Lead News slider গাজীপুর জাতীয় ঢাকা বিভাগীয় সংবাদ

বঙ্গবন্ধুর কাঙ্খিত সোনার বাংলা গঠনে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে-মেহের আফরোজ চুমকি

রফিক সরকার: মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি এমপি বলেছেন, ’৭৫-এর ১৫ আগষ্ট জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে হত্যার মাধ্যমে বাংলাদেশকে আবার পাকিস্তানের অংশ বানাতে চেয়েছিল। বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বকে মুছে দিয়ে একটি উগ্র মৌলবাদী রাষ্ট্র বানাতে চেয়েছিল। কিন্তু ঘাতকরা সফল হতে পারেনি। বঙ্গবন্ধুর কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধুর কাঙ্খিত সোনার বাংলা  হিসেবে গড়ে উঠতে যাচ্ছে।

তিনি বৃহস্পতিবার বিকেলে গাজীপুরের কালীগঞ্জ নির্বাচনী এলাকার তালটিয়া এলাকায় বিলকিস ময়েজউদ্দিন স্মৃতি কল্যাণ সংগঠনের উদ্যোগে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে পূবাইল প্রস্তাবিত সাংগঠনিক থানা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠন আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, সেদিন খুনীরা ৪ বছরের শিশু রাসেলকে বাঁচতে দেয়নি। পরবর্তীতে জিয়াউর রহমান ও তার দল ক্ষমতায় এসে সেই খুনীদের বাঁচাতে ইন্ডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করে। এই কালো আইন পরিস্কার বুঝিয়ে দিয়েছে বঙ্গবন্ধু হত্যা করে কারা এদেশে সুবিধা ভোগ করেছে, অবৈধভাবে ক্ষমতায় টিকে থাকতে চেয়েছে, নিজেদের আখের গুছিয়েছে, দুর্ণীতি ও সন্ত্রাস করেছে, এদেশে বাংলা ভাইদের উত্থান ঘটিয়েছে, এদেশে সাম্প্রসায়িকতার বীজ বপন করেছে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ষড়যন্ত্র আজও অব্যাহত রয়েছে। বাংলাদেশের উন্নয়নের ধারাকে ব্যাহত করার জন্যে ’৭৫ এর ষড়যন্ত্রকারীরা আজও সক্রিয় রয়েছে। তাই তাদের দমাতে ’৭১-এর মতো ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবাইকে একাত্ত¡ হতে হবে। তাহলেই দেশের সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ নির্মূল করা যাবে।

গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ওয়ার্ড কাউন্সিলর আজিজুর রহমান শিরিষের সভাপতিত্বে ও আওয়ামী লীগ নেতা অধ্যক্ষ জাহিদ আল-মামুনের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- কাউন্সিলর মাসুদুল হাসান বিল্লাল, বজলুর রহমান বাছির, সুলতান উদ্দিন, পূবাইল সাবেক ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মিজানুর রহমান মাস্টার, কালীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মো. মাজেদুল ইসলাম সেলিম, যুবলীগ নেতা মো. মামুনুর রশিদ ভূঁইয়াসহ জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। পরে আলোচনা শেষে মিলাদ মাহফিলে বিশেষ দোয়া করা হয়। এর আগে প্রতিমন্ত্রী ‘‘কর্মজীবী ল্যাকটেটিং মাদার সহায়তা তহবিল’’ কর্মসূচীর আওতায় সুবিধাভোগী ৩০১ জন গর্ভবতী মায়েদের প্রত্যককে ৫০০শত করে ছয় মাসের জন্য মোট ৯ লক্ষ ৩ হাজার টাকা ল্যাকটেটিং ভাতা প্রদান ও বিভিন্ন চিকিৎসা সামগ্রী বিতরণ করেন বলে জানান জেলা মহিলা বিষয়ক অফিসার মো. জাকির হোসেন।