খেলা-ধুলা

পাকিস্তানে টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে কিউই ক্রিকেটারদের অনুমতি দেবে না এনজেডসি

আইসিসি বিশ্ব একাদশের হয়ে পাকিস্তানে টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে নিজেদের চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটারদের অনুমতি দেবে না নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট (এনজেডসি)। ২০০৯ সালে লাহোরে শ্রীলঙ্কা দল বহনকারী বাসে সন্ত্রাসী হামলার পর সম্প্রতি পুনরায় পাকিস্তানে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফেরাতে চেষ্টা করছে পিসিবি। কিন্তু কেন্দ্রীয় চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটারদের পাকিস্তান সফরের অনুমতি দেয়া হবে না বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড!

২০০৯ সালে ওই হামলার পর কেবল দুর্বল জিম্বাবুয়ে এবং আফগানিস্তান দল পাকিস্তান সফরে গিয়েছিল। তবে কিছুদিন আগে এই সন্ত্রাসী হামলা ইস্যুতেই পাকিস্তান সফর বাতিল করেছে আফগানিস্তান। কিন্তু চ্যম্পিয়নস ট্রফির শিরোপা জয়ের পর দেশের মাটিতে ক্রিকেট ফেরাতে জোরালো দাবি তোলে পিসিবি। তার অংশ হিসেবে পিসিবির অনুরোধে একটি টি-টোয়েন্টি সিরিজ আয়োজনের উদ্যোগ নেয় আইসিসি। পাকিস্তান বনাম বিশ্ব একাদশের মধ্যকার এই টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টটি আগামী ২১, ২৩ ও ২৭ সেপ্টেম্বর পাকিস্তানে অনুষ্ঠিত করার প্রস্তাবনা আছে।

বিশ্ব একাদশে নিউজিল্যান্ডের সাবেক ক্রিকেটার ব্রেন্ডন ম্যাককালাম, লুক রঞ্চি এবং গ্রান্ট এলিয়টকে আইসিসি বিশ্ব একাদশে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এদের সঙ্গে বর্তমানে বোর্ডের কোনো সম্পর্ক নেই। তবে চুক্তিবদ্ধ কোনো ক্রিকেটারকে এ সিরিজ খেলতে বোর্ডের অনুমতি প্রয়োজন হবে।

এনজেডসি প্রধান নির্বাহী ডেভিড হোয়াইট বলেন, ‘আন্তর্জাতিক সূচি থাকার কারণে চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটারদের পাকিস্তান সফরে না পাওয়ার সম্ভাবনাই বেশি।
এ পর্যায়ে এর বেশি কিছু আমি বলতে পারছি না। চুক্তির বাইরে থাকা ক্রিকেটাররা আইসিসির পরামর্শ মেনে চলবে এবং আমি জানি ক্রিকেটার সমিতিরও নিজস্ব নিরাপত্তা পরামশর্ক রয়েছে। তারা সে পরামর্শ অনুযায়ী চলবে এবং সিদ্ধান্ত নেবে। পাকিস্তানে যাওয়ার ঝুঁকির বিষয়টি তারা পরীক্ষা করে দেখবে। ‘

মার্টিন গাপটিল, ট্রেন্ট বোল্ট পাকিস্তান সফরে বিশ্ব একাদশে রয়েছেন। তবে তারা চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটার হওয়ায় কিউই বোর্ড তাদের অনাপত্তি পত্র দেবে না। হোয়াইট আরো বলেন, ‘এটাই বাস্তবতা। আমরা এখনই এ ঘোষণা দিতে পারছি না। তবে এ সময়ে আমাদের আন্তর্জাতিক সূচি রয়েছে। ‘

শ্রীলঙ্কা দলের ওপর হামলার পর থেকেই পাকিস্তান তাদের হোম সিরিজগুলো সংযুক্ত আরব আমিরাতে আয়োজন করতে বাধ্য হচ্ছে। এমনকি দেশটির নিজস্ব টি-টোয়েন্টি লিগ পাকিস্তান সুপার লিগও (পিএসএল) অনুষ্ঠিত হয় মধ্যপ্রাচ্যে।