Advertisements
বিনোদন

সামিরা চরিত্রহীন, শাবনুরে আসক্ত ছিলেন সালমান: নিউ ইয়র্কের টাইম টেলিভিশনকে রুবি

বাংলাদেশের জনপ্রিয় নায়ক সালমান শাহের মৃত্যু ইস্যুতে হঠাৎ করে সামনে এসেছেন রাবেয়া সুলতানা রুবি। ফেসবুক লাইভে এসে একের পর এক বোমা ফাটাচ্ছেন তিনি। তবে তার বেশিরভাগ কথা অসংলগ্ন। এজন্য অনেকে তাকে ‘পাগল’ বলেও উপাধি দিয়েছেন।

এই রুবি রোববার সকালে নিউ ইয়র্কের টাইম টেলিভিশনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারেও আরেক বোমা ফাটিয়েছেন।

তিনি বলেছেন, ‘সালমান শাহের (ইমন) স্ত্রী সামিরা চরিত্রহীন ছিল। এজন্য ইমন তাকে মেরেছিল।’

এখানেই থামেননি রুবি। তার ভাষ্যে, সালমান শাহ’র সঙ্গে তার সময়ের সেরা তারকা জুটির নায়িকা শাবনুরের প্রেম ছিল। এটা নিয়েও সামিরার সঙ্গে দ্বন্দ্বে জড়িয়েছিল ইমন।

সাক্ষাৎকারে রুবির কাছে জানতে চাওয়া হয়, স্ত্রী সামিরার সঙ্গে সালমান শাহের সম্পর্ক কেমন ছিল?

উত্তরে তিনি বলেন, ‘সামিরা (সালমান শাহের স্ত্রী) আমাকে যা বলেছেন সেটা বলতে পারব। সামিরা আমাকে বলেছে ইমন তাকে মেরেছে। তাকে দু’বার মেরেছে।’

কেন মেরেছেন এমন প্রশ্নে রুবি বলেন, ‘যতদূর জানি ইমন সামিরাকে মেরেছিল চরিত্রহীনতার দোষে।’

সালমান শাহ’র চরিত্র নিয়েও নাকি তার সঙ্গে কথা হয়েছে সামিরার। রুবি বলেন, ‘সামিরা আমাকে আরও বলেছে- শাবনুরের সঙ্গে ইমনের (সালমান শাহ) সম্পর্ক ছিল।’

তবে সাক্ষাৎকারে তিনি এসব বিষয়ে সামিরা ভালো বলতে পারবেন বলে জানান, ‘এসব বিষয়ে সামিরা ভাল বলতে পারবে, তাকে কেউ জিজ্ঞেস করে না কেন? দুইটা ফুপুর বাসা থাকতে সামিরা কেন প্রতিবেশীর বাসায় থাকতো?’

আপনি যে পাগলামি করছেন না, তার কি প্রমাণ আছে- এমন প্রশ্নের জবাবে রুবি বলেন, ‘আমি পাগল হতে যাব কেন? সালমান শাহের মৃত্যুর ঘটনায় পাগলের অভিনয় করেছি। এটা যদি না করতাম, তাহলে আমি এখানে আসতে পারতাম না।’

এরপরই তিনি অকপটে বলেন, ‘আমি মানসিক রোগী নই, স্বামীর অনুরোধে পরের ভিডিওটি ছেড়েছি। আমার ছেলে রুমি ও ইমনের (সালমান শাহ) স্ত্রী সামিরার কাছে যা শুনেছি, তাই বলেছি। ইমনের (সালমান শাহ) হত্যা মামলার তদন্তে এগুলো কাজে আসতেও পারে।’

উল্লেখ্য, ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর সালমান শাহর মৃত্যুর পর তারা বাবা কমরউদ্দিন আহম্মদ চৌধুরী একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করেন।

১৯৯৭ সালের ২৪ জুলাই তিনি আদালতে মামলাটি করেছিলেন। একই বছর ৩ নভেম্বর সিআইডি পূর্ণাঙ্গ তদন্ত দাখিল করে জানায় সালমান শাহর অপমৃত্যু হয়েছিল।

Advertisements