slider আন্তর্জাতিক

যে ভয়ে জাতিসংঘের অধিবেশনে যোগ দিচ্ছেন না সু চি

‘স্থিতিশীল পৃথিবীতে মানুষের জন্য শান্তি আর মর্যাদাপূর্ণ জীবনের সংগ্রাম’কে উপজীব্য করে শুরু হচ্ছে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭২তম অধিবেশন। তবে আসন্ন জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিচ্ছেন না মিয়ানমারের ক্ষমতাসীন দলের নেত্রী অং সান সু চি।

মঙ্গলবার স্থানীয় সময় বিকাল সাড়ে ৩টায় (বাংলাদেশ সময় রাত দেড়টা) নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘের সদর দপ্তরে অধিবেশনের উদ্বোধন হবে। চলবে ২৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। সাধারণ বিতর্ক শুরু হবে ১৯ সেপ্টেম্বর।

সঙ্গত কারণেই এবারের অধিবেশনে শিক্ষা, পরিবেশ, সামাজিক উন্নয়ন, বাণিজ্য, লিঙ্গ, মানব উন্নয়ন, বিশ্বায়ন, তথ্য-প্রযুক্তি ও উদ্ভাবন, পানি ও পয়ঃনিষ্কাশনের মতো ইস্যুগুলো প্রাধান্য পাবে। এছাড়া আলোচনায় থাকবে জাতিসংঘের এজেন্ডা ২০৩০।

এবারের অধিবেশনে সভাপতিত্ব করবেন স্লোভেনিয়ার কূটনীতিক মিরোস্লাভ লাজক্যাক। এর আগে সোমবার জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনের সভাপতি হিসেবে তার শপথের মধ্য দিয়ে ৭১তম সাধারণ অধিবেশনের সমাপ্তি ঘটলো। মিরোস্লাভ ৭১তম অধিবেশনের সভাপতি পিটার থমসনের কাছ থেকে দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন। ৭২ তম অধিবেশনের বিভিন্ন আলোচ্য বিষয় নিয়ে বিস্তারিত তথ্য এরই মধ্যে প্রকাশ করেছে জাতিসংঘ।

অধিবেশনের সভাপতি মিরোস্লাভ লাজক্যাক সাধারণ পরিষদের আগামী এক বছরের জন্য ছয়টি বিষয়কে অগ্রাধিকার দেওয়ার কথা জানিয়েছেন। এগুলোর মধ্যে রয়েছে, সাধারণ মানুষের জীবনে পরিবর্তন সাধন, শান্তি বজায় রাখতে প্রতিরোধ ও মধ্যস্থতা, অভিবাসন, এসডিজি ও জলবায়ুর জন্য রাজনৈতিক পদক্ষেপ, মানবাধিকার ও সমতা, সব লিঙ্গের জন্য সমান সুযোগ সৃষ্টি এবং মানসম্পন্ন বিভিন্ন কর্মসূচি আয়োজন।

রোহিঙ্গা ইস্যু তুলে ধরবে বাংলাদেশ
মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর সেখানকার সেনাবাহিনীর নির্যাতন, হত্যা, তাদের বাড়িঘর জ্বালিয়ে দেওয়া এবং প্রাণ বাঁচাতে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়ায় সৃষ্ট সংকট সাধারণ অধিবেশনে তুলে ধরবে বাংলাদেশ। রোববার পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ঢাকায় এই তথ্য জানিয়েছেন।

অধিবেশনে যোগ দিতে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৬ সেপ্টেম্বর নিউ ইয়র্ক পৌঁছাবেন।

অন্যদিকে, তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোয়ানও জানিয়েছেন সাধারণ অধিবেশনে রোহিঙ্গা ইস্যু তিনি তুলে ধরবেন গুরুত্বের সঙ্গে।

জাতিসংঘ অধিবেশনে অংশ নিচ্ছেন না সু চি

আসন্ন জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিচ্ছেন না মিয়ানমারের ক্ষমতাসীন দলের নেত্রী অং সান সু চি। কারণ হিসেবে বলছেন দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে মনোযোগ দিতে সু চি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

মঙ্গলবার বার্মিজ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ইউ কিউ জেইয়া দেশটির সংবাদমাধ্যমগুলোকে এ খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে সু চি’র বদলে ভাইস প্রেসিডেন্ট ভান থিও মিয়ানমারের প্রতিনিধিত্ব করবেন।

তিনি বলেন, দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা নিশ্চিত করা জরুরি। লোকজন আতঙ্কের মধ্যে আছেন। এ সময়ে তার দেশে থাকা উচিত। সামগ্রিক বিষয়ে আরও মনোযোগ দিতে তিনি দেশেই থাকছেন।

জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশন প্রতি বছর বিশ্বের জন্য গুরুত্বপূর্ণ আয়োজন। এই অধিবেশনকে কেন্দ্র করে জাতিসংঘের ১৯৩টি সদস্য রাষ্ট্রের প্রধান, মন্ত্রী, কর্মকর্তা, একাডেমিশিয়ানদের মিলনস্থলে পরিণত হয় নিউ ইয়র্ক। এবারও এর ব্যতিক্রম ঘটবে না।