খেলা-ধুলা

ইতালির ফুটবল ভক্তদের জন্য চরম দুঃসংবাদ

শেষ পর্যন্ত শঙ্কাটাই সত্যি হলো, রাশিয়া বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব থেকে ছিটকে পড়ল ফুটবল পরাশক্তি ইতালি। দেয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়া অবস্থায় ম্যাচ জুড়ে প্রতিপক্ষের রক্ষণে চাপ ধরে রাখলেও জালের দেখা আর মেলেনি। ফলাফল-চারবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের পিছনে ফেলে মূল পর্বে জায়গা করে নিল সুইডেন।

মিলানের সান সিরোয় সোমবার রাতে বাছাইপর্বের প্লে-অফের ফিরতি লেগের ম্যাচটি গোলশূন্য ড্র হয়েছে। প্রথম লেগে ঘরের মাঠে ১-০ গোলে জেতায় বিশ্বকাপের টিকেট পেয়েছে সুইডেন।

এর আগে ১৯৫৮ সালে সবশেষ বিশ্বকাপে উঠতে ব্যর্থ হয়েছিল ইতালি। আর ১২ বছর পর বিশ্বকাপে উঠলো এর আগে সবশেষ ২০০৬ জার্মান আসরে খেলা সুইডেন।
পুরো ম্যাচে ৭৬ শতাংশ সময় বল দখলে রেখে ২৭টি শট নেয় ইতালি, যার ছয়টি ছিল লক্ষ্যে; কিন্তু সাফল্য রয়ে যায় অধরাই। ইতালিয়ানদের ঠেকিয়ে রেখে নিশ্চিতভাবেই প্রশংসার দাবিদার সুইডেনের রক্ষণভাগ। তবে প্রতিপক্ষের ডি-বক্সে চিরো ইম্মোবিলে ও আলেস্সান্দো ফ্লোরেন্সিদের বারবার সুযোগ নষ্টের দৃশ্যও ছিল দৃষ্টিকটু।

বাছাইপর্ব থেকেই ছিটকে পড়ার লজ্জা এড়াতে অন্তত দুই গোলের ব্যবধানে জয় দরকার ছিল। কঠিন সে লক্ষ্যে বল দখলে রেখে শুরু থেকে আক্রমনাত্মক ফুটবল খেলা ইতালি ৪০তম মিনিটে প্রথম উল্লেখযোগ্য সুযোগ পায়। দুরূহ কোণ থেকে ইম্মোবিলের শট পা দিয়ে ঠেকিয়ে দেন গোলরক্ষক।
দ্বিতীয়ার্ধেও একইভাবে একের পর এক আক্রমণ করতে থাকে স্বাগতিকরা, যার প্রতিটিই ভেস্তে যায় প্রতিপক্ষের রক্ষণে। সুইডেনের গোলরক্ষক ওলসেনও ছিলেন দুর্ভেদ্য প্রাচীর হয়ে।

৮৩তম মিনিটে ফ্লোরেন্সির ক্রসে পারোলোর দারুণ হেড ঝাঁপিয়ে ঠেকান গোলরক্ষক। খানিক পর স্তেফান এল শারাউইয়ের আরেকটি শটও ফেরান ওলসেন।

২০০৬ জার্মান বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর গত দুই আসরে গ্রপ পর্ব পার হতে ব্যর্থ হয় ইতালি। আর এবার ছিটকে পড়লো বাছাইপর্ব থেকে। নিশ্চিতভাবেই নিজেদের সমৃদ্ধ ফুটবল ইতিহাসে কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে এই পরাশক্তিরা।
রাশিয়া বিশ্বকাপ খেলে বিদায় নেওয়ার ইচ্ছা ছিল জানলুইজি বুফ্ফনের। সেটা আর হচ্ছে না। তবে ম্যাচ শেষে ইতালির অধিনায়ক আবেগময় কণ্ঠে নিজের জন্য নয়, দু:খপ্রকাশ করলেন দেশের ফুটবলের জন্য।

“আমি আমার জন্য নই, ইতালিয়ান ফুটবলের জন্য দু:খিত। …এভাবে শেষ করাটা আফসোসের।“