Exceptional আন্তর্জাতিক

‘আহমেদের খুশি দেখে মুখে হাসি আনলেও চোখ ভিজিয়েছেন বহু মানুষ’

টুইটারে পোস্ট করা একটি ভিডিও ব্যাপকভাবে ভাইরাল হয়েছে। রোয়া মুসায়ি নামে একজনের পোস্ট করা ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে, হাসপাতালের মধ্যে একটি শিশু মনের আনন্দে নাঁচছে। আপনার মনে হতেই পারে বিষয়টি খুব স্বাভাবিক, তাতে ভিডিওটি ব্যাপকভাবে ভাইরাল হওয়ার কারণ কী!

কারণ হল, আফগানিস্তানে ল্যান্ডমাইন বিস্ফোরণে পা হারিয়ে ফেলেছিল বছর আটেকের শিশুটি। আফগানিস্তানের এক হাসপাতালে প্রস্থেটিক লেগ বা নকল পা লাগানো হয়েছে বাচ্চাটির পায়ে। আবার পা ফিরে পাওয়ার আনন্দে হাসপাতালের ওয়ার্ডেই নাচতে শুরু করে সে। রোয়া মুসায়ি এই ছেলেটির নাচের ভিডিওটিই পোস্ট করেন সোশ্যাল মিডিয়াতে।

সেই পোস্টে তিনি লেখেন, নকল পা পেয়ে আহমেদ নেচে তার আনন্দ প্রকাশ করছে। আহমেদের বাড়ি আফগানিস্তানের লোগার প্রদেশে। ল্যান্ডমাইন বিস্ফোরণে তার পা উড়ে গিয়েছে। এভাবেই আবার স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পেরে সে খুব খুশি।

ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে ছোট্ট আহমেদ নাচছে আর উপস্থিত অনেকেই দাঁড়িয়ে দেখছেন ছোট্ট আহমেদের নাচ। একুশ সেকেন্ডের এই ভিডিয়োটি ইতিমধ্যেই ছয় লক্ষ বার দেখা হয়েছে। রিটুইট হয়েছে অসংখ্য। আহমেদের এই খুশিতে ভেসে গিয়েছেন অনেকেই। মুখে হাসি থাকলেও চোখ ভিজিয়েছেন বহু মানুষ। যুদ্ধ এই ছোট আহমেদের থেকে কী কেড়ে নিয়েছে তা হয়তো সে নিজেও এখনও বুঝে উঠতে পারেনি। কিন্তু এমন বহু ছোট্ট আহমেদ-দের ক্ষতিতে কারও উপকার হয়েছে কি না বিশ্ব দরবারে সেটাই জানতে চেয়েছেন নেটিজেনরা।