বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

মাছ নিয়ে মজার মজার তথ্য

22সবচেয়ে বিচিত্র ও অনন্য মেরুদণ্ডী প্রাণী হল মাছ। পানিতে বাস করা এই প্রাণীরা অনেক চটুল ও চিত্তাকর্ষক। এরা বিভিন্ন আকার আকৃতির ও বিভিন্ন বর্ণের হয়। এদের কিছু প্রজাতি পোষা প্রাণী হিসেবে ঘরে রাখা হয় এবং সৌভাগ্যের প্রতীক হিসেবে বিবেচনা করা হয়। মাছ সম্পর্কিত কিছু অজানা তথ্য জেনে নেই চলুন।

 

● মাছ পৃথিবীর প্রাচীনতম ইনহিবিটর। মাছ পৃথিবীতে আছে ৪৫০ মিলিয়ন বছর পূর্ব থেকে। পৃথিবীতে যখন ডাইনোসর বিচরণ করতো তার বহু আগে থেকেই মাছের অস্তিত্ব ছিল।

 

● পৃথিবীতে মাছের ২৫০০০ প্রজাতি শনাক্ত করা হয়েছে। আরো ১৫০০০ প্রজাতি আছে যাদের এখনো শনাক্ত করা যায়নি।

 

● মাছের প্রজাতি মধ্যে ৪০ শতাংশ মিঠা পানিতে বাস করে।

 

● বেশিরভাগ লিপস্টিক তৈরিতে মাছের আঁশ ব্যবহার করা হয়।

 

● মাছের সমস্ত শরীরেই স্বাদ কুঁড়ি বা টেস্ট বাড থাকে। তাই এরা মুখ ব্যবহার করা ছাড়াও স্বাদ গ্রহণের ক্ষমতা রাখে।

 

● মাছেরা বিপরীত বর্ণবৈচিত্র্য যুক্ত। মাছকে পানির মধ্যে যেনো কম দেখা যায় এজন্যই এদের এই বৈশিষ্ট্য। এদের পৃষ্ঠ দিক গাঢ় বর্ণের হয়, পাশের দিক হালকা বা রুপালি বর্ণের হয় এবং পেটের দিক উজ্জ্বল হয়।

 

● উভচর, পাখি, সরিসৃপ ও স্তন্যপায়ীর চেয়ে বেশি প্রজাতি মাছের। আনুমানিক ৩২০০০ বিভিন্ন প্রকারের মাছ আছে।

 

● মাছেদের বিশেষায়িত অনুভূতি অঙ্গ আছে যাকে লেটেরাল লাইন বলে। এই অঙ্গটি রাডারের মত কাজ করে এবং অন্ধকার ও অস্পষ্ট পানিতেও সঠিক পথে যেতে সাহায্য করে।

 

● কিছু মাছ তাদের জীবনচক্রে লিঙ্গ পরিবর্তন করতে পারে।

 

● কিছু মাছকে অনবরত সাঁতার কাটতে হয়। হাঙ্গর ও কিছু মাছের বায়ুথলি নেই। এজন্য এরা অনবরত সাঁতার কাটে অথবা পানির তলদেশে বিশ্রাম নেয়।

 

● মাছের চমৎকার স্পর্শ অনুভূতি, স্বাদ অনুভূতি ও দৃষ্টিশক্তি আছে। আবার কিছু মাছের শোনা ও গন্ধ শোঁকারও অনুভূতি থাকে। স্তন্যপায়ী ও পাখিদের মতোই মাছেরাও ব্যথা ও স্ট্রেস অনুভব করে।

 

● এটা শুনে একটু আশ্চর্য হবেন যে মাছেরাও ডুবে মরতে পারে! যদি পানিতে পর্যাপ্ত অক্সিজেন দ্রবীভূত না থাকে তাহলে মাছ সত্যিই ডুবে মারা যেতে পারে।

 

● বিশেষ ধরনের মাছ পাফার ফিশে এমন পরিমাণে বিষ থাকে যার দ্বারা ৩০ জন মানুষের মৃত্যু হতে পারে। এই বিষ সায়ানাইডের চেয়ে ১২০০ গুণ বেশি শক্তিশালী।

ভিডিওঃ আমেরিকা থেকে ঘাড় ধরে বের করা হবে বাংলাদেশীদের!!- দেখুন কি বলছে বাংলাদেশীরা?….দেখুন ভিডিওতে

Add Comment

Click here to post a comment