বিনোদন

‘শাকিব অভিনয়ে মিলনের ধারে কাছেও নেই’

‘শাকিব ভাগ্যবান যে আমাদের দেশে ভালো ও গুণী শিল্পীদের কদর খুব কম হয়। তা না হলে আনিসুর রহমান মিলন রাজনীতি মুভিতে যে অভিনয় করেছেন তার ধারে কাছেও শাকিব যেতে পারেনি।’

রাজনীতি সিনেমা নিয়ে দেশের ছোট পর্দার নির্মাতা সকাল আহমেদের স্ট্যাটাস থেকে পাওয়া গেল দেশের নাম্বার ওয়ান হিরোকে নিয়ে এমনই এক মন্তব্য।

সিনেমাটির প্রসঙ্গ টেনে এ স্ট্যাটাসে বলা হয়েছে, ‘রাজনীতি মুভিটা দেখার পর একটা বিষয় পরিষ্কার হয়ে গেল যে বাংলাদেশে এখনো কিছু ভালো অভিনেতা আছে। যাদের দিয়ে বাংলাদেশের চলচ্চিত্রকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব। আমি আনিসুর রহমান মিলনের কথা বলছি। তার অভিনয় আমি রাজনীতি মুভিতে দেখে পুরাই তাজ্জব বনে গেছি। যেমন অভিনয় দক্ষতা তেমন এক্সপ্রেশন, আর মুভিতে তার যে এগ্রেশন ছিল তা এক কথায় অস্থির। মুভিতে আনিসুর রহমানের কাজ দেখে আমার শাহরুখ খানের ডার মুভির সেই চরিত্র টার কথা মনে পড়ছিল। শাকিব ভাগ্যবান যে আমাদের দেশে ভালো ও গুণী শিল্পীদের কদর খুব কম হয়। তা না হলে আনিসুর রহমান মিলন রাজনীতি মুভিতে যে অভিনয় করছে তার ধারের কাছেও শাকিব যেতে পারেনি। পুরো মুভিতে তার অভিনয় সমস্ত কিছুকে ছাড়াই গেছে। কিন্তু তার পরও তাকে হয়তো শুধু একজন সাধারণ অভিনেতা হয়েই থাকতে হবে, লুতু পুতু নায়কদের (শাকিব ছাড়া) মুভিতে। শাহরুখ খানের ডার মুভিটার কথা এ কারণে বললাম এ মুভি যখন তৈরি হয় তখন শাহরুখ খান ছিলেন একজন নতুন নায়ক। তেমন একটা হিট মুভি তার ঝুলিতে ছিল না। অপরদিকে সানি দেওল তখন প্রথম সারির সুপারস্টার। কিন্তু মুভি রিলিজের পর সমস্ত কাহিনি উল্টে গেল। আর সানি দেওলকে ছাপিয়ে শাহরুখ খানের অভিনয় নিয়ে মাতামাতি শুরু হয়ে গেল। এবং তার পর আর তাকে পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি। এরপর শাহরুখ খান তার অভিনয় গুণে তিনি নিজেকে সুপারস্টার হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করলেন। এ পুরো বিষয়টাও আনিসুর রহমান মিলনের সঙ্গে ঘটতে পারতো। সেও নিজেকে সুপারস্টার হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে পারতো এ রাজনীতি মুভি দিয়ে। কিন্তু মনে হয় না সেটা সম্ভব। কারণ আমরা ভালো অভিনেতাকে ভালো তো বলি কিন্তু তাকে তার যোগ্য সম্মান দিতে কার্পণ্য করি। পরিশেষে বলবো, আনিসুর রহমান মিলন সত্যিই অনেক বড় মাপের অভিনেতা।’

তবে স্ট্যাটাসের শেষে কথাগুলো সংগৃহীত বলে উল্লেখ করেন সকাল আহমেদ। কোথা থেকে সংগৃহীত তা উল্লেখ করেননি তিনি।

ঈদে মুক্তি পাওয়া রাজনীতি সিনেমাটি অল্প হলে মুক্তি পেয়েও সব চেয়ে বেশি প্রশংসা কুড়িয়েছে। ঈদের পর হল সংখ্যাও বেড়েছে। সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন বুলবুল বিশ্বাস। এতে শাকিব খান, অপু বিশ্বাস, আনিসুর রহমান মিলন ছাড়া আরো অভিনয় করেছেন শহীদুল আলম সাচ্চু, সাদেক বাচ্চু, অমিত হাসান, আলীরাজ, পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়, জয়শ্রী কর জয়া, ডিজে সোহেল, কমল প্রমুখ।