অন্যরকম খবর

বন্ধুর সেবায় চাকরি ছাড়লেন বন্ধু!

আহত বন্ধুকে সেবা করার জন্য নিজের চাকরিই ছেড়ে দিয়েছেন টিম মুররে নামের এক ব্যক্তি।

বন্ধুত্বের এ মহিমা দেখিয়ে ইংল্যান্ডের ওই ব্যক্তি বিশ্বগণমাধ্যমের নজর কেড়েছেন।

এক মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হন টিম মুররের বন্ধু জন টুইনবেররো। পরবর্তীতে হাসপাতালে ভর্তি হয়ে প্রায় সাত মাস কোমায় থাকেন।

বাল্যকাল থেকেই তাদের মধ্যে বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। ছবিতে বামে টিম মুররে ও ডানে জন টুইনবেররো।

দুর্ঘটনায় টুইনবেররোরে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গের পাশাপাশি ব্রেনেও আঘাত লেগেছিল। ডাক্তার বলেছিলেন, তার সু্স্থ হতে সময় লাগবে। আর এ সময় তার বিশেষ সেবা দরকার। এদিকে পরিবারের সদস্যরা টুইনবেররোর সেবা করছিলেন। কিন্তু তারা সেবা দিলেও নিঃসঙ্গতা অনুভব করতেন টুইনবেররো। আর তখন বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দেন তারই বন্ধু টিম মুররে। প্রতিদিন টুইনবেররোকে হাত ধরে হাঁটতে সাহায্য করা থেকে শুরু করে মানসিকভাবেও চাঙ্গা রাখেন তিনি। এ ধরনের সেবা তো আর পরিবারের সদস্যরা করতে পারবে না। এ চিন্তা থেকে নিজের ড্রাইভারি পেশা ছেড়ে দেন টিম মুররে। আহত হওয়ার পর থেকে তিনি তার বন্ধুর সেবা করছেন।

দুর্ঘটনার আগে তোলা দুই বন্ধুর ছবি।

প্রতিদিন টিম মুররে তার বন্ধুকে নিয়ে ৮০ মাইল ভ্রমণ করেন। তাকে গোসল করান। একসঙ্গে নাশতা খান এবং প্রতিদিন জিমেও নিয়ে যান। তাছাড়া প্রতি সপ্তাহে ছয় দিন মেডিকেলে নিয়ে স্বাস্থ্য চেকআপ করান টিম মুররে।

দুর্ঘটনার পর জন টুইনবেররো ক্ষতিপূরণবাবদ কিছু অর্থ পেয়েছিলেন। সেই অর্থ থেকে টিম মুররেকেও কিছু দেন জন টুইনবেররো। আর তাই তার পরিবারে তেমন সমস্যা হয় না।

দুই সন্তান ও নাতি-নাতনিসহ জন টুইনবেররোর সংসার। সন্তান ও নাতি-নাতনিদের নিয়ে ভালোই চলছিল জন টুইনবেররোর জীবন। কিন্তু বন্ধুর দুর্ঘটনায় তার জীবনেও এক ধরনের ছন্দপতন হয়।

জিমনেশিয়ামে জিম করছেন জন টুইনবেররো।

জন টুইনবেররো বলেন, আজ থেকে ১৪ বছর আগে ঘটে যাওয়া এ দুর্ঘটনা আমার জীবন উলটপালট করে দিয়েছে। দুর্ঘটনায় আমার ৯০ ভাগ মস্তিষ্ক নষ্ট হয়েছিল। তারপর প্রায় সাত মাস কোমায় ছিলাম। ডাক্তার বলেছিলেন আমার ব্রেন সারা জীবনের জন্য অকার্যকর হয়ে যাবে। হাসপাতালে থাকার সময় প্রতিদিন হাসপাতালে দেখা করতে গিয়েছিলেন টিম। তিনি সেখানে দিনরাত অক্লান্ত পরিশ্রম করেছিলেন।

বন্ধু টিম বলেন, ‘জন ও তার পরিবার আমাকে অনুরোধ করেন সেবা করার জন্য। তারা ভেবেছিলেন তাদের প্রস্তাবে আমি রাজি হব না। কিন্তু অনেক আগে থেকেই সিন্ধান্ত নিয়েছিলাম যে আমি আমার বন্ধুর সেবা করব। আমার মনে হয়, সে যদি আমার জায়গায় থাকতো তাহলে সেও একই কাজ করতো।’

খুব দ্রুত শারীরিক উন্নতি করছেন জন টুইনবেররো।

তিনি সিন্ধান্ত নিয়েছিলেন যতদিন তার বন্ধু অসুস্থ থাকবেন ততদিন সেবা করে যাবেন।

টিম আরো বলেন, ‘স্কুলজীবন থেকেই তার সঙ্গে আমার খুব ভালো সম্পর্ক। একসঙ্গে সাঁতার কাটতাম। একসঙ্গে বক্সিং খেলতাম, মোটরবাইক ও গাড়িও চালাতাম। এভাবে একসঙ্গে বড় হয়ে তার আর আমার মধ্যে অদ্ভুত বন্ধুত্ব তৈরি হয়েছে।’

তিনি জানান, এখনও তার বন্ধুকে সব কাজ করে দেন। সকালের নাস্তা থেকে শুরু করে রাতের খাবারও তার হাতে এগিয়ে দেন।

দুই বন্ধুর সঙ্গে হাসপাতালের দুই স্টাফ।

টিম বলেন, ‘প্রতিদিন সকালে আমি তাকে ঘুম থেকে উঠাই, গোসল করাই, নাস্তাও খাওয়াই। নাস্তা খাওয়ার পর হাসপাতালে নিয়ে ডাক্তারদের পরামর্শ নেই। পরবর্তীতে তাকে জিমে নিয়ে শরীর চর্চা করাই।’

জন এখন প্রতিদিনই কিছুটা উন্নতি করছে। আর দুই বন্ধু এক সাথে থাকার কারণে মানসিকভাবেও খুব ভালো আছেন জন।

ভিডিওঃ ভিডিওটি না দেখলে বুঝতে পারবেন না যে মিরাজ ছেলেটি শুধু খেলাতে নয়, গানেও কত গুনী একজন শিল্পী

 



আজকের জনপ্রিয় খবরঃ

গুরুত্বপূর্ণ অ্যাপ:

  1. বুখারী শরীফ Android App: Download করে প্রতিদিন ২টি হাদিস পড়ুন।
  2. পুলিশ ও RAB এর ফোন নম্বর অ্যাপটি ডাউনলোড করে আপনার ফোনে সংগ্রহ করে রাখুন।
  3. প্রতিদিন আজকের দিনের ইতিহাস পড়ুন Android App থেকে। Download করুন

Add Comment

Click here to post a comment