অপরাধ/দুর্নীতি

বগুড়ায় সাবেক স্বামী ফোন করায় স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা

বগুড়ার সারিয়াকান্দি উপজেলায় সাবেক স্বামী ফোন করায় সোনালী আকতার লোপা (২২) নামে এক গৃহবধূকে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনার পরই স্বামী রুবেল মিয়া পালিয়ে যায়।

শনিবার সকালে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে বগুড়া শজিমেক হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।


এ ব্যাপারে নিহতের মা গোলাপী বেগম সারিয়াকান্দি থানায় জামাইয়ের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেছেন।

নিহত লোপা বগুড়ার সারিয়াকান্দির বাড়ইপাড়ার আইয়ুব সোনারের মেয়ে।

পলাতক স্বামী রুবেল মিয়া (২৭) জামালপুর জেলার মাদারগঞ্জ উপজেলার গাবেরগাঁ গ্রামের মতি সোনারের ছেলে।

স্বজনরা জানান, লোপার প্রথমে কুষ্টিয়া জেলায় আশরাফুল নামে এক ব্যক্তির সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল। মতবিরোধ হলে ওই স্বামীর সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। তাদের আয়েশা নামে ৫ বছরের শারীরিক প্রতিবন্ধী একটি মেয়েও আছে। লোপা মেয়েকে নিয়ে বাপের বাড়িতে থাকতেন।

এদিকে তাদের আত্মীয় রুবেল মিয়া স্ত্রীর কথা গোপন করে লোপার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। প্রায় এ বছর আগে রুবেল ও লোপার বিয়ে হয়। লোপার পরিবার মেনে না নিলে একই গ্রামে ভাড়াবাড়িতে তারা সংসার শুরু করেন।

রুবেল নারায়ণগঞ্জে স্বর্ণে কারিগরের কাজ করতেন। কিছুদিন পরপর স্ত্রী লোপার কাছে আসতেন। এদিকে লোপার আগের স্বামী আশরাফুল মাঝে মাঝে ফোনে তার মেয়ে আয়েশার খোঁজ-খবর নিতেন। বিষয়টি রুবেল মিয়ার পছন্দ না হলে তাদের মধ্যে দাম্পত্য কলহ শুরু হয়।

শুক্রবার রাত ৮টার পর এ নিয়ে ঝগড়ার এক পর্যায়ে রুবেল শক্ত কিছু দিয়ে ঘাঁড়ে আঘাত করে পালিয়ে যায়। অচেতন লোপাকে উদ্ধার করে সারিয়াকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন।

শনিবার সকালে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে।

সারিয়াকান্দি থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম জানান, মেয়ের খোঁজ নিতে লোপার সাবেক স্বামী ফোন করতেন।

এ নিয়ে বর্তমান স্বামী রুবেলের সঙ্গে দাম্পত্য কলহ শুরু হয়েছিল। মারপিটে লোপা মারা গেলে রুবেল মিয়া পালিয়ে যান। এ ব্যাপারে মামলা হয়েছে, আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে জানান ওসি।