খেলা-ধুলা

নিজের বাসায় আহত রুবেল হোসেন

সাধারণত খেলতে নেমে কিংবা অনুশীলনে চোট পান ক্রিকেটাররা। তবে বাংলাদেশ পেসার রুবেল হোসেনের এবারের চোটটা একটু অদ্ভুতই। সদ্যই শেষ হওয়া আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনালে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ শেষে টিম মিটিং করে হোটেলে ফেরার পর রুমের দরজায় ধাক্কা খান ডানহাতি এই পেসার। ফলাফল, রুবেলের বাঁ চোখ আর কানের মাঝখানের হাড়ই সরে গেছে!

ইংল্যান্ড থেকে দেশে ফেরার পথে বাংলাদেশ দলের কেউই তার মুখে কোনো চোট দেখেননি। ফেরার তাড়ায় ফিজিওকেও জানাননি রুবেল। অথচ এই অদ্ভুত চোটের জন্য এখন ছুরির নিচে যেতে হবে ২৭ বছর বয়সী এই গতিতারকাকে। মাঠের বাইরে থাকতে হবে প্রায় চার সপ্তাহ। তবে অস্ত্রোপচার কোথায় হবে, এখন সেই সিদ্ধান্ত নেবে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)।

নিজের চোট প্রসঙ্গে দেশের শীর্ষ একটি দৈনিককে রুবেল হোসেন বলেন, ‘ম্যাচ শেষে হোটেলে ফেরার পর রুমের দরজার সঙ্গে ধাক্কা খেয়েছিলাম। ওই সময় খুব বেশি ব্যথা অনুভব করিনি। দেশে আসার তাড়াহুড়ার মধ্যে তাই আর ফিজিওকে বিষয়টা বলিনি। কিন্তু ফোলাটা আস্তে আস্তে বাড়ায় ঢাকায় এসে ডাক্তার দেখিয়েছি।’

দেশে ফিরে বিসিবির চিকিৎসক দেবাশিষ চৌধুরিকে জানান রুবেল। তার পরামর্শেই আরও দুজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসককে দেখিয়েছেন তিনি। সোমবার সিটি স্ক্যানও করানো হয়েছে রুবেলের। দুজনই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকই দ্রুত অস্ত্রোপচারের পরামর্শ দিয়েছেন।

রুবেলের ইনজুরি প্রসঙ্গে দেবাশিষ চৌধুরীর ভাষ্য, ‘এটা স্পোর্টস ইনজুরি নয়, এটুকু নিশ্চিত। রুবেল বলেছে, দরজার সঙ্গে ধাক্কা লেগে নাকি এই ব্যথা পেয়েছে। চোটের জায়গার হাড় সামান্য নিচে নেমে গেছে। ছোট একটা অস্ত্রোপচার লাগবে এবং সেটা তাড়াতাড়িই করে ফেলা ভালো।’

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে বাংলাদেশের প্রতিটি ম্যাচেই ছিলেন রুবেল। বল হাতে মোট দুই উইকেট তুলে নেন ডাহাতি পেসার; যার একটি উইকেট পেয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচে। অন্যটি রুপকথা গড়ার ম্যাচে কিউইদের বিপক্ষে।