খেলা-ধুলা

এবার নিজের দলকেই ধুয়ে দিলেন হার্দিক পান্ডিয়া, যা বললেন!

ওভাবে আউট হওয়ার পর কারো মাথা ঠিক থাকে! তার উপর হার্দিক পান্ডিয়া যা খেলছিলেন। পাকিস্তানের দেওয়া ৩৩৯ রানের লক্ষ্যের পিছনে ছুঁটতে গিয়ে ৫৪ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে যখন ধ্বংসস্তুপে পারিণত ভারতের ইনিংস, তখন উইকেটে আসেন হার্দিক পান্ডিয়া। এসেই পাকিস্তানি বোলিং আগ্রাসণের বিপক্ষে ঝড়ের বেগে খেলতে থাকেন। ৩২ রানে তুলে নেন হাফ সেঞ্চুরি। কিন্তু ব্যক্তিগত স্কোরটা ৭৬ এ পৌঁছাতেই অঘটন! রবীন্দ্র জাদেজার সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে রান আউট হয়ে ফিরতে হয় পান্ডিয়াকে। যাতে ভারতের লড়াইয়ের সমাপ্তির সঙ্গে ভেঙে পড়ে পুরো ইনিংসই। দেখতে না দেখতে পাকিস্তান ম্যাচ জিতে নেয় ১৮০ রানের বিশাল ব্যবধানে।  এমন হারে হাতছাড়া হয়েছে ট্রফি, সঙ্গে নিজের আউট হওয়ার দুঃখটা কিছুতেই ভুলতে পারেছেন  না পান্ডিয়া। তাই তো ম্যাচের পর টুইট করে ঝাড়লেন ক্ষোভ। হারের জন্য দুষলেন নিজেদেরই। অন্যভাবে বললে সতীর্থদের।

ভারতের ইনিংসের ২৮তম ওভারের ঘটনা। হাসান আলির করা ওভারের তৃতীয় বল কাভারে ঠেলে দিয়েছিলেন জাদেজা। সঙ্গে সঙ্গে রানের জন্য ছোটেন পান্ডিয়া। কিন্তু অপর প্রান্তে ঠায় দাড়িয়ে রইলেন জাদেজা। সাড়া দিলেন না পান্ডিয়ার কলে। কাভার থেকে মোহাম্মদ হাফিজের করা থ্রো থেকে বল পেয়ে স্টাম্প ভেঙে দেন হাসান আলি।  পান্ডিয়ার লড়াইটার তাই অপমৃত্যু সেখানেই। ৪৩ বলে ৭৬ রানের ইনিংসটা তো সেঞ্চুরি হয়ে ভারতের লড়াইটাকে দীর্ঘ করতে পারতো। অলৌকিকতা তো ক্রিকেটে ঘটেই। ক্ষ্যাপা যুবক পান্ডিয়া ওই আউট নিয়ে পরে টুইটে লিখলেন, ‘আমরা আমাদের নিজেদের কারণে হেরেছি, অন্যের কি দোষ।’ অবশ্য ওই টুইটটা পরে ডিলেটও করে দিয়েছেন পান্ডিয়া।

পাকিস্তানের বিপক্ষে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে রোববার ওভালে একতরফা ভাবে হেরেছে ভারত। কি বোলিং, আর ব্যাটিং। দুই বিভাগেই পাকিস্তানের দাপটকে চ্যালেঞ্জ জানাতে পারেনি বিরাট কোহলির ভারত। অথচ বিশ্বের সবচেয়ে শক্ত ব্যাটিং লাইন আপ হিসেবে এখনো তাদের নামটাই আসে আগে। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে তো ভারতের বোলিং অ্যাটাককে বলা হচ্ছিল অন্যতম সেরা। কিন্তু ফাইনালে পাকিস্তানকে আগে ব্যাটিংয়ে পাঠালেন বিরাট কোহলি। কিন্তু তার বোলাররা আটকাতে পারলেন না পাকিস্তানি ব্যাটসম্যানদের। নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৪ উইকেটেই ৩৩৮ রান  তুলে নেয় সরফরাজ আহমেদের দল। ২৭ বছর বয়সী ফখর জামান করেন সেঞ্চুরি।

সে না হয় হলো। কিন্তু ভারতের ব্যাটিং লাইন আপের কাছে ৩৩৯ রানের লক্ষ্য কি এমন অসম্ভব ছিল? ভারত কিনা অল আউট হয়ে গেল ১৫৮ রানে। পান্ডিয়ার ক্ষোভ শুধু নিজের আউটটি নিয়েই নয়। ক্ষোভ তার জসপ্রিত বুমরাহর ওপরও। যে ফখর জামান সেঞ্চুরি করে ফাইনালের নায়ক, সেই ফখর তো আউট হতে পারতেন ব্যাক্তিগত ৩ রানেই। কিন্তু বুমরাহর ওভার স্টেপিংয়ের কারণে ধোনির হাতে ক্যাচ দিয়েও বেঁচে যান ফখর। অথচ তখন ফখর আউট হলে পাকিস্তানের স্কোরটা অতো বড় হয় না কিছুতেই। বোলিংয়ে নিয়ন্ত্রণে থাকার পর ব্যাটিংয়ের একমাত্র হিরো পান্ডিয়ার তো রাগ হবেই!