Advertisements
বিনোদন

রুবির সঙ্গে যোগাযোগ করছে পিবিআই

নায়ক সালমান শাহকে খুন করা হয়েছে’ দাবি করে অনলাইনে ভিডিওবার্তা প্রকাশ করা সেই নারীর সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনস (পিবিআই)।

পিবিআইয়ের বিশেষ এক পুলিশ কর্মকর্তা তথ্যটি জানিয়েছেন।

এর আগে সোমবার ‘সালমান শাহ আত্মহত্যা করেননি, তাকে খুন করা হয়েছে’ দাবি করে অনলাইনে ভিডিওটি প্রকাশ করেন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী রাবেয়া সুলতানা রুবি নামের এক নারী। যিনি সালমান শাহ’র রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার ৭ নম্বর আসামি।

এরপরই সেটি ভাইরাল হয়ে আলোচনায় আসেন তিনি।

সোমবার রুবির প্রকাশিত ভিডিওবার্তাটি ভাইরাল হওয়ার পরই তার দাবিকৃত তথ্যকে ‘গুরুত্বপূর্ণ’ উল্লেখ করে তার সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা শুরু করেছে মামলাটির তদন্তের দায়িত্বে থাকা তদন্ত সংস্থা পিবিআই।

পিবিআইয়ের ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘রুবি ছিলেন সালমান শাহ’র বিউটিশিয়ান। সম্প্রতি তার একটি ভিডিও অনলাইনে ভাইরাল হয়েছে। বিষয়টি আমাদেরও নজরে এসেছে। রুবির সঙ্গে আমরা যোগাযোগের চেষ্টা করছি। কিন্তু তিনি দেশে নেই। এ কারণে তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হচ্ছে না। তবে তিনি যে বিষয়টি উপস্থাপন করেছেন তা বিবেচনায় নিয়ে তদন্ত করে দেখা হবে।’

আদালত সূত্র জানায়, ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর রাজধানীর নিউ ইস্কাটন গার্ডেন এলাকায় সালমান শাহর ভাড়া বাসার ড্রেসিং রুম থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় তার দেহ নামানো হয় বলে পুলিশকে জানান তার স্ত্রী সামিরা। পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় সালমানের বাবা কমর উদ্দিন আহমেদ চৌধুরী বাদী হয়ে রমনা থানায় অপমৃত্যুর মামলা করেন। থানা পুলিশের তদন্তের পর তা ডিবির কাছে চলে যায়। তদন্ত শেষে ‘সালমানের মৃত্যু আত্মহত্যা’ মর্মে প্রতিবেদন দেয় ডিবি। বাদীপক্ষ ডিবির তদন্ত প্রতিবেদন গ্রহণ না করলে পরবর্তীতে তদন্ত চলে যায় সিআইডির কাছে। সিআইডিও একই প্রতিবেদন দেয়। পরে আদালতের আদেশে এ মামলার বিচার বিভাগীয় তদন্ত চলে দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে।

২০১৪ সালের ৯ জুলাই বিচার বিভাগীয় তদন্তে সালমান খুন হয়নি মর্মে বলা হয়। এ আদেশের বিরুদ্ধে নারাজি দেন সালমান শাহ’র মা নীলা চৌধুরী। এর শুনানি শেষে ২০১৫ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি র‌্যাবকে তদন্তের নির্দেশ দেন ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালত। কিন্তু ওই আদেশ স্থগিত চেয়ে ঢাকা মহানগরের প্রধান সরকারি কৌঁসুলি আবদুল্লাহ আবু ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতে রিভিশন মামলা করেন।

শুনানি শেষে গত বছরের ২৫ আগষ্ট র‌্যাবকে তদন্তের নির্দেশ বাতিল করেন ঢাকার ছয় নম্বর বিশেষ জজ আদালত। একইসঙ্গে আদালত বিচার বিভাগীয় প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে সালমান শাহ’র মায়ের নারাজি আবেদন পুনরায় শুনানি করতে ঢাকার সিএমএম আদালতকে নির্দেশ দেন।

বর্তমানে মামলাটি তদন্ত করছে পিবিআই।

Advertisements





সর্বশেষ খবর