চট্টগ্রাম বিভাগীয় সংবাদ

দাফনের প্রায় ২০ দিন তোলা হল ছাত্রলীগ নেতা দিয়াজের লাশ

iদাফনের প্রায় ২০ দিন পর আদালতের নির্দেশে শনিবার সকালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সহসম্পাদক দিয়াজ ইরফান চৌধুরীর লাশ কবর থেকে তোলা হয়েছে।

চট্টগ্রামের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বিশেষ শাখা) রেজাউল মাসুদ জানান, সকালে লাশ তোলার পর পুনঃময়নাতদন্তের জন্য অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এর আগে গত ৭ ডিসেম্বর দিয়াজের লাশ কবর থেকে তুলে পুনরায় ময়নাতদন্তের নির্দেশ দেন আদালত।

ওইদিন আদালত ঢাকা মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের প্রধানের নেতৃত্বে তিন সদস্যের বিশেষজ্ঞ দল গঠনের নির্দেশ দেন।

পরিবারের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির চট্টগ্রাম জোনের সহকারী পুলিশ সুপার অহিদুর রহমান আদালতে দিয়াজের লাশ তোলার আবেদন করেন।

জেলা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শিবলু কুমার দে আবেদন গ্রহণ করে এসব আদেশ দেন।

উল্লেখ্য, গত ২০ নভেম্বর রাতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই নম্বর গেইট এলাকায় ভাড়া বাসায় নিজের কক্ষ থেকে দিয়াজের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

তিন দিন পর দিয়াজের যে ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন হাটহাজারী থানা পুলিশকে দেয়া হয়, তাতে তিনি আত্মহত্যা করেছেন বলে উল্লেখ করা হয়।

সেদিনই ওই প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করে দিয়াজের পরিবার।

গত ২৪ নভেম্বর সংবাদ সম্মেলনে দিয়াজের বোন আইনজীবী জুবাঈদা ছরওয়ার চৌধুরী বলেন, ‘এটা যে হত্যাকাণ্ড, তা স্পষ্ট। কারণ, দিয়াজকে মেরে লাশ ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে দেয়া হয়। আর ঘরের বেলকনি দিয়ে ঘাতকরা মই ব্যবহার করে নির্মাণাধীন ভবন দিয়ে পালিয়ে যায়। তার মোবাইল ফোনটিও পাওয়া যাচ্ছে না।’

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি নির্মাণ কাজের জন্য ৯৫ কোটি টাকার টেন্ডার নিয়ে দিয়াজের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি আলমগীর টিপুর বিরোধ চলছিল। সেই বিরোধ, চাঁদা দাবিসহ নানা কারণে ‘ষড়যন্ত্র’ করে টিপুকে হত্যার পর লাশ ঘরে ঝুলিয়ে রাখা হয় বলে শুরু থেকেই দাবি দিয়াজের পরিবারের।

দিয়াজের মৃত্যুর ঘটনায় তার মা গত ২৪ নভেম্বর আদালতে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। ছাত্রলীগ নেতা টিপু ছাড়াও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর আনোয়ার হোসেন চৌধুরীসহ ১০ জনকে আসামি করা হয় ওই মামলায়।

আদালত মামলাটি তদন্তে দায়িত্ব দেয় পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগকে (সিআইডি)।

Advertisements

Add Comment

Click here to post a comment