেছে। অন্যদিকে, একাদশে একটি পরিবর্তন এনেছে ক্রোয়েশিয়া। আন্দ্রেজ ক্রামারিচের পরিবর্তে একাদশে ঢুকেছেন মার্সেলো ব্রোজোভিচ।

‘জি’ গ্রুপ থেকে গ্রুপ রানার আপ হয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডে ওঠে ইংল্যান্ড। দ্বিতীয় রাউন্ডের ম্যাচে কলম্বিয়াকে টাইব্রেকারে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে ওঠে ইংলিশরা। কোয়ার্টার ফাইনাল ম্যাচে সুইডেনকে ১-০ গোলে হারিয়ে সেমিফাইনালে ওঠে ইংল্যান্ড। বিশ্বকাপে ২৮ বছর পর সেমিফাইনাল খেলছে ইংলিশরা। এবার তারা তৃতীয়বারের মতো সেমিফাইনালে উঠেছে। দলটি ১৯৬৬ সালে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। এরপর ১৯৯০ সালের বিশ্বকাপে সেমিফাইনালে খেলেছিল ইংল্যান্ড।

অন্যদিকে, ‘ডি’ গ্রুপ থেকে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডে ওঠে ক্রোয়েশিয়া। এরপর তারা ডেনমার্ককে টাইব্রেকারে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে ওঠে। কোয়ার্টার ফাইনাল ম্যাচে স্বাগতিক রাশিয়াকে টাইব্রেকারে পরাজিত করে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করে। বিশ্বকাপে এবার দ্বিতীয়বারের মতো সেমিফাইনালে উঠেছে ক্রোয়েশিয়া।

জুমবাংলানিউজ/ জিএলজি