Advertisements
অপরাধ/দুর্নীতি

ত্রী নির্যাতন মামলায় ডিএমপি পুলিশের এসআই কারাগারে

আশরাফুন্নাহার লোপাকে যৌতুকের জন্য নির্যাতনের মামলায় স্বামী ডিএমপি পুলিশের এসআই শাহিনুল ইসলাম শাহিনকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার দুপুরে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সরকার হাসান শাহরিয়ারের আদালতে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন জানালে শুনানি শেষে তা নামঞ্জুর করেন আদালত।

এর পরপর আদালত প্রাঙ্গনে বাদীপক্ষের বিক্ষুব্ধ আত্মীয়-স্বজন ও উৎসুক জনতার ভিড় বেড়ে গেলে অতিরিক্ত পুলিশের বিশেষ নিরাপত্তায় এসআই শাহিনকে দ্রুত কারাগারে পাঠানো হয়।

এর আগে বুধবার হাইকোর্ট থেকে চার সপ্তাহের অর্ন্তবর্তী জামিনের মেয়াদের শেষ দিনে এসআই শাহিন চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে জামিননামা দাখিল করেন। ওই মেয়াদ শেষ হওয়ায় বৃহস্পতিবার আসামি এসআই শাহিন স্বেচ্ছায় আদালতে হাজির হয়ে আইনজীবীর মাধ্যমে জামিন প্রার্থনা করেন।

এদিকে এসআই শাহিনকে কারাগারে পাঠানোর বিষয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন বাদীপক্ষ ও নারী সংগঠনসহ বিভিন্ন মহল।

এ বিষয়ে জেলা মহিলা পরিষদের সভানেত্রী জয়শ্রী দাস লক্ষ্মী বলেন, তরুণী গৃহবধূকে নির্যাতনের আলোচিত মামলার প্রধান আসামি স্বামী পুলিশের এসআই শাহিনকে কারাগারে পাঠানোর মধ্য দিয়ে ন্যায়বিচারের দ্বার উন্মোচিত হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে এটা প্রমাণিত হলো আইনের উর্ধ্বে কেউ নয়।

নির্যাতিতা লোপার মা ও মামলার বাদী স্কুলশিক্ষিকা সেলিনা আক্তার লাকী বলেন, অবস্থার কারণে পুলিশ মামলা নিলেও আসামিদের গ্রেফতারে কোনো তৎপরতা চালায়নি।

উল্লেখ্য, শেরপুর শহরের দমদমা মহল্লার ব্যবসায়ী আমিনুল ইসলামের মেয়ে ও সরকারি মহিলা কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী লোপাকে বিয়ে করেন এসআই শাহিনুল ইসলাম শাহিন।

লোপার পরিবারের অভিযোগ, শ্রীবরদী উপজেলার গড়জরিপা ইউনিয়নের ঘোনাপাড়া গ্রামের বাড়িতে ২২ মে রাতে ২০ লাখ টাকার যৌতুকের দাবি আদায়ে ব্যর্থ হয়ে নির্যাতন চালায় স্বামী এসআই শাহিন ও তার পরিবারের লোকজন।

ওই ঘটনায় ৫ জুন এসআই শাহিনসহ পরিবারের চার সদস্যকে আসামি করে শ্রীবরদী থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করা হয়।

Advertisements





সর্বশেষ খবর