আজকের চাকরী & শিক্ষা জাতীয়

সরকারি চাকরিজীবীদের মৃত্যুর পরও স্ত্রী-সন্তান ১৫ বছর ভাতা পাবেন

এখন থেকে শতভাগ পেনশন সমর্পণকারী (পেনশনের পুরো টাকা তুলে নেয়া) অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীর মৃত্যুর পর তার স্ত্রী বা স্বামী ও প্রতিবন্ধী সন্তান চিকিৎসা ভাতা ও বছরে দুটি উৎসব ভাতা পাবেন। তবে দ্বিতীয়বার বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হলে বিধবা স্ত্রী বা বিপত্নীক স্বামী এ সুবিধা পাবেন না।

সোমবার এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়।
এতে বলা হয়, বিপত্নীক স্বামী সর্বাধিক ১৫ বছর অর্থাৎ শতভাগ পেনশন সমর্পণকারী কর্মচারীর অবসর গ্রহণের তারিখ থেকে ১৫ বছর মেয়াদ পূর্তির কোনো সময় অবশিষ্ট থাকলে শুধু ওই সময় পর্যন্ত মাসিক চিকিৎসা ভাতা ও বছরে ২টি উৎসব ভাতা পাবেন। তবে পুনরায় বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হলে বিধবা স্ত্রী বা বিপত্নীক স্বামী এ সুবিধা পাবেন না। প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, কেউ শতভাগ পেনশন সমর্পণ না করলে যে পরিমাণ মাসিক নিট পেনশন পেতেন সে ভিত্তিতে উৎসব ভাতার পরিমাণ নির্ধারিত হবে।

প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়, শতভাগ পেনশন সমর্পণকারীর বিধবা স্ত্রী বা বিপত্নীক স্বামী ২০১৬ সালের ১ ফেব্রুয়ারির আগে কোনো চিকিৎসা ভাতা বা উৎসব ভাতা উত্তোলন করে থাকলে তা তাদের পরবর্তী সময়ে পাওয়া চিকিৎসা বা উৎসব ভাতা থেকে সমন্বয় করা হবে। এ সুবিধা ২০১৬ সালের ১ ফেব্রুয়ারি থেকে কার্যকর হবে বলে প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে।