slider জাতীয় প্রবাসী খবর

যিনি শ্রমিক হিসেবে মালয়েশিয়ায় গিয়ে এখন ৬টি প্রতিষ্ঠানের মালিক

প্রবাস মানেই শ্রমিক এমন ধারণা থেকে ধীরে ধীরে বের হয়ে আসতে শুরু করেছেন বাংলাদেশিরা। নিজেদের শ্রম, মেধা আর সততায় গড়ে তুলছেন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। এতে যেমন কর্মসংস্থান তৈরি হচ্ছে বাংলাদেশিদের জন্য, সেই সাথে বাড়ছে রেমিট্যান্সও। এমনই একজন উদ্যোক্তা মালয়েশিয়ায় বসবসারত খুলনার আব্দুল হক। ২৬ বছরের প্রবাস জীবনে শূন্য থেকে গড়ে তুলেছেন বেশ কয়েকটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান।

প্রায় ৩ দশক আগে শূন্য হাতে প্রবাস জীবন শুরু আব্দুল হকের। সততা আর কঠোর শ্রমকে পুঁজি করে বর্তমানে ৬টি প্রতিষ্ঠানের মালিক তিনি। শুরুটা ছিলো ১৯৯৭ সালে ছোট পরিসরে গার্মেন্টস ব্যবসার মধ্যদিয়ে। এখন দেশটির পর্যটন শহর মালাক্কায় গড়ে তুলেছেন ‘কিরা হক গ্লোবাল মার্কেটিং‘ নামের একটি গ্রুপ অব কোম্পানী।

আব্দুল হক জানান, মালয়েশিয়ার বিভিন্ন স্থান থেকে মধু সংগ্রহ করে তার প্রতিষ্ঠান। এরপর বিভিন্ন বয়সী মানুষের জন্য নানা ফ্লেভারে এসব মধু বাজারজাত করে কিরা হক গ্লোবাল। তাদের উৎপাদিত পণ্যের মধ্যে রয়েছে কালোজিরা মধু, হানি ফর জেন্টস এন্ড লেডিস, হানি ফর চিল্ড্রেন ও হানি প্লাস ড্রিঙ্কস।

মধু দিয়ে তৈরি এসব খাদ্য দ্রব্য স্থানীয় বাজার গুলোর চাহিদা মিটিয়ে রফতানি করা হচ্ছে বিভিন্ন দেশে। আব্দুল হকের প্রতিষ্ঠানে কাজ করছেন অন্তত ৪০ জন শ্রমিক। যার বেশিরভাগই বাংলাদেশি।

আব্দুল হকের মতো এ রকম অনেক উদ্যোক্তা বাংলাদেশের নাম উজ্জ্বল করে যাচ্ছে সারা পৃথিবীতে কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে। সেই সাথে বাংলাদেশকে স্বাবলম্বী করতে রেমিট্যান্স পাঠিয়ে রেখে যাচ্ছে গুরুত্বপুর্ণ ভুমিকা।

ভবিষ্যতে বাংলাদেশেও এমন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান চালুর ইচ্ছা আব্দুল হকের।