বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

সবকিছু শেয়ার করছেন ফেসবুকে? যে বিপদ ডেকে আনছেন আপনার জীবনে

1aফেসবুকের নেশায় বুঁদ ? বন্ধুদের সুবিধার্থে নিজের ব্যবহারের মোবাইল নম্বরটি প্রোফাইলেই রেখেছেন ? জন্মের সাল তারিখও বাদ দেননি নিশ্চয় ? উত্তর যদি হ্যাঁ হয়, তাহলে সাবধান। কারণ যে কোনও মুহূর্তেই আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের টাকা লোপাট হতে পারে। এমনটাই বলছেন সাইবার অপরাধ বিশেষজ্ঞরা।

জন্মদিনে ফেসবুক বন্ধুদের শুভেচ্ছা পেতে কার না ভালো লাগে। বেশ গদগদ হয়ে আপনিও প্রতি শুভেচ্ছা জানান। জানেন কি জন্মের সাল-তারিখ এভাবে সর্বসমক্ষে চলে আসায় বিপদ বাড়ছে আপনার ? মোবাইল নম্বরটিও দিয়ে রেখেছেন ফেসবুকে। বিপদের তো সোনায় সোহাগা। ভাবছেন কীভাবে ? চলুন দেখে নেওয়া যাক।

সাইবার বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট ও ATM কার্ডের নানা তথ্য হাতানোর পরেও বেশকিছু প্রয়োজনীয় তথ্য হ্যাকারদের হাতছাড়া থেকে যায়। যেমন ধরুন আপনার জন্মের সাল-তারিখ, মোবাইল নম্বর। তবে এগুলোর জন্য হ্যাকারকে আজকাল আর খুব বেশি পরিশ্রম করতে হয় না। আপনার ফেসবুক প্রোফাইল থেকে এই তথ্যসমূহ হস্তগত করেই শুরু হয় বুদ্ধির খেলা।

হতেই পারে জন্মের সাল-তারিখ ও মোবাইল নম্বর হাতে পেয়ে স্থানীয় থানায় মোবাইল হারিয়েছে বলে অভিযোগ করল কোনও হ্যাকার। সংশ্লিষ্ট মোবাইল সংস্থায় অভিযোগ পত্র দেখিয়ে ডুপ্লিকেট সিমও তুলে নিল আপনার নামে। এরমধ্যে হঠাৎ আপনি দেখলেন ফেসবুকে দেওয়া মোবাইল নম্বরের নেটওয়ার্ক উধাও। বুঝে নিন সমূহ বিপদ। হ্যাকার এবার ওই ডুপ্লিকেট সিম নিয়ে অনলাইন ব্যাঙ্কিংয়ের সহায়তায় আপনার পাসওয়ার্ড রিসেট করবে। এই কাজে প্রয়োজনীয় OTP আসবে ওই ডুপ্লিকেট সিমে। খুব সহজেই আপনার অ্যাকাউন্ট নিয়ন্ত্রণ করবে হ্যাকার। কার্যক্ষেত্রে পকেট ফাঁকা হবে আপনার।

শুধু এই পদ্ধতিই নয়, বহু ক্ষেত্রে আপনার বন্ধু কারা বা আপনি কতদিন বাঁচবেন গোছের কিছু অ্যাপস পোস্ট করা থাকে। থার্ড পার্টি ওই পোস্টে ক্লিক করলে চাওয়া হয় আপনার ফেসবুক ইউজার ও পাসওয়ার্ড। এভাবেও আপনার ফেসবুকের যাবতীয় তথ্য অনত্র চলে যেতে পারে। অসুরক্ষিত হতে পারে আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট। অতএব সাবধান হয়ে যান এখনই।

ভিডিওঃ ইডেন কলেজের মেয়ে ইয়াবার নাশায় হট নাচ; ভিডিওতে দেখুন

Add Comment

Click here to post a comment