অপরাধ/দুর্নীতি

নাটোরে শিশু শ্যালিকাকে ধর্ষণের পর হত্যা

নাটোরের বনবেলঘড়িয়ায় স্কুলছাত্রী শ্যালিকাকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগে সোহাগ আহমেদ নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার রাতে শহরের বনবেলঘড়িয়া এলাকার নিজ বাড়ি থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। সোহাগ একই এলাকার খোকন উদ্দিনের ছেলে এবং নিহত শিশু মৌমিতা আক্তারের আপন দুলাভাই।

নাটোর সদর থানার উপ-পরিদর্শক মাসুদ হাসান ও এলাকাবাসী জানান, সোমবার দুপুরে বনবেলঘড়িয়া এলাকার মোমিন উদ্দিনের মেয়ে পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী মৌমিতা বাড়িতে খাওয়া-দাওয়া শেষে একই এলাকায় তার বড় বোনের বাড়িতে যাওয়ার জন্য বের হয়ে যায়। কিন্তু সন্ধ্যা পর্যন্ত সে বাড়িতে না ফেরায় পরিবারের সদস্যরা তাকে খোঁজাখুঁজি করতে শুরু করে।

এদিকে সন্ধ্যার দিকে কয়েকজন কৃষক কলাবাগানে কাজ শেষ করে ফেরার পথে একটি পাটক্ষেতে কলার পাতা দিয়ে ঢেকে রাখা একটি মানুষের পা দেখতে পায়। পরে বিষয়টি স্থানীয়রা পুলিশকে জানায়। খবর পেয়ে পুলিশ মৌমিতার লাশ উদ্ধার করে। লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, মৌমিতাকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে হত্যা করে কলার পাতা দিয়ে ঢেকে রাখা হয়।
এ ঘটনায় রাতেই নিহতের বাবা মোমিন উদ্দিন বাদী হয়ে তার জামাতা সোহাগ আহমেদকে অভিযুক্ত করে হত্যা মামলা করেন।