Advertisements
লাইফ স্টাইল

সন্তান হস্তমৈথুন করলে কীভাবে পরিস্থিতি সামাল দেবেন.…

বয়ঃসন্ধির সময় বাচ্চাদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই বয়সে সব সময় তাদের চোখে চোখে রাখতে হয়। এই সময় একটা ভুল তাদের সারা জীবন নষ্ট করে দিতে পারে।

এই বয়সে বাচ্চারা অনেক সময় খারাপও হয়ে যেতে পারে। কিন্তু, এই সময় যদি আপনার সন্তানকে হস্তমৈথুন করতে দেখেন তাহলে একবারেই ঘাবড়াবেন না। কারণ এই বয়সেই বাচ্চারা নিজেদের যৌনতা সম্পর্কে অবহিত হয়।

এমনকী, ধীরে ধীরে তাদের মধ্যে যৌন চাহিদার বিকাশ ঘটে। বিপরীত সেক্সের প্রতিও আকৃষ্ট হয় তারা। তাই এই পরিস্থিতিতে মাথা গরম করবেন না। ঠান্ডা মাথায় বিষয়টির সমাধান করুন।

এই বিষয়টি একেবারে স্বাভাবিক একটা বিষয়। তাতে খুব একটা চিন্তার কোনও কারণ নেই।

দেখে নিন কীভাবে এই পরিস্থিতি সামাল দেবেন.…

এ বিষয় তাদের আরও শিক্ষা দিন
এক্ষেত্রে বাচ্চাকে বকবেন না। তাকে সংযম করতে শেখান। কারণ এই বিষয়টি একেবারে ব্যক্তিগত একটি বিষয়। তাই এটা সকলের সামনে প্রকাশ না করাই ভালো। তাই তার জন্য সংযম অত্যন্ত প্রয়োজনীয়।

হাইজিনের কথা মাথায় রাখতে বলুন
হাইজিনের কথা অবশ্যই মাথায় রাখবেন। হাইজিনকে গুরুত্ব না দিলে তার কী কী হতে পারে সেই কথা তাকে বলুন। হস্তমৈথুন করার আগে ও পরে কীভাবে পরিষ্কার হতে হবে তাকে সেই কথা বলুন।

তাদের কোনও বই দিতে পারেন
সন্তানকে এই বিষয় আরও শিক্ষা দিন। সে যাতে এ বিষয় সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারে তার জন্য কোনও বই দিতে পারেন। এর ফলে তার যদি এ বিষয় কোনও জিজ্ঞাসা থাকে তাহলে সেটা সে ওই বই থেকে জেনে নিতে পারবে।

এতে কী কী ক্ষতি হতে পারে তা নিয়ে কথা বলুন
বার বার হস্তমৈথুন করার ফলে কী কী ক্ষতি হতে পারে তাও বলে দিন বাচ্চাকে। হস্তমৈথুনরে মাধ্যমে যখন বাচ্চারা যৌন সুখ পেয়ে যায় তখন তারা বার বার সেই কাজটি করতে থাকে। বাড়ি ফাঁকা থাকলেই তারা এই কাজ করে। তাই তারা যাতে এই বিষয় অসাবধান না হয় তার জন্যই কী কী ক্ষতি হয় সেটা বলুন।

তুলনা করতে যাবেন না
অন্য বাচ্চাদের সঙ্গে নিজের সন্তানের তুলনা করবেন না। এটা খুব খারাপ জিনিস। এটা বাচ্চারা মোটেই পছন্দ করে না। তাই বাচ্চারা এই কাজ করলে তুলনা করবেন না। তাদের বোঝান। সরাসরি বারণ করতে যাবেন না। এতে হিতে বিপরীত হবে। এমনকী, এটা তাকে কখনও ভাবতে দেবেন না যে এটা খুব খারাপ কাজ। তাহলেই বাচ্চারা হিনমন্যতায় ভুগতে থাকবে, যার থেকে অপরাধ মূলক কাজ করতেও পিছপা হবে না তারা।

Advertisements