Advertisements
আন্তর্জাতিক

জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাড়ি যাচ্ছেন নওয়াজ শরিফ

নিরাপত্তা ঘাটতি সত্ত্বেও ‘বাঁচা-মরা’ পরিস্থিতিতে মহাসমারোহে লাহোরে নিজ বাড়ি যাচ্ছেন নওয়াজ শরিফ।

বুধবার সকালে রাজধানী ইসলামাবাদের পাঞ্জাব হাউস থেকে তার গাড়িবহর রওনা হয়েছে। খোদ পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নিরাপত্তা ঝুঁকির কথা বললেও তা মানেননি নওয়াজ শরিফ।

ইসলামাবাদ থেকে লাহোর যাওয়ার প্রধান সড়ক দিয়ে না গিয়ে তিনি যাচ্ছেন ঐতিহাসিক গ্রান্ড ট্রাঙ্ক রোড ধরে। পথে অনেক বিপদ হতে পারে জেনেও জীবনের ঝুঁকি নিতে পিছপা হননি তিনি।

বাড়ির পথে রওনা দেওয়ার আগে পাকিস্তান মুসলিম লীগ-এন-এর জ্যেষ্ঠ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন নওয়াজ শরিফ। বৈঠকে ছিলেন প্রধানমন্ত্রী খাকান আব্বাসি, অর্থমন্ত্রী ইশাক দারসহ সরকারের গুরুত্বপূর্ণ নেতারা।

মটর শোভাযাত্রার মাধ্যমে কেন্দ্রীয় রাজধানী থেকে লাহোর যাওয়ার পক্ষে নয় দলের শীর্ষ নেতৃত্ব। তারা মনে করছেন, এটি ‘মর অথবা বাঁচ’ পরিস্থিতি।

মটর শোভাযাত্রাসহ নওয়াজের লাহোর যাওয়া বিচার বিভাগের নির্দেশের বিরুদ্ধে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখানো বলে দাবি করে মাঠ গরম করার চেষ্টা করেছেন ইমরান খানের পিটিআই ও বিরোধী পক্ষের অন্য রাজনৈতিক দলগুলো। ২৮ জুলাই নওয়াজ শরিফকে প্রধানমন্ত্রীর পদে অযোগ্য ঘোষণা করেন পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্ট। একই কারণে তিনি সংসদ সদস্য হিসেবেও পদ হারিয়েছেন।

নওয়াজের গাড়িবহর ইসলামাবাদের জিন্নাহ অ্যাভিনিউ, ডি-চক, এক্সপ্রেসওয়ে চক এবং মারগালা সড়ক হয়ে ফাইজাবাদ দিয়ে লাহোরের রাওয়ালপিন্ডির দিকে যাবে। বুলেটপ্রুফ গাড়ির ব্যবস্থা করা হলেও ইসলামাবাদ অতিক্রম করার আগে হয়তো তিনি তাতে চড়বেন না।

লাহোরে পৌঁছানোর আগে জেলাম ও গুজরানওয়ালায় অবস্থান করবেন নওয়াজ শরিফ ও তার সফরসঙ্গীরা। ইসলামাবাদ থেকে গ্রান্ড ট্রাঙ্ক রোড দিয়ে ২৫৪ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে লাহোর যাওয়ার পথে বেশ কয়েকটি পয়েন্টে স্থানীয় নেতা-কর্মীদের সঙ্গে কথা বললেন তিনি। এভাবে লাহোর পৌঁছাতে তার তিন দিন লেগে যেতে পারে।

এই সফরের মধ্য দিয়ে নওয়াজ শরিফ নিজের জনপ্রিয়তার প্রমাণ দিতে চাইছেন বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

তথ্যসূত্র : ডন ও এক্সপ্রেস ট্রিবিউন অনলাইন

Advertisements