খেলা-ধুলা

৩৩ বছরে পা রাখলেন আশরাফুল : শুভ জন্মদিন

মোহাম্মদ আশরাফুল; বাংলাদেশের ক্রিকেটাকাশে এক উজ্জ্বল নক্ষত্রের নাম। তার সময় তিনিই ছিলেন সবচেয়ে বড় তারকা। অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের মতো দলের বিপক্ষে বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো জয়ের মুখ দেখেছিল আশরাফুলের ব্যাটে ভর করেই। বাংলাদেশ ক্রিকেটকে দুহাত ভরে দিয়েছেন তিনি!

আজ ৭ জুলাই (শুক্রবার); আশরাফুলের ৩৩তম জন্মবার্ষিকী। ৩৪-এ পা রাখলেন জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক। ১৯৮৪ সালের এই দিনে ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন তিনি। ভক্তরা তাকে শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন। জাগো নিউজ পরিবারের পক্ষ থেকেও টেস্ট ক্রিকেটের সর্বকনিষ্ঠ সেঞ্চুরিয়ানকে রইল জন্মদিনের শুভেচ্ছা।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আশরাফুলের অভিষেক ২০০১ সালে, ১১ এপ্রিল। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে দিয়ে। শুরুটা ভালো ছিল না। ৬ বলে দুটি চারে ৯ রান করতেই ফেরেন সাজঘরে। বল হাতে ৪ ওভারে ২৫ রান দিয়ে ১ উইকেট দখলে নেন। ওই ম্যাচে বাংলাদেশ হেরেছিল ৩৬ রানে।

একদিনের ক্রিকেটে খেলেছেন ১৭৭টি ম্যাচ। ২২.২৩ গড়ে করেছেন ৩৪৬৮ রান। তিনটি সেঞ্চুরির সঙ্গে রয়েছে ২০টি হাফ সেঞ্চুরি। সর্বোচ্চ ১০৯ রানের ইনিংস রয়েছে তার নামের পাশে।

টেস্ট ক্রিকেটে আশরাফুলের পথচলা শুরু হয়েছিল অনন্য এক রেকর্ড দিয়েই। একই বছরের (২০০১) সেপ্টেম্বরে কলম্বোয় শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তার টেস্ট অভিষেক। স্মরণীয় অভিষেকই হয়েছিল আশরাফুলের। সবচেয়ে কম বয়সী ক্রিকেটার হিসেবে প্রথম টেস্ট ম্যাচে সেঞ্চুরি করার কীর্তি গড়েন তিনি। খেলেছিলেন ১১৪ রানের ইনিংস।

বাংলাদেশের হয়ে ৬১টি টেস্ট খেলেছেন আশরাফুল। ২৪.০০ গড়ে করেছেন ২৭৩৭ রান। ৬টি সেঞ্চুরির সঙ্গে ৮টি হাফ সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন তিনি। টেস্টে সর্বোচ্চ ১৯০ রানের ইনিংস রয়েছে তার।

টি-টোয়েন্টিতে আশরাফুলের যাত্রা শুরু ২০০৭ সালে। কেনিয়ার বিপক্ষে ২০ বলে চারটি চার ও একটি ছক্কায় ৩৬ রান করেছিলেন তিনি। বাংলাদেশ জয় পেয়েছিল ৫ উইকেটে (১৪ বল হাতে রেখেই)।

জাতীয় দলের জার্সিতে ২৩টি টি-টোয়েন্টি খেলেছেন আশরাফুল। ১৯.৫৬ গড়ে নামের পাশে জমা করেছেন ৪৫০ রান। টি-টোয়েন্টিতে দুটি ফিফটি করেছেন। সর্বোচ্চ ৬৫ রানের ইনিংস খেলেছেন ‘অ্যাশ’।

২০১৩ সালে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএলে) ম্যাচ পাতানোর সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন আশরাফুল। এই অভিযোগ তিনি স্বীকার করেন। জাতির কাছে ক্ষমা চান। পরে আশরাফুলকে সব ধরনের ক্রিকেট থেকে সাময়িকভাবে নিষিদ্ধ করে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। গত বছর আবারও ক্রিকেটে ফেরেন। তবে জাতীয় দলের বাইরে রয়েছেন এখনও।