খেলা-ধুলা

ন্যাটওয়েস্ট টি-টুয়েন্টিতে আফ্রিদির বোলিং জাদু

বয়স ৩৭ ছুঁয়েছে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকেও বিদায় বলে দিয়েছেন। কিন্তু ক্রিকেট মাঠে শহীদ আফ্রিদির দাপট থেমে নেই একটুও। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় বললেও বিভিন্ন দেশের টি-টুয়েন্টি লিগগুলোতে খেলে বেড়ান। বলতে গেলে টি-টুয়েন্টির ফেরিওয়ালা আফ্রিদি।

এই মুহূর্তে যেমন খেলছেন ইংল্যান্ডের কাউন্টি দল হ্যাম্পশায়ারের হয়ে ন্যাটওয়েস্ট টি-টুয়েন্টি ব্ল্যাস্টে। আর সেখানেই শুক্রবার বল হাতে আগুন ঝড়িয়েছেন আফ্রিদি। গ্লামারগনের বিপক্ষে ২২ রানের জয়ে আফ্রিদির বোলিং স্পেল ৪-০-২০-৪।

শুধু মাত্র স্কোর কার্ড অনেক সময় কোন খেলোয়াড়ের পরফরম্যান্সকে পুরো তুলে ধরতে পারে না। গ্লামারগনের বিপক্ষে আফ্রিদির পারফরম্যান্সটাও তাই।

৪ ওভার বল করে ২০ রান দিয়ে আফ্রিদি নিয়েছেন ৪ উইকেট। এতটুকুই বলে দেবে তার বিধ্বংসী আত্মমূর্তির কথা। কিন্তু সবটুকু কি বলবে! আফ্রিদি এম্যাচে একাই গুড়িয়ে দিয়েছেন গ্লামারগনের ব্যাটিং লাইনের মেরুদণ্ড। তৃতীয়, চতুর্থ, পঞ্চম ও ষষ্ঠ উইকেটের পতন ঘটিয়ে প্রতিপক্ষকে একেবারেই গুড়িয়ে দেন। যেখান থেকে ঘুড়ে দাঁড়াতে পারেনি গ্লামারগন। আফ্রিদির হ্যাম্পশায়ার ম্যাচ জিতে নেয় ২২ রানে।

ন্যাটওয়েস্ট টি-টুয়েন্টি ব্ল্যাস্টের সাউথ গ্রুপের ম্যাচটিতে টস জিতে হ্যাম্পশায়ারকে ব্যাটিংয়ে পাঠিয়েছিল গ্লামারগন। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেটে ১৬৭ রান করে হ্যাম্পশায়ার। আফ্রিদি অবশ্য ব্যাট করার সুযোগই পাননি। গ্লামারগন ব্যাটিংয়ে নেমে শুরু থেকেই পরে বিপদে। ৩ রানে হারায় ২ উইকেট। এরপর তৃতীয় উইকেট জুটিতে মাথা তুলে দাঁড়াতে চেয়েছিল তারা।

কিন্তু আফ্রিদির আঘাতে ৪১ রানের জুটি ভাঙ্গে। একেএকে ডোনাল্ড, কার্লসন, রুডলর্পকে ফেরান। এরপর ষষ্ঠ উইকেটে গ্লামারগনের ৬২ রানের জুটিও ভাঙ্গেন আফ্রিদি। ৯ উইকেটে ১৪৫ রানে থামে গ্লামারগন। তবে ম্যাচ সেরার পুরস্কার উঠেছে হ্যাম্পশায়ারে আফ্রিদির সতির্থ লুইস ম্যাকম্যানাসের হাতে। ব্যাট হাতে ৫৯ রান করেছিলেন তিনি।

এবারের ন্যাটওয়েস্ট টি-টুয়েন্টি ব্ল্যাস্টে এসেক্স ইগলসের হয়ে খেলবেন তামিম ইকবাল। এসেক্স ইগলস আসরে সাউথ গ্রুপের দল। আফ্রিদির হ্যাম্পশায়ারও। অর্থৎ তামিম-আফ্রিদি দ্বৈরথের দেখা মেলবে এই আসরে।