Advertisements
অর্থনীতি-ব্যবসা জাতীয়

দিনশেষে শেয়ারবাজারে সূচক ও লেনদেনে পতন

দেশের দুই শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) মূল্যসূচক ও আর্থিক লেনদেনে পতন হয়েছে। একইসঙ্গে অধিকাংশ কোম্পানির শেয়ার ও ইউনিটের দর কমেছে। রবিবার (১৮ জুন) এ পতন হয়েছে।

এ দিন ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৭ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ৫৪৬২ পয়েন্টে। যা বৃহস্পতিবার ৯ পয়েন্ট, বুধবার ৫ পয়েন্ট ও মঙ্গলবার ৫ পয়েন্ট বেড়েছিল।

রবিবার ডিএসইতে ৪৭৩ কোটি ৪০ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। যা আগের দিন হয়েছিল ৫৩০ কোটি ১৬ লাখ টাকার। এ হিসাবে লেনদেন কমেছে ৫৬ কোটি ৭৬ লাখ টাকার বা ১১ শতাংশ।

এদিকে ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৩২৮টি কোম্পানির মধ্যে ১০১টি বা ৩০.৭৯ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে। অন্যদিকে দাম কমেছে ১৭৬টি বা ৫৩.৬৬ শতাংশ কোম্পানির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৫১টি বা ১৫.৫৫ শতাংশ কোম্পানির।

টাকার অঙ্কে ডিএসইতে সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে প্যারামাউন্ট টেক্সটাইলের কোম্পানির শেয়ার। এ দিন কোম্পানির ২৩ কোটি ১৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। লেনদেনে দ্বিতীয় স্থানে থাকা আরগন ডেনিমসের ১৮ কোটি ৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ১৬ কোটি ৯৪ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনে তৃতীয় স্থানে রয়েছে রিজেন্ট টেক্সটাইল।

লেনদেনে এরপর রয়েছে- নূরানি ডাইং অ্যান্ড সোয়েটার, সাইফ পাওয়ারটেক, বিডি ফাইন্যান্স, ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন, লংকাবাংলা ফাইন্যান্স, তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজ ও বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশন।

এ দিন অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সিএসসিএক্স মূল্যসূচক ৭ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১০২৪২ পয়েন্টে। বাজারটিতে ২৫ কোটি ৮১ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। লেনদেন হওয়া ২৩০টি ইস্যুর মধ্যে দাম বেড়েছে ৭৭টির, কমেছে ১১৭টির এবং অপরিবর্তীত রয়েছে ৩৬টির।

আগের দিন সিএসইর সিএসসিএক্স মূল্যসূচক ৬ পয়েন্ট বেড়েছিল। আর বাজারটিতে ২৯ কোটি ৮৭ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছিল।

Advertisements