খেলা-ধুলা

ভয়াবহ ট্রলের শিকার লঙ্কান ক্রিকেটাররা

প্রথমে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির গ্রুপপর্ব থেকে বিদায়। এরপর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে দেশের মাটিতেই হেরে যাওয়া। একমাত্র টেস্টে কোনোমতে বেঁচে যাওয়া। তারপর তো ভারতের বিপক্ষে কেলেঙ্কারি ঘটে যাচ্ছে! আর শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটারদের এই দুঃসময়ে ভক্তরাও বুঝি পিঠটান দিয়েছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভয়াবহ ট্রলের শিকার লঙ্কান ক্রিকেটাররা। তাতেই বিশেষ করে তরুণ ক্রিকেটারদের মাথা নষ্ট হওয়ার জোগাড়। দেশের মন্ত্রীও ঠাট্টা তামাসা করছেন অন লাইনে দল নিয়ে। এই অবস্থায় লঙ্কান ক্রিকেটারদের পাশে দাঁড়িয়েছে বোর্ড।

শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট আনুষ্ঠানিক বিবৃতি দিয়েছে। আর এই দলের মেন্টর কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান অরবিন্দ ডি সিলভা সেই বিবৃতিতে লঙ্কান ক্রিকেটারদের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের ট্রল আর সমালোচনাকে উপেক্ষা করার পরামর্শ দিয়েছেন। সাবেক এই অধিনায়ক বলেছেন, তরুণ ক্রিকেটারদের ‘বাইরের বিষয় নিয়ে নিরুৎসাহিত হওয়া উচিৎ হবে না। সোশাল মিডিয়া ও গসিপ সাইটের কারণে ভেঙে পড়া চলবে না।’ দ্বিতীয় টেস্টে ইনিংস ও ৫৩ রানের হারে তিন ম্যাচের সিরিজের একটি টেস্ট হাতে রেখেই ভারতের কাছে ২-০ তে সিরিজ হেরে বসে আছে শ্রীলঙ্কা। গলের প্রথম টেস্ট তারা হেরেছিল ৩০৪ রানে।

শ্রীলঙ্কা নাকি এখন ক্রিকেটের আঁধার যুগে তলিয়ে আছে। দেশটির মিডিয়া তেমন দাবি করে। আর কলম্বো টেস্ট চারদিনে হারার পর কথা উঠেছে লঙ্কান দল নাকি পঞ্চম দিনে খেলতে চায়নি বলেই আগে শেষ হয়েছে ম্যাচ! পরের দিন ছিল বুদ্ধিস্ট হলিডে।
এর হয়তো ভিত্তি নেই। কিন্তু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কি নির্মম রসিকতাই না হচ্ছে ক্রিকেটারদের নিয়ে। তারাও তো মানুষ। এই মাধ্যমে তাদেরও তো বিচরণ আছে। শুধু কি তাই? তাদের দেশের মন্ত্রী হারশা ডি সিলভা টুইটারে ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলির সাথে একটি ছবি পোস্ট করেছেন। আর লিখেছেন, ‘বিরাট কোহলির প্রতি#ভারত ক্রিকেট একটু আস্তে চলুক#শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে পরের টেস্টে। ৬০০ রান বড় বেশি হয়ে যায়।’ দুই টেস্টেরই প্রথম ইনিংসে ৬০০ বা তার বেশি রান করেছে ভারত।

শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট এই অবস্থায় দলের সাথে বসেছে। বিবৃতিতে তারা জানিয়েছে খেলোয়াড়, কর্মকর্তা ও কোচের বৈঠক হয়েছে। আর তা দলকে গুছিয়ে তোলার লক্ষ্যে। ক্রিকেটাররা যার মুখোমুখি হচ্ছে তা থেকে তাদের বের করে আনতে হবে। আর বোর্ড জানাচ্ছে, সব শুধরে নিতে চেষ্টা চালাচ্ছে তারা।