Default

বরিশালকে হারিয়ে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষ খুলনা

12বরিশাল বুলসকে ২২ রানে হারালো খুলনা টাইটানস। ১৯ ওভার ৩ বলে সব কয়টি উইকেট হারিয়ে ১২৯ রান করে বরিশাল। ফলে ২২ রানের জয় পায় খুলনা। এ জয়ে খুলনা এখন পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে। ৬ ম্যাচে তাদের পয়েন্ট ১০। সমান ম্যাচে ৬ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের চার নম্বরে রইলো মুশফিকের বরিশাল।

খুলনার পক্ষে সর্বোচ্চ ৪ উইকেট নেন শফিউল ইসলাম। এছাড়াও মোহাম্মদ শরীফ ২টি, জুনায়েদ খান ২টি, মাহামুদুল্লাহ ১টি ও কাপুর ১টি উইকেট নেন। এদিকে বরিশালের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩৫ রান করেন অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম।

রবিবার সন্ধ্যায় দিনের একমাত্র ম্যাচে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নামে খুলনা। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেটের বিনিময়ে ১৫১ রান করে তারা।

দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪৪ রান করেন অধিনায়ক মাহামুদুল্লাহ। এছাড়াও ওয়েসেলস ৪০, আন্দ্রে ফ্লেচার ৪, হাসানুজ্জামান ১৯, শুভাগত হোম ০, আরিফুল হক ২৬(অপরাজিত), কাপুর ১, তাইবুর রহমান ১০ করেন।

বল হাতে বরিশালের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩ উইকেট নেন তাইজুল ইসলাম। এছাড়াও রায়াদ এমিরিত, রুম্মন ও পেরেরা ১টি করে উইকেট নেন।

খুলনা টাইটানসের ছুঁড়ে দেয়া ১৫২ রানের লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই উইকেট হারায় মুশফিকুর রহিমের বরিশাল বুলস। দ্বিতীয় ওভারের দ্বিতীয় বলে ওপেনার ফজলে মাহমুদকে (০) এলবিডব্লুর ফাঁদে ফেলেন পাকিস্তানি পেসার জুনায়েদ খান। ইনিংসের চতুর্থ ওভারের শেষ বলে বিদায় নেন জিভান মেন্ডিস। শফিউল ইসলামের বলে কেভিন কুপারের হাতে ধরা পড়ার আগে তিনি ১৬ বলে চারটি বাউন্ডারিতে করেন ২১ রান।

ইনিংসের দশম ওভারে বিদায় নেন শামসুর রহমান শুভ। মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের করা ওভারে জুনায়েদ খানের তালুবন্দি হওয়ার আগে শুভর ব্যাট থেকে আসে ১২ রান। দলীয় ৪৫ রানের মাথায় তৃতীয় উইকেট হারায় বরিশাল। এরপর জুটি গড়েন শাহরিয়ার নাফিস এবং মুশফিকুর রহিম। এই জুটি থেকে আসে ৪৩ রান। ইনিংসের ১৫তম ওভারে মোশাররফ রুবেলের বল তুলে মারতে গিয়ে শুভাগত হোমের তালুবন্দি হন নাফিস। বিদায়ের আগে তিনি ৩৫ বলে দুটি চারের সাহায্যে করেন ২৮ রান। একই ওভারে থিসারা পেরেরাকেও ফেরান মোশাররফ। দলীয় ৯১ রানেই পাঁচ উইকেট হারায় বরিশাল।

ইনিংসের ১৬তম ওভারে বিদায় নেন মুশফিক। শফিউলের বলে আরিফুল হকের তালুবন্দি হন মুশফিক। বরিশাল দলপতি আউট হওয়ার আগে করেন ৩৫ রান। তার ২৩ বলের ইনিংসে ছিল চারটি বাউন্ডারি। ১৮তম ওভারে নাদিফ চৌধুরিকে ফেরান কেভিন কুপার। ১৯তম ওভারে ফেরেন ১০ বলে ১৪ রান করা রায়াদ এমরিত। শেষ ওভারে শফিউল বোল্ড করেন রুম্মনকে আর তাইজুলকেও ফেরান তিনি। ১৯.৩ ওভারে বরিশালের ইনিংস থামে ১২৯ রানে।

Add Comment

Click here to post a comment