বিনোদন

ফ্লপ দিয়েই কেরিয়ার শুরু করেছেন তারা

12আমির খান, সালমান খান ক্যাটরিনা কাইফ, কারিশমা কাপুর- পর্দায় এসব বলিউড তারকার উপস্থিতিতে বক্স অফিস ফুলে ফেঁপে ওঠে। কেউ অভিনয়ে, কেউ অ্যাকশনে, কেউবা শুধুমাত্র স্টারডমেই পর্দায় আগুন লাগান। কিন্তু এমন বলিউড সেলেবদের শুরুর দিকটা অতটা মসৃণ ছিল না। একের পর এক ফ্লপ দিয়েই বলি-টাউনের যাত্রা শুরু হয়েছিল আজকের এই তারকাদের।

আমির খান: এখন তিনি যেখানেই হাত দেন তাতেই সোনা ফলে। কিন্তু কেরিয়ারের প্রথম দিকে তাকেও হোঁচট খেতে হয়েছিল। সুপার ডুপার হিট ‘দিল’ ছবির আগেই করেছিলেন ‘তুম মেরে হো’। যেখানে এক গুনিনের চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন মিস্টার পারফেকশনিস্ট। জুটি বেঁধেছিলেন জুহি চাওলার সঙ্গে। কিন্তু ‘কেয়ামত সে কেয়ামত তক’র হিট জুটিও বাঁচাতে পারেনি এই ছবিকে।

ক্যাটরিনা কাইফ: ২০০৩ সালে ‘বুম’ সিনেমা দিয়েই বলি পাড়ায় পা রেখেছিলেন ক্যাট। কিন্তু এ ধরনের ছবি করার জন্য পরে নিজেই অনুশোচনা করেছিলেন। বক্স অফিসে মুখ থুবড়ে পড়েছিল ‘বুম’।

শাহরুখ খান: আজ তিনি কিং খান নামে পরিচিত। তার কেরিয়ারেও ফ্লপ ছবির সংখ্যা নেহাত কম নেই। ১৯৯৫ সালে করেছিলেন ‘গুড্ডু’। বক্স অফিসে সাফল্যের ধারে কাছেও যায়নি ‘গুড্ডু’।

অমিতাভ বচ্চন: ‘জঞ্জির’ এর আগে আমিতাভের ১৬টি ছবিই ছিল ফ্লপ। ‘সাত হিন্দুস্তানি’ দিয়ে বলিউডে পা
রেখেছিলেন বিগ-বি। কিন্তু কেরিয়ারের প্রথম দিকটা ছিল বেশ খারাপ।

রানি মুখার্জি: পরবর্তীতে সুপার হিট নায়িকা হয়েছিলেন ঠিকই কিন্তু বলিউডে প্রথম ছবিই ছিল সুপার ফ্লপ। ‘রাজা কি আয়েগি বারাত’ ছবিতে শাদাব খানের বিপরীতে অভিনয় করেছিলেন তিনি।

সাইফ আলি খান: কেরিয়ারের প্রথম দিকে একেবারেই আসর জমাতে পারেননি নবাবপুত্র। ১৯৯৩ সালে তার ‘আশিক আওয়ারা’ ছবি সাফল্যের মুখ দেখেনি। যদিও এই ছবিতে তার অভিনয় প্রশংসিত হয়েছিল।

সালমান খান: তার নাম শুনেই হলের সামনে লম্বা লাইন লাগান দর্শকরা। কিন্তু ১৯৮৮ সালে ভাইজানের প্রথম ছবি ‘বিবি হো তো অ্যায়সি’ ছিল সুপার ফ্লপ। যদিও এই ছবিতে লিড রোলে ছিলেন না সালমান।

করিশমা কাপুর: হিটের সংখ্যা তার ঝুলিতেও কম নেই। কিন্তু শুরুর রেকর্ড বেশ খারাপ। প্রথম ছবি ‘প্রেম কায়েদি’ সুপার ফ্লপ হয়েছিল।

সঞ্জয় দত্ত: কেরিয়ারের শুরুতে হোঁচট খেতে হয়েছিল মুন্নাভাইকেও। ১৯৮২ সালে ‘জনি আই লভ ইউ’ একেবারেই মনে দাগ কাটতে পারেনি দর্শকদের। সঞ্জয়ের বিপরীতে এই ছবিতে ছিলেন রতি অগ্নিহোত্রী।

অক্ষয় কুমার: প্রথম ছবি ‘সৌগন্ধ’। কিন্তু বক্স অফিসে সুপার ফ্লপ। সে দিক থেকে বলতে গেলে ১৯৯২ সালে ‘খিলাড়ি’ তার জীবনের মেগা হিট।

ভিডিওঃ উষ্ণতার রেকর্ড ভাঙছে ‘ওয়াজা তুম হো’ [ভিডিও]

Add Comment

Click here to post a comment