অন্যরকম খবর আন্তর্জাতিক

‘বাবা, আমাকে আর স্কুলে পাঠাইও না,’ ভারতীয় ছাত্রীর কেন এই করুণ আর্তি!

সিব্বীর ওসমানীঃ স্কুলের এক স্টাফ প্রিয়াঙ্কাকে শাস্তি স্বরূপ ছেলেদের বাথরুমে দাঁড় করিয়ে রেখেছিল। এই অবস্থায় সে সেখানে দাঁড়িয়ে থাকতে বাধ্য হয়েছিল বেশ কিছুক্ষন। হায়দারাবাদ শহরের নিকটবর্তী ভেল রামচন্দ্রপুরামের কাছে রাও’স হাই স্কুলে এই ঘটনাটি ঘটে।

ভারতের ১১ বছর বয়সী স্কুল ছাত্রী ‘পিয়াঙ্কা’র বাবা স্কুলের প্রিন্সিপালের কাছে একটি লিখিত অভিযোগপত্রে জানিয়েছেন যে, তার মেয়ে মানসিক নির্যাতনের শিকার হয়ে স্কুলে যাওয়ার আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছে। তিনি বলেন, ‘সেদিন রাতে মেয়েকে কাঁদতে দেখে কারণ জিজ্ঞাসা করলে, প্রিয়াঙ্কা এই ঘটনার কথা জানায়। সে কাঁদতে কাঁদতে বলে, বাবা, আমি রান্নাসহ গৃহস্থালীর সব কাজ শিখে নেব, তবু আমাকে আর স্কুলে পাঠাইও না।’

প্রিয়াঙ্কার বাবা জানান, মেয়ের এই করুন ভাষা আমি কোনোভাবে হজম করতে পারিনি। আমি অনুধাবন করতে পেরেছি সে কতখানি মানসিক আঘাত পেয়েছিল। এই ঘটনায় তার নারী স্বত্তার উপরও চরম প্রভাব ফেলেছে।

প্রিয়াঙ্কার বাবার অভিযোগের একটি কপি বালালা হাক্কুলা সংঘের শিশু অধিকার সংস্থায় প্রেরণ করা হয়। সংঘের সভাপতি আচিওটা রাও বলেন, শিশু ছাত্রীটির উপর এই নিপীড়ন অত্যন্ত অমানবিক। এটা অবশ্যই একটি মারাত্বক অপরাধ। ঘটনার সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের শাস্তি নিশ্চিত করার জন্য এবিষয়ে আমরা পুলিশের কাছে একটি মামলা দায়ের করব। এছাড়া মানবাধিকার কমিশনের কাছেও আমরা অভিযোগ দায়ের করব।

তিনি আরও বলেন, স্কুলের নন টিচিং স্টাফের দ্বারা সংঘঠিত এটা এমন একটা ঘটনা, যেটার প্রতিকারমূলক ব্যবস্থা সঠিকভাবে নিতে না পারলে ছাত্রীরা মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়বে। আর শিক্ষা ব্যবস্থায়ও নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। এই ধরণের ঘটনা যেন আর না ঘটে সে বিষয়ে সার্বিক ব্যবস্থা আমাদের গ্রহণ করতে হবে।

সূত্র: ডেকান ক্রনিকল