অন্যরকম খবর

স্বামীর পুরুষাঙ্গ কেটে স্ত্রীর আত্মহত্যা!

123সকালে দরজা খুলেই চোখে পড়ে বিছানায় রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছে ছেলে। ধারালো অস্ত্রের আঘাতে ছিন্নভিন্ন হয়ে যাওয়া পুরুষাঙ্গ থেকে তখনও রক্ত ঝরছে। ছেলের অচেতন দেহের পাশেই গলায় দড়ি দেওয়া অবস্থায় ঝুলছে বউয়ের লাশ। এরপরই চিৎকার করে সংজ্ঞাহীন হয়ে যান কৌশল্যা মান্না। পরে মহাদেবকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় চিত্তরঞ্জন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ঘটনাটি ভারতের দক্ষিণ ২৪ পরগনার মিনাখাঁ থানার ৪ নম্বর চৈতল গ্রামের।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, দাম্পত্য কলহের কারণে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে। তবে এই ঘটনায় একে অপরের বিরু‌দ্ধে পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করেছে দুই পরিবার। পুলিশের কাছে অভিযোগে কৌশল্যা জানান, ছেলের বউ সাগরিকাই তার ছেলের পুরুষাঙ্গ কেটে নিয়েছেন।

এদিকে সাগরিকার ভাই অশোক বারুই পুলিশের কাছে পাল্টা অভিযোগ করেছেন। অভিযোগে তিনি বলেন, শ্বশুরবাড়ির লোকজন তার বোনের উপর অত্যাচার চালাত। ঘটনার দিন তাকে হত্যা করে গলায় দড়ি লাগিয়ে সিলিংয়ে ঝুলিয়ে দেয় তারা। তবে পুলিশ জানিয়েছে, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত কোনো মন্তব্য করা তাদের পক্ষে সম্ভব নয়।

দুই বছর আগে চৈতল গ্রামের মন্মথ মান্নার ছেলে মহাদেব মান্নার সাথে সন্দেশখালি থানার বেড়মজুর গ্রামের সাগরিকার বিয়ে হয়। কোনো সন্তান না হওয়ায় তাদের মধ্যে প্রায়ই ঝগড়া লেগে থাকত। মহাদেবের সন্দেহ, তার স্ত্রীর সঙ্গে গ্রামের এক যুবকের অবৈধ সম্পর্ক রয়েছে। এ নিয়েও তাদের মধ্যে অশান্তি মাঝেমধ্যেই চরম আকার নিত।

বুধবার গ্রামে জগদ্ধাত্রী পূজা উপলক্ষে মেলা চলছিল। রাতে স্বামী-স্ত্রী মিলে সেই মেলা দেখতে যান। সেখানে এক পরিচিত যুবকের সঙ্গে সাগরিকাকে কথা বলতে দেখেন মহাদেব। এ নিয়ে মেলাতেই কথাকাটাকাটি হয় তাদের মধ্যে। রাতে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে চরম ঝগড়া হয়। তারপর এ ঘটনা ঘটে।

ভিডিওঃ এইটা কি মাইয়া না কাঁচা মরিচ !! (ভিডিওসহ)

Add Comment

Click here to post a comment



সর্বশেষ খবর