বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

সারাবিশ্বে ‘ব্লু হোয়েল’ অনুসন্ধানে বাংলাদেশ নম্বরে জানলে অবাক হবেন আপনি!

বিশ্বব্যাপী গুগল সার্চ ইঞ্জিনে আত্মঘাতী খেলা ‘ব্লু হোয়েল’ অনুসন্ধানে তিন নম্বরে রয়েছে বাংলাদেশ। গুগল ট্রেন্ডের গত এক বছরের পরিসংখ্যান ঘেঁটে এ তথ্য বেরিয়ে এসেছে।

‘ব্লু হোয়েল চ্যালেঞ্জ’ একটি অনলাইন গেম, যা অংশগ্রহণকারীকে মৃত্যুর পথে নিয়ে যায়। এই গেমটি খেলে বিশ্বব্যাপী অনেক তরুণ তরুণী আত্মহনন করেছে। সম্প্রতি ভারত জুড়ে এই গেমটি ছড়িয়ে পড়ে। এর মধ্যে ঢাকায় এক কিশোরী ওই গেম খেলে আত্মহত্যা করেছে বলে খবর পাওয়া যায়। এছাড়া আজ বৃহস্পতিবার ব্লু হোয়েল আসক্ত এক তরুণকে ঢাকেমে ভর্তি করা হয়েছে।

এরই মধ্যে এলো এই উদ্বেগ জনক খবর। গত এক বছরে গুগল ট্রেন্ডের রিপোর্টে দেখা গেছে, ‘ব্লু হোয়েল’ সার্চে র্শীষে আছে পাকিস্তান, দ্বিতীয় অবস্থানে মরিশাস এবং তৃতীয় হিসেবে রয়েছে বাংলাদেশের নাম।

গত ১ অক্টোবরের পর থেকে বাংলাদেশ থেকে ইন্টারনেটে ‘ব্লু হোয়েল’ অনুসন্ধানের পরিমাণ উদ্বেগজনক হারে বেড়েছে।

এদিকে ‘ব্লু হোয়েল গেম’ বাংলাদেশে কারো আত্মহত্যার কারণ হয়েছে কি না, তার তদন্ত করতে বিটিআরসিকে নির্দেশ দিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।

তাছাড়া তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ জানিয়েছেন, বাংলাদেশে ‘ব্লু হোয়েল গেম’ লিংক বন্ধ করার চেষ্টা করা হচ্ছে এবং এর ওপর সতর্ক নজর রাখা হচ্ছে। পাশাপাশি আইসিটি ডিভিশনের যে বিডিসিআইআরটি আছে তারাও সতর্ক নজর রাখছে।

‘ব্লু হোয়েল’ বা ‘ব্লু হোয়েল চ্যালেঞ্জ’ এমন একটি অনলাইন গেম, যা অংশগ্রহণকারীকে মৃত্যুর পথে নিয়ে যায়। নীল তিমিরা মারা যাওয়ার আগে জল ছেড়ে ডাঙায় ওঠে যেন আত্মহত্যার জন্যই- সেই ধারণা থেকে এই গেমের নাম হয়েছে ‘ব্লু হোয়েল’। এই গেমে খেলোয়াড়দের সামনে চ্যালেঞ্জ হিসেবে বিভিন্ন কাজ করতে দেওয়া হয়, শুরুতে হালকা কিছু কাজ দেওয়া হলেও ধীরে ধীরে ভয়ঙ্কর সব কাজ দেওয়া হয়। বিপজ্জনক সব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার পর সব শেষে চূড়ান্ত কাজ হিসেবে খেলোয়াড়কে আত্মহত্যা করতে বলা হয়।