বিনোদন

সালমানের মৃত্যুর দিন ভিকিকে নিয়ে কি সরিয়ে ছিলেন সামিরা?

সালমান শাহর মৃত্যুরহস্য আবারো টক অব দ্য টাউন হয়ে উঠেছে। সোমবার এ নায়কের হত্যা মামলার অন্যতম আসামি রুবি একটি ভিডিও প্রকাশ করার পর আলোচনা নতুন মোড় নেয়। সালমান হত্যাকাণ্ডের জন্য সালমানের শ্বশুর বাড়ির লোকজন ও নিজের স্বামীকে দায়ী করেন রুবি। জানান, তিনিই সালমান হত্যার একমাত্র জীবিত প্রমাণ।

এদিকে সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে সালমানের শ্বশুর সাবেক ক্রিকেটার শফিকুল হক হীরা জানান, রুবির বক্তব্য নিয়ে মোটেও মাথা ঘামাচ্ছেন না। রুবিকে তিনি উম্মাদ আখ্যা দেন। পাশাপাশি বলেন, সালমানের মা নীলা চৌধুরী টাকা দিয়েছেন রুবিকে।

এর পরিপ্রেক্ষিতে রুবি মঙ্গলবার এক স্ট্যাটাসে হীরার উদ্দেশে কয়েকটি প্রশ্ন করেছেন। তিনি বলেন, ‘সামিরার (সালমানের স্ত্রী) পরিবারকে বলো আমি শরীর ও মনের দিক থেকে অনেক ভালো আছি। তারা কীভাবে প্রমাণ করবে যে আমি মানসিকভাবে অসুস্থ? সামিরার বাবা শফিকুল হক হীরা কী করে আমার সমন্ধে এত কিছু জানে?’

আরো লেখেন, ‘আমি তো উনাকে দেখিনি ১৯৯৭ সালের পরে। আমাকে নিয়ে এত খবর তিনি কী করে জানেন? কার কাছ থেকে তিনি এত খবর পান। মাথা খারাপ মানুষ নিউইয়র্কে হোটেল ভাড়া নিতে পারে না। আমি হোটেলে তিনদিন ধরে আছি। একা। একমাত্র আল্লাহ তায়াল ওপর ভরসা করে।’

রুবি জানান, সালমানের মায়ের সঙ্গে ১৯৯৫ সালের পর দেখা হয়নি। তার নিজের যথেষ্ট টাকা আছে।
আরো প্রশ্ন তোলেন, সালমানের মৃত্যুর দিন তার ছেলে ভিকিকে নিয়ে কিছু একটা সরিয়ে ছিলেন সামিরা। সেটা কী? কাজের লোকের কাছে কীভাবে সালমানের সুইসাইড নোট এল।

সালমান হত্যা মামলার ১১জন আসামির মধ্যে অন্যতম রুবির পুরো নাম রাবেয়া সুলতানা রুবি। যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভেনিয়ার ফিলাডেলফিয়াতে চাইনিজ স্বামী ও দুই সন্তানসহ অনেকদিন ধরে বসবাস করছিলেন তিনি।