Advertisements
আন্তর্জাতিক

‘ভাইরাস’ ঢুকেছে পাকিস্তানে

‘ভাইরাস’ ঢুকেছে পাকিস্তানে। পাকিস্তানে নির্বাচিত কোনো প্রধানমন্ত্রীকে তার মেয়াদ পূরণ করতে দিচ্ছে না এই ভাইরাস। এমন মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রীর পদ হারানো নওয়াজ শরীফ। রোববার তিনি পাঞ্জাব হাউজে রাওয়ালপিন্ডির অফিস বিয়ারার্স ও নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলেন। এ সময় পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজের (পিএমএলএন) প্রধান নওয়াজ শরীফ আক্ষেপ প্রকাশ করেন।

বলেন, একজন নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী গড়ে দেড় বছর ক্ষমতায় থেকেছেন। অন্যদিকে সামরিক স্বৈরশাসকরা গড়ে ৯ বছর করে ক্ষমতা ধরে রেখেছিলেন।

উল্লেখ্য, পানামা পেপারস কেলেঙ্কারিকে কেন্দ্র করে দুর্নীতির অভিযোগে গত ২৮ শে জুলাই তাকে অযোগ্য ঘোষণা করে পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্ট। এর মধ্য দিয়ে তিন বারে নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ ক্ষমতা হারান। তিনবারই প্রায় একই পরিণতি ঘটে তার। কখনো আদালত, কখনো সামরিক অভ্যুত্থানে ক্ষমতা হারিয়েছেন তিনি। তবে সর্বশেষ বার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে প্রায় মেয়াদ পূর্ণ করার কাছাকাছি পৌঁছে গিয়েছিলেন তিনি।

আর মাত্র একটি বছর বাকি ছিল তার। যদি এ সময়টা পাড় করতে পারতেন তাহলে পাকিস্তানের ইতিহাসে তিনি হতেন পূর্ণ মেয়াদ ক্ষমতায় থাকা প্রথম কোনো প্রধানমন্ত্রী। ইতিহাসের সে অধ্যায় তার চোখের সামনে দিয়ে ঝলকানি দিয়ে সরে গেছে। তিনি তাই এখন আক্ষেপ করেন। তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের বলেন, এখন দেশের বিভিন্ন সিস্টেমে যে ত্রুটি রয়েছে তা সনাক্ত করে দেশকে সঠিক পথে আনতে হবে।

ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন এমন সূত্র অনুযায়ী, সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী তার পরিবারের সদস্যদের জবাবদিহিতার জন্য বাছাই করা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেছেন, তার পিতার কোম্পানির পূর্ণাঙ্গ তদন্ত করা সত্ত্বেও তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির কোনো প্রমাণ পাওয়া যাবে না। আরও একবার তিনি বলেছেন, তার ছেলের কোম্পানি থেকে বেতন না নেয়ার কারণে তাকে অযোগ্য ঘোষণা করা হয়েছে। ওদিকে পিতার রোববারের এ মিটিংয়ের দুটি ভিডিও ক্লিপ টুইটে প্রকাশ করেছেন ক্ষমতাচ্যুত নওয়াজ শরীফের কন্যা মরিয়ম নওয়াজ। তাতে দেখা যায় পিএমএলএন নেতাকর্মীরা স্লোগান দিচ্ছেন- আমাদের নেতা নওয়াজ শরীফ। চোখ রাখ কে আসছে। আসছে সিংহ।

রোববারের এ মিটিংয়ে উপস্থিত ছিলেন সাবেক মন্ত্রী পারভেজ রশিদ, নব নির্বাচিত সিনেটর আসিফ কিরমানি, সিনেটর চৌধুরী তানভীর, উন্নয়ন বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ড. তারিক ফজল চৌধুরী। ক্ষমতা হারানোর পর নওয়াজ শরীফ ৩০ শে জুলাই প্রধানমন্ত্রীর জন্য নির্ধারিত বাড়ি ছেড়ে দিয়ে চলে যান মারি’তে পারিবারিক বাড়িতে। সেখান থেকে গত শনিবার তিনি আবার ফিরেছেন ইসলামাবাদে। বুধবার গ্রান্ড ট্রাঙ্ক রোড দিয়ে তার লাহোর যাওয়ার কথা রয়েছে।

Advertisements





সর্বশেষ খবর