slider

স্ত্রী কলেজে ভর্তি হওয়ার একি করল স্বামী

তিনি নিজে স্কুলের গণ্ডিও পেরোননি। স্ত্রীকেও পড়াশোনা করতে বারণ করেছিলেন। কিন্তু স্বামীর কথা শোনেননি হাওয়া আখতার (২০)। স্বামীর অমতেই ভর্তি হয়েছিলেন কলেজে। আর তার ফলও হাতেনাতে পেয়ে গেলেন তিনি। সারপ্রাইজ দেওয়ার নাম করে হাওয়া আখতারের ডান হাতের পাঁচটি আঙুল কেটে দিলেন গুণধর স্বামী রফিকুল ইসলাম। রফিকুলকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

ঢাকায় থাকেন রফিকুল ইসলাম। আরবে শ্রমিকের কাজ করেন তিনি। কোনওমতে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেছিলেন। রফিকুল চাননি, তাঁর স্ত্রী হাওয়া আখতার বেশিদূর পড়াশোনা করুক। কলেজে যাক। যদি তিনি পড়াশোনা চালিয়ে যান, তাহলে তার ফল যে ভাল হবে না, স্ত্রীকে সেকথা জানিয়েও দিয়েছিলেন রফিকুল। কিন্তু এতকিছুর পরও পড়াশোনা চালিয়ে যেতে চেয়েছিলেন রফিকুলের স্ত্রী হাওয়া আখতার।

স্বামীর অমতেই স্থানীয় একটি কলেজে ভর্তিও হন তিনি। সম্প্রতি আরব থেকে বাংলাদেশে নিজের বাড়িতে ফিরে স্ত্রীর কলেজে ভর্তি হওয়ার কথা জানতে পারেন রফিকুল। রফিকুলের স্ত্রী হাওয়া আখতার বলেন, ‘ও আমাকে বলল, উপহার এনেছে। এরপরই আমার চোখ ও হাত বেঁধে দিল। কিন্তু, উপহারের দেওয়ার বদলে আমার ডান হাতের পাঁচটি আঙুল কেটে দিল।’ এই ঘটনার পর হাওয়া আখতারের কাটা আঙুলগুলি ডাস্টবিনে ফেলে দেন রফিকুলের এক আত্মীয়। যাতে চিকিৎসকরা আঙুলগুলি জুড়ে দিতে না পারেন।

স্ত্রীর অভিযোগের ভিত্তিতে রফিকুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বাংলাদেশের পুলিশ প্রধান মহম্মদ সালাউদ্দিন জানিয়েছে, নিজের দোষ স্বীকার করে নিয়েছেন তিনি। রফিকুলের বিরুদ্ধে স্থায়ীভাবে অঙ্গহানি করার অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়েছে। তবে এই ভয়ঙ্কর ঘটনার পর দমবার পাত্রী নন হাওয়া আখতার। ডানহাতের আঙুল কাটা গিয়েছে ঠিকই। তবে বাঁ হাত দিয়ে লেখার অভ্যাস করতে শুরু করেছেন তিনি। বাঁ হাত দিয়ে লিখেই পড়াশুনা চালিয়ে যেতে বদ্ধপরিকর বছর কুড়ির এই যুবতী।

সিনেমার নায়ক কিন্তু ব্যক্তি জীবনে ‘ঠান্ডা মাথার ভিলেন’ শাকিব খান

 

Advertisements