আন্তর্জাতিক

জ্বালানি তেল কেনা বন্ধের বিষয়ে ট্রাম্পকে সতর্ক করল সৌদির আরব

ukiজ্বালানি তেল কেনা বন্ধ করে দেয়া হবে বলে নব নির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ডের হুমকি বিষয়ে তাকে সতর্ক করেছে সৌদির আরব।

গত মার্চে ট্রাম্প বলেছিলেন, সৌদিসহ আরব দেশগুলো যদি ইসলামিক স্টেট (আইএস) বিরুদ্ধে স্থল যুদ্ধের অঙ্গীকার না করে অথবা সন্ত্রাসী গোষ্ঠীটির বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের লড়াইয়ের খরচ না যোগায় তবে তাদের কাছ থেকে জ্বালানি তেল কেনা বন্ধ করে দেয়া হবে।

ট্রাম্প আরও বলেছিলেন, আমাদের (যুক্তরাষ্ট্র) ছাড়া সৌদি আরব বেশি দিন টিকেও থাকবে না।

এরপর ট্রাম্প তার জ্বালানি বিষয়ক বক্তৃতায়, যুক্তরাষ্ট্রে পুরোপুরি জ্বালানি স্বনির্ভরতা অর্জনের পরিকল্পনার কথা জানিয়ে বলেছিলেন, আমরা আমেরিকাকে আমাদের শত্রু এবং তেল উৎপাদক জোটগুলোর কাছ থেকে স্বাধীন করবো।

গত ৮ নভেম্বরের নির্বাচনে রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রে ৪৫তম প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন।

এরপর চলতি সপ্তাহে তেল ক্রয়ের বিষয়ে ট্রাম্পকে সতর্ক করেন সৌদি জ্বালানি মন্ত্রী খালিদ আল ফালিহ।

ফিন্যান্সিয়াল টাইমসকে ফালিহ বলেন, ট্রাম্পের মনের মধ্যে নিজ দেশের লাভবান হওয়ার বিষয়টি রয়েছে। আর তাকে জ্বালানি তেল প্রতিষ্ঠানগুলোও কোনো পণ্যের আমদানি বন্ধ করা ভালো হবে না বলে পরামর্শ দেবে বলে মনে করি।

তিনি আরও বলেন, জ্বালানি তেল হচ্ছে বিশ্ব অর্থনীতি সচল রাখার পণ্য এবং মুক্ত বাণিজ্যের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রই যে কারও চেয়ে বেশি উপকৃত হবে।

সৌদির প্রভাবশালী মন্ত্রী ফালিহ জানিয়েছে, আগামী জানুয়ারিতে ট্রাম্পের ক্ষমতা গ্রহণ পর সামগ্রিক পরিস্থিতি কী হয় তা দেখার জন্য সৌদি অপেক্ষা করছে।

উল্লেখ্য, মার্কিন জ্বালানি তথ্য দফতর ইআইএ’র গত আগস্টের হিসাব অনুযায়ী তেল রফতানিকারক দেশগুলোর জোট ওপেক থেকে প্রতিদিন ৩৪ লাখ ব্যারেল তেল আমদানি করে যুক্তরাষ্ট্র। এর মধ্যে সৌদির কাছ থেকেই ১১ লাখ ব্যারেল তেল আমদানি করা হয়। এ হিসেবে কানাডার পর সৌদিই হলো যুক্তরাষ্ট্রে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ তেলে আমদানিকারক দেশ।

ভিডিও: কার্গো জাহাজটি ডুবে যাচ্ছিলো ,শেষ পর্যন্ত হেলিকপ্টার এসে কি করলো দেখুন! অবাক হয়ে যাবেন(ভিডিও)

Advertisements

Add Comment

Click here to post a comment