Exceptional News লাইফ স্টাইল স্বাস্থ্য

অস্টিওআর্থ্রাইটিস হওয়ার কারণ এবং প্রতিকার জেনে রাখুন

অস্টিও আর্থ্রাইটিসে অস্থিসন্ধির পিচ্ছিল মসৃণ সারফেস টিস্যু- তরুণাস্থি দুর্বল হয়ে পড়ে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে এটি বয়স্ক মানুষের মধ্যে দেখা যায় এবং এ ক্ষেত্রে অস্থিসন্ধিতে ইনজুরির ঘটনা ঘটে। এটি কখনোই শরীরের অন্যান্য অংশকে সম্পৃক্ত করে না। তবে এটি ব্যথাপূর্ণ হতে পারে।
এক সময় অস্টিও আর্থ্রাইটিসকে এককভাবে বলা হতো অস্থিসন্ধির ক্ষয়জনিত রোগ। কিন্তু বর্তমানে চিকিৎসকেরা বিশ্বাস করেন যে, অস্টিও আর্থ্রাইটিসের জন্য এই একটি মাত্র কারণ দায়ী নয়। এটির জন্য বংশগত ও অস্থিসন্ধির নির্মাণ পদ্ধতি ও প্রয়োগ এক সাথে দায়ী।
রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস সম্পূর্ণ ভিন্ন ধরনের রোগ। এটি অন্য দু’টি রোগের চেয়ে মারাত্মক। এ রোগে অস্থিসন্ধিতে প্রদাহ হয় এবং নিশ্চল হয়ে পড়ে। সারা শরীরে অবসন্নতা দেখা দেয়। ক্ষুধামন্দা হয় এবং শরীরের ওজন কমে যায়। কখনো কখনো জয়েন্টের বদলে শরীরের বিভিন্ন অংশে প্রদাহ হয়। গাউট হলো এক বা কিছু জয়েন্টে প্রদাহ ও ফুলে যাওয়া। সাধারণত এ রোগ পায়ের আঙুলে হয়, তবে মাঝে মাঝে অন্য জয়েন্টেও হয়। সাইনোভিয়াল রসে খুব ছোট ছোট সুইয়ের আকৃতির ক্রিস্টাল গঠনের কারণে এই প্রদাহ হয়। এই ক্রিস্টালগুলো তৈরি হয় রসের মধ্যে ইউরিক এসিড জমা হওয়ার ফলে। গাউট হলো বংশগত বিভিন্ন ধরনের জৈব রাসায়নিক সমস্যার ফল যার কারণে শরীরে অতিরিক্ত ইউরিক এসিড উৎপন্ন হয়। কিছু নির্দিষ্ট খাবার এবং ওয়াইন গ্রহণে ইউরিক এসিডের উৎপাদন বেড়ে যেতে পারে। আর এটা শরীরের জন্য ক্ষতিকর। কিছু ওষুধের মাধ্যমে সহজে এর চিকিৎসা করা যায় এসব ওষুধের মধ্যে কলসিসিন ওষুধও রয়েছে।
যদি মনে হয় আপনার এসব রোগের কোনো একটি হয়েছে- তাহলে আপনি কোন
ডাক্তারকে দেখাবেন?
সর্বপ্রথমে বলে রাখি, নিজে কখনো রোগ নির্ণয়ের চেষ্টা করবেন না। যদি আপনার সন্দেহ হয় যে আপনার বাত রোগ হয়েছে, তাহলে সবচেয়ে ভালো হয় প্রথমেই আপনার পারিবারিক ডাক্তারের সাথে কথা বলা। যদি আপনার কেবল মৃদু অস্টিও আর্থ্রাইটিস থাকে তাহলে আপনার ডাক্তারই আপনার রোগ নির্ণয় ও তার চিকিৎসা প্রদান করতে পারবেন। অথবা তিনি আপনাকে একজন বাতরোগ বিশেষজ্ঞের কাছে পাঠাতে পারেন। বাতরোগ বিশেষজ্ঞ বলতে সেই ডাক্তারকে বোঝায় যিনি আর্থ্রাইটিস ও অন্যান্য বাতরোগ নির্ণয়ের ব্যাপারে এবং অবশ্যই তার চিকিৎসার ব্যাপারে বিশেষজ্ঞ বা উপযোগী।
যদি আপনার আর্থ্রাইটিস হয়ে থাকে তাহলে ডাক্তার কীভাবে তা নির্ণয় করবেন?
যদি সত্যিই আপনার আর্থ্রাইটিস হয়ে থাকে তাহলে ডাক্তার প্রথমেই আর্থ্রাইটিসের মতো উপসর্গ তৈরি করে এমন সব সম্ভাব্য রোগগুলো বাদ দিতে থাকবেন। আপনার জয়েন্ট ইনজুরি রয়েছে কিনা- কার্টিলেজ বা তরুণাস্থি ছিঁড়ে গেছে কিনা, অথবা আপনার মাংসপেশির বা লিগামেন্টের ইনজুরি হয়েছে কিনা সেসব ডাক্তার পরীক্ষা করে দেখবেন। অথবা আপনার অন্য কোনো ধরনের ইনফ্লামেশন বা প্রদাহ আছে কিনা, যেমন- বার্সাইটিসি বা টেনডিনাইটিস ইত্যাদি পরীক্ষা করে দেখবেন। আপনার হাড়ের টিউমার আছে কিনা কিংবা হাড় ভেঙে গেছে কিনা তাও দেখবেন। যদি আপনার ওপরের কোনোটি না থাকে, তাহলে আপনার বেশির ভাগ সম্ভাবনা রয়েছে প্রকৃত সত্যিকারের আর্থ্রাইটিসে আক্রান্ত হওয়ার। ডাক্তার এরপর খুঁজে বের করবেন আপনার কোন ধরনের আর্থ্রাইটিস হয়েছে। প্রাথমিকভাবে তার কাজ হলো এটি অস্টিও আর্থ্রাইটিস নাকি রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস তা পৃথক করা। যদি এটা রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস বা অন্য কোনো প্রদাহজনিত আর্থ্রাইটিস হয় তাহলে তার পরবর্তী কাজ হলো এটি কোনো ধরনের তা পুঙ্খানুপুঙ্খ খুঁজে বের করা। এটা কি গাউট নাকি রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস নাকি লাইম ডিজিজ- আর্থ্রাইটিসের একটি ব্যাপক স্থানান্তরিত রূপ, নাকি ফাইব্রোয়ালজিয়া- পুরোটা এমন ব্যথা যে লাইম ডিজিজ বলে সচরাচর ভুল হতে পারে।
আর্থ্রাইটিসের প্রাথমিক স্তরে এটা সর্বদা বলা সহজ না যে কী ঘটছে এবং কী কারণে আপনার সমস্যা হচ্ছে? তবু একটা জিনিস খুব গুরুত্বপূর্ণ। তাহলো, আপনার ডাক্তারকে নিশ্চিত হতে হবে যে আপনার জয়েন্টে কোনো ইনফেকশন নেই। অবশ্য আর্থ্রাইটিসের আরেকটি ধরণ হলো ইনফেকশাস আর্থ্রাইটিস। জয়েন্টে ইনফেকশন থাকলে অ্যান্টিবায়োটিক সহকারে দ্রুত চিকিৎসার প্রয়োজন হয়। আর আপনার ডাক্তারকে নিশ্চিত হতে হবে যে আপনার লাইম ডিজিজ হয়নি, তাহলে অপ্রীতিকর জটিলতা প্রতিরোধ করতে অ্যান্টিবায়োটিক সহকারে দ্রুত চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে।
আপনার ডাক্তার কী করবেন
আপনার ডাক্তার প্রথমে ব্যথার ব্যাপারে আপনাকে একগাদা প্রশ্ন জিজ্ঞেস করবেন। মনে রাখবেন আপনার উত্তরের মধ্যে লুকিয়ে রয়েছে মহামূল্যবান তথ্য, যা আপনার সমস্যার সমাধানে সাহায্য করতে পারে। সুতরাং চেষ্টা করবেন যতটা সম্ভব নির্দিষ্ট, খুঁটি নাটি ও সঠিক উত্তর দিতে। কখন ব্যথা শুরু হলো? যখন আপনি প্রথমে ব্যথা টের পেলে তখন কী করছিলেন? কখনো কি জয়েন্টে আঘাত পেয়েছিলেন? হাঁটার সময় কিংবা জায়গাটায় চাপ পড়লে কি ব্যথা বেড়ে যায়? চলাফেরা বা নড়াচড়ার সময় কি ক্যাঁচক্যাঁচ বা মট করে ভেঙে যাওয়ার মতো শব্দ হয়? জয়েন্ট আটকে যায়? আপনি বিশ্রাম নিলেও কি ব্যথা বৃদ্ধি পায়? জয়েন্ট কি ফুলে যায়, লাল হয় ও শক্ত হয়ে যায়? আপনার কি অন্য কোনো উপসর্গ থাকে? অবসাদ? জ্বর? ওজন কমে যাওয়া? আপনার কি সাম্প্রতিক কোনো ইনফেকশন রয়েছে? কোনো রহস্যময় র‌্যাশ? পায়খানার সমস্যা? আপনার পরিবারে কি আর কারো আর্থ্রাইটিস হওয়ার ইতিহাস আছে?
লেখক : সহকারী অধ্যাপক, অর্থোপেডিকস ও ট্রমাটোলজি বিভাগ, ঢাকা ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল।