বিনোদন

বিচ্ছেদ ও বাধা হতে পারে নি বলিউডের যে তারকারাদের বন্ধুত্বে

সম্পর্ক শুরু হয় বন্ধুত্ব থেকে। একই সিনেমায় কাজ করতে গিয়ে অভিনয়ের খাতিরে বোঝাপড়ার বিষয়টি যেন এমনিতেই চলে আসে। বিশেষ করে, রোমান্টিক সংলাপ বলা কিংবা ঘনিষ্ঠ দৃশ্যে অভিনয় করতে হলে তো নিজেদের মধ্যে এই জিনিসটির বেশি প্রয়োজন। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায়, সিনেমার পর্দায় ক্যামেরার সামনে প্রেমের অভিনয় করতে গিয়ে সত্যিই প্রেমে পড়ে যান অভিনেতা অভিনেত্রীরা। বলিউডে এমন জুটির সংখ্যা কম নয় কিন্তু! পর্দার প্রেম একসময় রূপ নেয় বাস্তবে। কিন্তু সিনেমার মত তো আর বাস্তবে সম্পর্কের শুভ পরিণতি হয় না! বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায়, এমন মধুর সম্পর্কে ভিলেন হিসেবে প্রবেশ করে অন্যান্য নায়ক নায়িকা, অথবা তাদের বাবা মা।

এমনকি সামাজিক প্রেক্ষাপটের কারণেও এমন প্রেমের সম্পর্ক ভেঙে যায়। তবে বলিউডের নায়ক নায়িকারা পর্দায় যেরকম কঠিন ব্যক্তিত্ব ও বিশেষ ক্ষমতার অধিকারী হন, তেমনি বাস্তবেও এমন রূপ দেখান নিজেদের বিচ্ছেদের পর। যেন কিছুই হয় নি এমন ভাব করে আলাদা আলাদা ঘুরে বেড়াতে শুরু করেন এক কালের ঘনিষ্ঠ প্রেমিক প্রেমিকারা। কদিন পর দেখা যায় সাবেক প্রেমিক প্রেমিকার সঙ্গে রুপালি জগতের খাতিরে আবারও একই সেলুলয়েডের ফিতায় বাধা পড়েন তারা। আর প্রেমের বিচ্ছেদ ভুলে তারা গড়ে তোলেন নতুন সম্পর্ক। আর এর নাম দেন ‘বন্ধুত্ব’।

১. সালমান খান-ক্যাটরিনা কাইফ

ক্যাটরিনা কাইফ এবং সালমান খানের প্রেম এবং পরবর্তীতে তাদের ছাড়াছাড়ির বিষয়টি কারো অজানা নয়। সকলেই জানেন, ২০০৩ সালে ‘বুম’ ছবির মাধ্যমে হিন্দি সিনেমায় অভিষেক করেন ক্যাট। কিন্তু এখানে রয়েছে সালমানেরই হাত। সালমানের মাধ্যমেই বলিউড ইন্ডাস্ট্রিতে পা রাখেন ক্যাটরিনা। প্রথম সিনেমায় ফ্লপ করলে সালমান তার ভাই সোহেল খানের প্রোডাকশনে কাস্ট করেন ক্যাটরিনাকে। ছবির নাম ‘ম্যায়নে প্যায়ার কিউ কিয়া’। এবারও নায়িকা ফ্লপ। তবুও এই নায়িকার কাছে ধরণা দিতে থাকেন বড় নির্মাতারাই। কারণ আবার সেই একই- সালমান খান। বিভিন্ন পার্টিতে ক্যাটরিনার হাত ধরে পৌঁছুতে শুরু করেন বলিউড ভাইজান। ‘যুবরাজ’ নামের একটি ছবিতে অভিনয়ের সময় মিডিয়াতে সালমান ক্যাটরিনার প্রেমের সম্পর্কের কথা ছড়িয়ে পরতে সময় লাগে নি।

ওদিকে বড় নামী নির্মাতাদের ছবিতে প্রথম সারির নায়কদের সাথে অভিনয়ের সুবাদে সাফল্য পেতে সময় লাগেনি ক্যাটের। একে একে বাড়তে থাকে তার হিট ছবির সংখ্যা, আর কমতে থাকে সালমানের সঙ্গে সখ্যতা। ‘আজব প্রেম কি গজব কাহানি’ ছবিতে ক্যাটের বিপরীতে ছিলেন রণবীর কাপুর। অভিনয় করতে গিয়ে একসঙ্গে ছুটি কাটাতে গিয়েছেন রণবীর-ক্যাটরিনা। ‘রাজনীতি’ ছবিতে আবারও রণবীরের সঙ্গে জুটি বাধেন ক্যাটরিনা। ভেঙে যায় ক্যাটের সঙ্গে সালমানের প্রেম। সম্পর্ক থেকে রোমান্স বিদায় নিলেও ‘বন্ধুত্ব’ নামক নতুন মোড়কে প্রকাশ্যে আসতে থাকেন সালমান-ক্যাট। অভিনয় করেন কবির খানের ‘এক থা টাইগার’ ছবিতে। একসঙ্গে ছবির প্রচারনায়ও অংশ নেন। এমনকি সালমানের ‘বিগ বস’ অনুষ্ঠানে নিজের ছবি ‘ফিতুর’এর প্রমোশন করতে আসেন ক্যাট। এছাড়াও বর্তমানে অভিনয় করছেন ‘টাইগার জিন্দা হ্যায়’ ছবির শুটিং। সকলের সামনে তারা প্রমাণ করেন, প্রেম নেই তাতে কি হয়েছে, বন্ধুত্ব তো আছে!

২. রণবীর কাপুর ও দীপিকা পাড়ুকোন

বন্ধু থেকে প্রেমে পড়া। তারপর ভাঙ্গন। আবারো সেই বন্ধুত্ব। এভাবেই নিজেদের  ভাসিয়ে নিচ্ছেন বলিউড ইন্ডাস্ট্রির একসময়ের রোমান্টিক জুটি দীপিকা পাডুকোন ও রণবীর কাপুর। ২০০৮ সালে ‘বাচনা এয় হাসিনো’ ছবিতে একসঙ্গে কাজের সুবাদে বন্ধুত্ব তাদের। সম্পর্ক প্রেমের দিকে গড়াতে সময় লাগেনি। এরপর বিভিন্ন অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে একসঙ্গে উপস্থিত হতে শুরু করেন তারা। সঙ্গে থাকতেন রণবীরের বাবা মা ঋষি কাপুর ও নীতু সিং। কয়েক বছর চুটিয়ে প্রেম করলেও ক্যাটরিনার আবির্ভাবে দীপিকাকে ভুলে যান রণবীর। শুরু হয় দীপিকার একলা পথ চলা। এই বিচ্ছেদ কাজে লাগান বলিউড নির্মাতা করণ জোহর। প্রাক্তন প্রেমিক জুটি নিয়ে সিনেমা বানানোর এক্সপেরিমেন্ট করতে চাইলেন তিনি। সফলও হলেন তিনি। ছবির নাম ‘ইয়ে জাওয়ানি হ্যায় দিওয়ানি’। পুরনো জুটিকে ফিরে পেয়ে দর্শক হুমড়ি খেয়ে পড়ল প্রেক্ষাগৃহে। ওদিকে নিজেদের বিবাদ ভুলে মন প্রাণ ঢেলে সিনেমায় অভিনয় করলেন রণবীর ও দীপিকা। এবার আর প্রেম নয়, নতুন সম্পর্কের নাম দিলেন ‘বন্ধুত্ব’। সেই বন্ধুত্ব থেকে আবারও পর্দায় জুটি বাঁধেন তারা। এবারের ছবির নাম ‘তামাশা’। তবে ইমতিয়াজ আলীর এই ছবিটি তেমন দর্শক প্রিয়তা পায়নি। কিন্তু সফল ছিল রণবীর-দীপিকার রসায়ন।

৩. রণবীর সিং ও আনুশকা শর্মা

তাদের সম্পর্কের শুরু ২০১০ সাল থেকে। আদিত্য চোপড়ার যশরাজের ব্যানারে ইন্ডাস্ট্রিতে পা রাখেন রণবীর সিং। ছবির নাম ‘ব্যান্ড বাজা বারাত’। বিপরীতে অভিনয় করলেন ‘রব নে বানা দি জোড়ি’ খ্যাত আনুশকা শর্মা। সিনেমায় ঘনিষ্ঠ দৃশ্যে অভিনয় করতে গিয়ে সত্যিই ঘনিষ্ঠ হয়ে গেলেন রণবীর-আনুশকা। তাদের সম্পর্কের চমৎকার রসায়ন চোখ এড়ায় নি দর্শকের। ফলাফল ছবি সুপার হিট। অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে একসঙ্গে উপস্থাপনা  ও পারফর্ম করেন রণবীর-আনুশকা। আলোচিত হয় তাদের জুটি। সেই জেরে আবারও সিনেমায় জুটি বাঁধলেন তারা। ‘লেডিজ ভার্সেস রিকি ভেল’ শিরোনামের এবারের ছবিটিও সফল। কিন্তু রণবীরের মন টিকলো না আনুশকায়। ‘লুটেরা’ ছবিতে অভিনয় করতে গিয়ে সহ অভিনেত্রী সোনাক্ষী সিনহার প্রেমে পড়ে যান তিনি। ওদিকে আনুশকাও খুঁজে নেন তার সঙ্গী। তিনি মন দেন ভারতীয় জাতীয় দলের ক্রিকেটার বিরাট কোহলিকে। বিরাট-আনুশকার প্রেম সফল ভাবে চলতে শুরু করলেও ভেঙে যায় রণবীর-সোনাক্ষীর সম্পর্ক। কিন্তু ততদিনে তিক্ততার জন্ম নেয় নি রণবীর-আনুশকা সম্পর্কে। এখনও দেখা হলে একে অপরকে এড়িয়ে যান না। বরং একে অপরের সঙ্গে বন্ধু সুলভ আচরণ করেন। কদিন আগে আনুশকার মুক্তি পাওয়া ‘সুলতান’ ছবির প্রোমোশন করেন রণবীর। প্যারিসের থিয়েটারে ‘সুলতান’ গানের তালে নাচেন তিনি। ওদিকে আনুশকাও হাসিমুখে রণবীরের এমন পারফরমেন্সের মন্তব্য করেন। বর্তমানে রণবীর সিং দীপিকা পাড়ুকোনের প্রেমে মজে আছেন।

৪. আদিত্য রয় কাপুর ও শ্রদ্ধা কাপুর

২০১৩ সালের হিন্দি সিনেমার সেরা মিউজিক্যাল হিট ‘আশিকি ২’ ছবিতে অভিনয়ের মাধ্যমে একে অপরের কাছে আসেন শ্রদ্ধা কাপুর এবং আদিত্য রায় কাপুর। বেশ কিছুদিন তাদেরকে প্রেম করতে দেখা গেলেও সম্পর্ক ছিন্ন করেন এই জুটি। ‘আশিকি ২’ ছবিটি আদিত্য-শ্রদ্ধার জন্য প্রথম বড় সিনেমা ছিল। দুজনেই তখনও সাফল্যের মুখ দেখেননি। ছবিটি করার সময়েই দুজনের বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। কিন্তু ক্যারিয়ারের কারণেই দুই তারকার মধ্যে সমস্যা লেগেই থাকত। এবং এই কারণেই তাদের প্রেমের সম্পর্ক ক্রমশ খারাপের দিকে যায়। পরিশেষে প্রেমের সম্পর্কে ইতি টানেন আদিত্য-শ্রদ্ধা। তবে প্রেম না থাকলেও বন্ধুত্ব নামক নতুন সম্পর্ক তৈরি করে আবারও পর্দায় জুটি বেঁধেছেন তারা। করণ জোহরের ধর্ম প্রোডাকশন থেকে সাদ আলির পরিচালনায় ‘ওকে জানু’ ছবিতে দ্বিতীয়বারের মতো জুটিবদ্ধ হন তারা। এই ছবিতে বেশ কয়েকটি ঘনিষ্ঠ দৃশ্যে অভিনয় করেছেন আদিত্য-শ্রদ্ধার। তবে বন্ধু নামক সম্পর্ক তৈরি হওয়ায় সিনেমাটিতে কাজ করতে তেমন অসুবিধা হয়নি তাদের।

৫. বরুণ ধাওয়ান ও আলিয়া ভাট

অভিনয় করতে এসে প্রণয়ে জড়িয়ে পড়া বলিউডপাড়ায় নতুন কিছু নয়। আলিয়া ভাট আর বরুণ ধাওয়ান এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম নয়। ২০১২ সালে করণ জোহর পরিচালিত রোমান্টিক কমেডি সিনেমা ‘স্টুডেন্ট অব দ্য ইয়ার’-এ অভিনয়ের মধ্য দিয়ে বলিউডে অভিষেক ঘটে আলিয়া ভাট ও বরুণ ধাওয়ানের। সিনেমায় কাজ করতে গিয়েই নাকি প্রেমের সম্পর্কে জড়ান তারা। গত বছর যখন আলিয়া ও বরুণ অভিনীত ‘হাম্পটি শর্মা কি দুলহানিয়া’ মুক্তি পায়, তখন প্রেমের আকাশে রীতিমতো ডানা মেলে উড়ছেন দুজনে। যদিও এ সম্পর্ক বন্ধুত্বের মধ্যেই সীমাবদ্ধ বলে মিডিয়ার কাছে বরাবরই বলে আসছিলেন তারা। যা-ই হোক, বছর ঘুরতে না ঘুরতেই, নতুন দিকে মোড় নেয় এ সম্পর্ক। বরুণ ফিরে যান সাবেক প্রেমিকা নাতাশার কাছে। বাধ্য হয়েই রাস্তা ছেড়ে দিতে হয় আলিয়াকে। কাজেই আর বলার অপেক্ষা রাখে না সম্পর্কের ইতি টানতে হয়েছে দুজনকে। তবে আলিয়াও একা হয়ে যান নি। পেয়েছেন প্রাক্তন সহ অভিনেতা সিদ্ধার্থ মালহোত্রাকে। নতুন প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়েছেন দুজন। তাদের প্রেম এখন বলিউডের ওপেন সিক্রেট। তবে অভিনয়ের খাতিরে বরুণের সঙ্গেও কাজ করছেন আলিয়া। ‘হাম্পটি শর্মা কি দুলহানিয়া’ ছবির সাফল্যের পর আবারও জুটি বাধেন ‘বাদ্রিনাথ কি দুলহানিয়া’য়। আর এতকিছু সম্ভব হচ্ছে ‘বন্ধু’ নামক সম্পর্কটির জন্য।

৬. কারিনা কাপুর ও শহীদ কাপুর

‘জাব উই মেট’ সিনেমায় তাদের রসায়ন দেখে মুগ্ধ ছিল দর্শক। পর্দার বাইরেও তাদেরকে একসাথে দেখা গেছে প্রেমিক প্রেমিকা রূপে। কিন্তু একটা সময়ে সম্পর্ক আর বেশিদূর আগায়নি। বিচ্ছেদের অনেক বছর পর্যন্ত একে অপরের ছায়াও মাড়াননি কারিনা-শহীদ। তবে দুজনই নিজেদের বিবাহিত জীবনে সুখিই আছেন বর্তমানে। সম্প্রতি শহীদ এবং তার স্ত্রী মীরা কন্যা সন্তানের মুখ দেখেছেন। এদিকে কারিনাও এখন তৈমুরের মা। পুরনো তিক্ততা ভুলে শহীদকে অভিনন্দন জানিয়েছেন কারিনা। সাইফ আলি খান এবং শহীদ কাপুর দুজন একসাথে ‘রেঙ্গুন’ সিনেমায় অভিনয় করছেন বলেই এটা সম্ভব হয়েছে। কারিনার সাথে ‘উড়তা পাঞ্জাব’ সিনেমাতে কাজ করা শহীদ ভবিষ্যতে একসাথে আরও কাজ করার ইচ্ছা প্রকাশ করেন।

৭. সালমান খান ও সঙ্গীতা বিজলানি

নব্বইয়ের এর দশকে তাদের প্রেমকাহিনী নিয়ে কম মাতামাতি হয়নি। এমনকি দুজন বিয়ের সিদ্ধান্তও নিয়েছিলেন। মন্ডপ তৈরি ছিল, ছাপা হয়েছিল বিয়ের কার্ডও! কিন্তু শেষ মুহূর্তে সঙ্গীতা বিয়ের সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসেন। তার অভিযোগ ছিল, সালমান তার সঙ্গে প্রতারণা করে পুরনো প্রেমিকা সোমি আলির সাথে সম্পর্ক রেখেছিলেন! এরপর দুজনের জীবন আলাদা দিকে প্রবাহিত হয়েছে। সঙ্গীতা বিয়ে করেছিলেন ক্রিকেটার আজহারউদ্দিনকে। তবে আজহারের সঙ্গে বিচ্ছেদের পর আবারও সালমান-এর সাথে বন্ধুত্ব গড়ে তোলেন সঙ্গীতা।

৮. ডিনো মারিয়া ও বিপাশা বসু

মডেলিংয়ের দিনগুলো থেকেই তাদের পরিচয়। ‘রাজ’ সিনেমার পরে পরিচয় গড়ায় প্রণয়ে। কিন্তু জন আব্রাহাম-এর সঙ্গে বিপাশার ঘনিষ্ঠতা বাড়ার সাথে সাথেই তাদের বিচ্ছেদ ঘটে। এরপর গড়িয়েছে অনেক সময়। জনের সঙ্গে একই ছাদের নিচে ১১ বছর থেকেও সেই সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে আসেন বিপাশা। পরে সম্পর্কে জড়িয়েছেন আরও অনেকের সঙ্গেই। কিন্তু এরপরেও তাদের বন্ধুত্বে ফাটল ধরেনি। করণ সিং গ্রোভারের সঙ্গে জমকাল আয়োজনে বিয়ের পিড়িতে বসেন বিপাশা। মজার ব্যাপার হল, সেই বিয়ের ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে ছিলেন ডিনো ও তার বর্তমান প্রেমিকা। এমনকী সংবর্ধনায় নবদম্পতিকে শুভেচ্ছা জানাতে হাজিরও ছিলেন ডিনো।

৯. অক্ষয় কুমার ও শিল্পা শেঠি

‘ম্যায় খিলাড়ি তু আনারি’ সিনেমায় আকশায়-শিল্পা জুটির কথা আজও ভুলতে পারেনি দর্শক। তাদের পর্দার রসায়ন বাস্তব জীবনেও দেখা যাচ্ছিল। কিন্তু যখন শিল্পা জানতে পারলেন অক্ষয় টুইংকেল খান্নার সাথে প্রেমে মজে গেছেন তখনই তিনি নিজের রাস্তা আলাদা করে নেন। এই বিচ্ছেদের পর শিল্পার পক্ষ থেকে অনেক কাদা ছোড়াছুড়ি হলেও অক্ষয় চুপ থেকেছেন। দীর্ঘ সময় পর ২০০৮ সালের বিগ বস ফাইনালে তাদের দেখা হয়। তখন পুরনো দিনের তিক্ততা ভুলে আলিঙ্গন করেন দুজন। এরপর দুজনের বন্ধুতা গাঢ়ই হয়েছে।

১০. রণবীর কাপুর ও ক্যাটরিনা কাইফ

প্রেম ভেঙে গেলে তা জোড়া লাগে না। লাগেনি বলিউড তারকা জুটি রণবীর কাপুর ও কাটরিনা কাইফেরও। গত বছর জানুয়ারিতে সম্পর্ক ছিন্ন করার পর কেউ কারো মুখ পর্যন্তও দেখতে রাজি ছিলেন না। দুজন দুজনের কাছ থেকে এতটাই দূরে সরে গিয়েছিলেন, একে অপরকে সহ্যও করতে পারতেন না। শুধু তাই নয়, রণবীর ও কাটরিনার উভয়ের ঘনিষ্ঠ বন্ধুদের আয়োজিত অনুষ্ঠানগুলোতে দুজনের কেউ একজনকে দেখা যেত না। এভাবেই চলে আসছে গত দেড় বছরের এই ভাঙা সম্পর্কটি। তবে সেটা এবার নতুন মোড় নিয়েছে। যে রণবীরকে সহ্য করতে পারতেন না তাকেই কিনা এখন সবচেয়ে ভালো বন্ধু বলে দাবি করছেন কাটারিনা। তবে বিস্ময়কর হলেও এটাই সত্যি। প্রেমিক হয়ে গেলেন বেস্ট ফ্রেন্ড। টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক সাক্ষাৎকারে এমনটাই জানিয়েছেন কাটরিনা। তিনি বলেন, রণবীর প্রথমবার প্রযোজনা করেছেন। তবে ভালো প্রযোজক হতে না পারলেও সে আমার বেস্ট ফ্রেন্ড। এটা নিঃসন্দেহে বলতেই পারি।

১১. অনুরাগ কশ্যপ ও কাল্কি কোয়েচলিন

‘দেব ডি’ ছবির মাধ্যমে তাদের পরিচয়। এরপরই বিয়ে করে নেন কাল্কি ও অনুরাগ। কিন্তু তিন বছরের মাথায় বিচ্ছেদ করেন তারা। তারপরেও একে অপরের সঙ্গে ঠিকই যোগাযোগ রেখেছেন। শুধু তাই নয়, দেখা হলে একে অপরকে আলিঙ্গন করতে ভোলেন না তারা।

১২. ফ্রিদা পিন্টো ও দেব পাটেল

‘স্লামডগ মিলিওনিয়ার’ ছবিতে একসঙ্গে অভিনয় করেন দুজন। শোনা যায়, তারা তখন কয়েকবছর প্রেমের সম্পর্কে ছিলেন। কিন্তু অবশেষে দুজনের বিচ্ছেদ হয়। কিন্তু দেব জানিয়েছেন, তাদের মধ্যে এখনও বন্ধুত্ব অটুট রয়েছে।

১৩. ডিম্পল কাপাডিয়া ও ঋষি কাপুর

অতীতে দুজনের মধ্যে গভীর প্রেম ছিল। একসঙ্গে অনেক ছবিতে অভিনয়ও করেন। কিন্তু এরপর দুজন দুদিকে সরে দাঁড়ান। ডিম্পল বিয়ে করেন রাজেশ খান্নাকে। ওদিকে ঋষি কাপুর নীতু সিংকে বিয়ে করে সুখেই আছেন।

১৪. অমৃতা সিং ও সাইফ আলি খান

২০০৪ সালে তারা বিবাহ ইচ্ছেদ করেন। তাদের সংসারে দুই সন্তান থাকা স্বত্বেও এক ছাদের নিচে তারা বাস করা বন্ধ করে দেন। এরপর সাইফ বিয়ে করেন কারিনাকে। শোনা যায়, সন্তানদের সুবাদে এখনও অপ্রাক্তন স্ত্রীর সঙ্গে যোগাযোগ অব্যাহত রেখেছেন সাইফ।

১৫. শহীদ কাপুর ও প্রিয়াঙ্কা চোপড়া

একসঙ্গে কয়েকটি ছবিতে অভিনয় করেন শহীদ ও প্রিয়াঙ্কা। সেসময় দুজনের মধ্যে গড়ে ওঠে প্রেমের সম্পর্ক। কিন্তু একসময় দুজনের সম্পর্কে চলে আসে তিক্ততা। কিন্তু পেশাদারিত্বের খাতিরে বিচ্ছেদের পর একসময় আবারও জুটি বেঁধে অভিনয় করেন তারা। আর সম্পর্কের নাম দেন বন্ধুত্ব।

১৬. প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ও হারমান বাওয়েজা

এই সম্পর্কের স্থায়িত্ব বেশ স্বল্প। তবুও দুজনের রোমান্সের কমতি ছিলো না সম্পর্কে। কিন্তু একসময় প্রেম গড়ায় বিচ্ছেদে। বন্ধুত্ব রেখেছিলেন তারাও। তবুও অজানা কারণে দুজনের মধ্যে বর্তমানে তিক্ততা বিরাজ করছে।

১৭. হৃতিক রোশন ও সুজান খান

ক্যারিয়ারের শুরুতেই হৃতিক বিয়ে করে নেন বাল্যবন্ধু সুজানকে। দুই পুত্রসন্তান জন্মের পর দাম্পত্যে তিক্ততা শুরু হয়। দুজনের সিদ্ধান্তে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। কিন্তু না। আলাদা থাকলেও সম্পর্কে বন্ধুত্ব নামক বিশেষ ব্যাপার দুজনেই সমান তালে বয়ে বেড়াচ্ছেন। আজও কোন পার্টিতে দুজনকে হাসিমুখে ছবি তুলতে দেখা যায়।

সূত্র: দেশি মার্টিনি