Advertisements
slider আন্তর্জাতিক

‘বসিরহাটে অস্থিরতার পিছনে বিদেশি শক্তির হাত রয়েছে’

পশ্চিমবঙ্গের উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার বসিরহাট, বাদুড়িয়ায় অস্থিরতা তৈরির পিছনে বিদেশি শক্তির হাত রয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন রাজ্যটির মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। শনিবার রাজ্য সরকারের সচিবালয় নবান্ন থেকে সংবাদ সম্মেলন করে এই অভিযোগ করেন মমতা।

মমতা ব্যানার্জি বলেন, ‘হঠাৎ করেই বাংলাদেশের সীমান্ত খুলে গেল। সীমান্ত কার হাতে? আমাদের হাতে নয়, এটা কেন্দ্রের হাতে। কি করে ওপার থেকে লোক এসে এপারে দাঙ্গা করে চলে গেল। এটা কি পরিকল্পনা ছাড়া হতে পারে?

উল্লেখ্য ফেসবুকে একটি আপত্তিকর পোস্টকে কেন্দ্র করে গত রবিবার থেকেই জেলার বাদুড়িয়া, বসিরহাট, স্বরূপনগরসহ বিস্তীর্ণ এলাকা জুড়ে গোষ্ঠি সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে। রাস্তা, রেল অবরোধ থেকে শুরু করে দোকান-বাড়িতে অগ্নিসংযোগ ঘটনানো, সরকারি সম্পত্তি নষ্ট করার অভিযোগ উঠেছে। গোষ্ঠি সংঘর্ষে কার্তিক ঘোষ (৬১) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যুও হয়। ওই ঘটনার পরই মুখ্যমন্ত্রীর এই মন্তব্য করেন।

মমতা বলেন, ‘একটা স্থানীয় ঘটনাকে নিয়ে বাংলাদেশের কুমিল্লার ভিডিও ক্লিপিং দিয়ে দেয়া হচ্ছে এবং বিরোধী দলের লোকেরা তাদের পার্টি অফিস করছে…এর মানে কি? কুমিল্লার ভিডিও রেকর্ডিং দিয়ে বাংলার নামে বলা হচ্ছে। একটা ভোজপুরী সিনেমার একটা অংশ নিয়ে দেখানো হচ্ছে এটা পশ্চিমবঙ্গে হচ্ছে। যেটা আদৌ বাংলার সঙ্গে সম্পর্কিত নয়’। বসিরহাট ও বাদুরিড়য়ার ঘটনাতে বিচার বিভাগীয় তদন্ত করা হবে বলেও এদিন জানান তিনি।

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা দেখতে চাই কোন কোন শক্তি এতে সাহায্য দিয়েছে। কারা পরিকল্পনা করে প্রতিনিয়ত গুজব ছড়িয়েছে। কারা বাংলাদেশের কুমিল্লার ভিডিও ক্লিপিং নিয়ে পশ্চিমবঙ্গের ক্লিপিং হিসাবে দেখিয়েছে। বিচার বিভাগীয় কমিশন নিরপেক্ষভাবে তদন্ত করে দেখুক। কারা কারা এর পরিকল্পনা করেছে’। যারা এই কাজ করে থাকুক না কেন তাদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়া হবে বলেও হুঁশিয়ারি দেন মুখ্যমন্ত্রী।

গত এক মাস ধরে দার্জিলিংয়ে ‘অস্থিরতা তৈরির জন্য বিদেশি শক্তি ও কেন্দ্র সরকারের বিরুদ্ধে অসহযোগিতার অভিযোগ তোলেন মমতা। দার্জিলিংয়ে ঠিক সময়ে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করা হলে পরিস্থিতি এতটা খারাপ হতো না বলেও তাঁর অভিমত।

মুখ্যমন্ত্রী আরো বলেন, ‘কেন্দ্রীয় সরকার রাজ্যের সঙ্গে অসহযোগিতা করছে এবং কিছু কেন্দ্রীয় সংস্থা এখানে হস্তক্ষেপ করছে। দার্জিলিংয়ের ঘটনাটি পূর্ব পরিকল্পিত। এর পিছনে কিছু বিদেশি শক্তিরও হাত রয়েছে। যাদের সঙ্গে বিজেপির খুব ভাল সম্পর্ক রয়েছে’।

তিনি বলেন, ‘পশ্চিমবঙ্গ খুবই সংবেদনশীল রাজ্য। এর সঙ্গে বাংলাদেশের সঙ্গে সীমান্ত রয়েছে, ভুটান, নেপালের সীমান্ত রয়েছে আবার সিকিমের সঙ্গে চীনের সীমান্ত রয়েছে। পশ্চিমবঙ্গ ও সীমান্তগুলোকে অশান্ত করে একটা চক্রান্ত করার আগে কেন্দ্র সরকারের বোঝা উচিত…’। কালীদাস যে ডালে বসেছিলেন সেই ডালটাই কাটছিলেন। কেন্দ্রও অনেকটা সেরকম কাজ করছে।

Advertisements