মতামত/বিশেষ লেখা/সাক্ষাৎকার

তওবা করা মহৎ গুণ-মুফতি আমজাদ হোসাইন

মুফতি আমজাদ হোসাইনগুনাহ ক্ষমাকারী, তওবা কবুলকারী, মহাপরাক্রমশালী শান্তি ও শাস্তিদাতা, সর্বময় ক্ষমতার মালিক আল্লাহতায়ালা ইরশাদ করেন, ‘হে মুমিনগণ! আল্লাহর কাছে আন্তরিকভাবে তওবা কর। আশা করা যায় তোমাদের পালনকর্তা তোমাদের মন্দ কাজসমূহ মোচন করে দেবেন এবং তোমাদের দাখিল করাবেন জান্নাতে। (সূরা তাহরীম : ০৮)। উক্ত আয়াতে (তওবাতান নাসূহা) তথা তওবায়ে নাসূহা বা খালেছ তওবার কথা বলা হয়েছে। তওবায়ে নাসূহা বলা হয় অতীত কৃতকর্মের ওপর অনুশোচনা এবং ভবিষ্যতে গুনাহের কাজে পুনরায় লিপ্ত না হওয়ার প্রতি অঙ্গীকার করা।  আল্লামা ইবনুল কাইয়্যূম (রহ.) তওবায়ে নাসূহার ব্যাখ্যায় বলেন, ‘তওবা হচ্ছে আল্লাহপ্রেমিক ব্যক্তিদের উত্তম স্থান এবং হেদায়েতপ্রাপ্ত লোকদের প্রথম এবং শেষ সোপান।’ মোমেন লোকেরা কখনো তওবা থেকে দূরে থাকতে পারে না। আমৃত্যু তওবা করতে থাকে। ইসলামের দ্বিতীয় খলিফা হজরত উমর (রা.)কে তওবায়ে নাসূহা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল। তিনি উত্তরে বললেন, তওবায়ে নাসূহা হলো, ‘মানুষ স্বীয় অন্যায় কৃতকর্মের জন্য অনুতপ্ত হয়ে এমনভাবে তওবা করে যে ভবিষ্যতে তার দ্বারা এ ধরনের অন্যায় কাজ আর সংঘটিত হয় না’। আমাদের মধ্যে কিছু সংখ্যক লোক এমন আছে তারা তওবা করতে বিলম্ব করে এবং মনে মনে সিদ্ধান্ত নেয় যে, এখন তো বয়স কম যেমন ইচ্ছা তেমন চলার বয়স, এখনই যদি তওবা করে ভালো হয়ে যাই তাহলে দুনিয়ার মজাতো আর বোঝা হলো না। খাও দাও ফুর্তি কর এর ওপর জীবন চালানো হলো না। তাই বয়স হলে সুযোগ-সুবিধা মতো তওবা করে নেব। বস্তুত তারা এক মহাভ্রান্তির জালে ফেঁসে আছে। দীর্ঘ জীবনযাপনের কামনা বাসনা করছে। তারা একটুও চিন্তা করছে না এ দুনিয়াতে আসার সিরিয়াল আছে যাওয়ার কিন্তু কোনো সিরিয়াল  নেই। মৃত্যু কাউকে সংবাদ দিয়ে আসে না। যখন মৃত্যু চলে আসবে তখন কাউকে মৃত্যু ছাড়বে না। পরকালে হাজারও আক্ষেপ করলেও কোনো কাজে আসবে না। এ প্রসঙ্গে পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হচ্ছে— ‘যাতে কেউ আল্লাহর দরবারে এ কথা বলতে না পারে, হায়! হায়! আমি আমার কর্তব্যে অবহেলা করেছি। আমি তো ঠাট্টা-বিদ্রূপকারীদের অন্তর্ভুক্ত ছিলাম। অথবা না বলে, আল্লাহ যদি আমাকে পথপ্রদর্শন করতেন, তবে আমি পরহেজগারদের একজন হতাম। অথবা আজাব প্রত্যক্ষ করার সময় না বলে, যদি কোনোরূপে একবার (দুনিয়াতে) ফিরে যেতে পারি, তবে আমি সৎ কর্মপরায়ণ হয়ে যাব। (সূরা জুমার : ৫৬, ৫৭, ৫৮)। আলোচ্য আয়াতসমূহ দ্বারা বোঝা গেল তওবা ও সব নেক আমল করার স্থান দুনিয়াতে পরকালে নয়। পরকালে হাজারো আহাজারি করা যাবে কিন্তু কোনোই কাজে আসবে না। সুতরাং হায়াত থাকতে হায়াতকে মহামূল্যবান মনে করা উচিত। একজন বান্দার জন্য সার্বক্ষণিক মহান রাব্বুল আলামিনের সান্নিধ্য পাওয়ার ধ্যান করা উচিত। আল্লামা ইয়াহইয়াহ ইবনে মাআয (রহ.) বলেন, অধিক উচ্চাভিলাষ মানুষকে তওবা থেকে দূরে সরিয়ে রাখে। আর পরকালমুখী বান্দারা আল্লাহর কাছে বেশি তওবা করে। সূরা আল ইমরানের ১৩৫-৩৬ নং আয়াতে প্রকৃত তওবাকারীদের পরিচয় দেওয়া হয়েছে। ইরশাদ হচ্ছে, ‘তারা কখনো কোনো অশ্লীল কাজ করে ফেললে কিংবা কোনো মন্দ কাজে জড়িত হয়ে নিজের ওপর জুলুম করে ফেললে আল্লাহকে স্মরণ করে এবং নিজের পাপের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করে। আল্লাহ ছাড়া আর কে ক্ষমা করবেন? তারা নিজের কৃতকর্মের জন্য হঠকারিতা করে না এবং জেনে-শুনে তাই করতে থাকে না। তাদেরই জন্য প্রতিদান হলো তাদের পালনকর্তার ক্ষমা ও জান্নাত। যার তলদেশে প্রবাহিত হচ্ছে প্রস্রবণ, যেখানে তারা থাকবে অনন্তকাল। যারা কাজ করে তাদের জন্য কতই না চমৎকার প্রতিদান।’ আল্লামা হাফেজ ইবনে কাসীর (রহ.) এ আয়াতের ব্যাখ্যায় হজরত আনাস (রা.)-এর উদ্ধৃতি দিয়ে লেখেন, এই আয়াতদ্বয় নাজিল হওয়ার সময় ইবলিস শয়তান অনেক কেঁদেছিল। হজরত আবু সাঈদ খুদরী (রা.) বলেন, রসুল (সা.) ইরশাদ করেছেন, ইবলিস বলল : হে প্রতিপালক আপনার মহিমার শপথ যতক্ষণ আপনার বান্দার প্রাণ তার শরীরে সংযুক্ত থাকবে ততক্ষণ আমি তাকে বিপথগামী করা থেকে বিরত থাকব না। আমি তাদের পথভ্রষ্ট করতে থাকব। তার উত্তরে আল্লাহপাক ইরশাদ করেন, আমার মাহাত্ম্য ও মহিমার কসম করে বলছি, যতক্ষণ পর্যন্ত আমার বান্দা আমার কাছে গুনাহের জন্য তওবা করতে থাকবে আমি তাদের গুনাহ ক্ষমা করতে থাকব। (মুসনাদে আহমদ)। ইবলিস শয়তান মানুষকে পথভ্রষ্ট করার জন্য যতই পাঁয়তারা করুক না কেন? বান্দা যদি এক আল্লাহর ওপর ভরসা করে পথ এগোতে থাকে। নিজেকে স্বীয় কর্মের জন্য লজ্জিত ও অপমানিত মনে করে এবং বিনয়ের সঙ্গে কায়মনবাক্যে তওবা করে, অতঃপর নিজের বদ-আমল সংশোধন করে গুনাহের কাজ পরিহার করে চলে। আল্লাহপাক এমন বান্দার প্রতি রহমতের দৃষ্টিতে তাকান এবং (হুকুকুল ইবাদ) বান্দার হক ব্যতীত তার সব ছোট-বড় গুনাহ মাফ করে দেন। সৃষ্টিজীব হতে তার অশোভনীয় আচরণসমূহ আচ্ছাদিত করে রাখেন আর সে যতদিন বেঁচে থাকে আল্লাহপাকের নুসরত তার সাথী হয়ে থাকে। আমাদের সমাজে অনেকে এমন আছেন তাদের তওবা করে সঠিক পথে চলার কথা বললে তারা উত্তরে বলে এখনো অনেক সময় বাকি আছে। ছেলেমেয়েদের বিবাহশাদি দিয়ে নিই। পরে পরকালের কথা চিন্তা করা যাবে। এটাও শয়তানের শেখানো একটা বুলি মাত্র। শয়তানের কথাই মানুষের মুখ দিয়ে বের হচ্ছে। আর শয়তান তাই চায় যে আমার কথা মানুষ তার মুখ দিয়ে বলুক এবং মানুষ আমার অনুসারী হয়ে যাক। আগের জমানার মানুষ বিশ্বাসই করতে পারত না মানুষ আবার মিথ্যা কথা বলে কীভাবে? বর্তমান জমানাতে অনেকে মিথ্যাকে নিজেদের সঙ্গী বানিয়ে নিয়েছে। প্রতিদিন কয়েকশ মিথ্যা কথা না বললে যেন পেটের ভাত হজম হয় না। মিথ্যার বহু প্রকার আছে। সাক্ষাতে মিথ্যা বলছে, মোবাইলে মিথ্যা বলছে, ওয়াদায় মিথ্যা বলছে। সে চিন্তাই করে না যে এগুলো মিথ্যা, প্রতিটি কথা ও কর্মের হিসাব আল্লাহর দরবারে দিতে হবে। প্রিয় পাঠক! রসুল (সা.) প্রতিদিন শতবার তওবা করতেন। এখানে বোঝার বিষয় হলো নবীরা মাসুম তথা নিষ্পাপ। এখন প্রশ্ন হলো রসুল (সা.) কেন প্রতিদিন শতবার তওবা করতেন? উত্তরে এ কথাই বলতে হবে রসুল (সা.) ছিলেন উম্মতের ইমাম ও রাহ্বারে কামেল। তিনি মূলত উম্মতকে শিক্ষা দেওয়ার জন্যই প্রতিদিন শতবার তওবা করতেন। নবীজী তো তওবা করার পদ্ধতি শিক্ষা দিয়ে গেছেন। এখন আমাদের দায়িত্ব নবীজীর শিক্ষার ওপর জীবন গড়া।  তাহলেই ইনশা আল্লাহ দুনিয়া ও পরকালে শান্তিতে বসবাস করা সহজ হবে।  মহান রাব্বুল আলামিন আমাদের সবাইকে বেশি বেশি করে তওবা করার তৌফিক দান করুন।  আমিন

     লেখক : মুহাদ্দিস, মুফাসসির ও খতিব, বারিধারা, ঢাকা।

Add Comment

Click here to post a comment