বিনোদন

যে তারকারা প্রথম স্ত্রী ঘরে থাকতেই দ্বিতীয় বার বিয়ে করেছেন

বলিউডের নামিদামী ব্যক্তিত্ব তারা। কেউ অভিনেতা, কেউ পরিচালক, আবার কেউ প্রযোজক। কিন্তু অভিনেতা, পরিচালক বা প্রযোজক যেই হন না কেন, তারকা খ্যাতির কিন্তু অন্ত নেই তাদের। কিন্তু বলিউডে এমন অনেকে রয়েছেন, যাদের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে ভক্তদের উৎসাহের অন্ত নেই। সে সঞ্জয় খান হোন কিংবা সেলিম খান।

বলিউডে এমন অনেকে রয়েছেন, যাদের প্রথম পক্ষের স্ত্রীর সঙ্গে বিচ্ছেদের আগেই দ্বিতীয় স্ত্রী ঘরে এনেছেন। অর্থাৎ, বিচ্ছেদের আগেই যারা আবার গাটছড়া বেঁধেছেন অন্য কারও সঙ্গে। তারা কারা জানেন?
সঞ্জয় খান- বলিউডের এই অভিনেতা ১৯৮০ সালে জিনাত আমানকে বিয়ে করেন। ওই সময় প্রথম স্ত্রী জারিন খানের সঙ্গে বিচ্ছেদ হয়নি তার। প্রথম স্ত্রী জারিন খানের সঙ্গে বিচ্ছেদের আগেই জিনাতকে বিয়ে করেন। কিন্তু সেই বিয়ে টেকেনি বেশিদিন। এক বছরের মধ্যেই জিনাত আমানের সঙ্গে বিচ্ছেদ হয়ে যায় সঞ্জয় খানের।
ধর্মেন্দ্র – তুম হাসিন ম্যায় জওয়ান ছবিতে অভিনয়ের সময় হেমা মালিনীর প্রেমে পড়েন ধর্মেন্দ্র। কিন্তু ওই সময় ধর্মেন্দ্রর প্রথম স্ত্রী প্রকাশ কাউরের সঙ্গে বিচ্ছেদ হয়নি। কিন্তু বিচ্ছেদের আগেই হেমার সঙ্গে গাটছড়া বাঁধেন ধর্মেন্দ্র। তবে হেমা মালিনীকে বিয়ের আগে ধর্মেন্দ্র প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে বিচ্ছেদ চাইলেও তিনি রাজি হননি। আর তারপরই হেমাকে বিয়ে করেন ধর্মেন্দ্র।
সেলিম খান – সালমা খানের সঙ্গে বিচ্ছেদ হয়নি তার। কিন্তু তার মধ্যেই বলিউডের এক তৎকালীন তারকা হেলেনকে বিয়ে করেন সেলিম খান। শুধু তাই নয়, সালমান, আরবাজ, সোহেল, আলভিরাকে নিয়ে যখন সেলিম খানের পরিবার একেবারে পরিপূর্ণ, তখন হেলেন দত্তক নেন অর্পিতাকে। ভারতের জিনিউজ পত্রিকার খবরে বলা হয়, দুই স্ত্রী এবং সন্তানদের নিয়ে সেলিম খান কিন্তু দিব্যি সংসার করছেন এখনও।
রাজ বব্বর – স্মিতা পাতিলের সঙ্গে অভিনয়ের সময়ই তার সঙ্গে সম্পর্কে জড়ান রাজ বব্বর। তাড়াতাড়ি রিল থেকে রিয়েল লাইফের জুটি হয়ে যান তারা। কিন্তু ওই সময় রাজ বব্বরের ঘরে তার প্রথম পক্ষের স্ত্রী নাদিরা জাহির। ওই সময় জুহি এবং আর্য, দুই সন্তানের বাবাও হয়ে গিয়েছেন রাজ বব্বর। কিন্তু তা সত্ত্বেও স্মিতা পাতিলের সঙ্গে সাতপাক ঘুরতে রাজি হয়ে যান রাজ বব্বর। ফলে ওই সময় বহু নারী সংগঠনের জোরদার সমালোচনার মুখে পড়েন স্মিতা পাতিল।