গুরুত্বপূর্ণ তথ্য লাইফ স্টাইল স্বাস্থ্য

জানেন কি, ফুলের সুবাস আপনাকে স্লিম রাখে? জেনে নিন আরও সাত পন্থা!

সিব্বীর ওসমানী: শরীরের ওজন বেশী হওয়ার সমস্যাটি কেবল বয়স্ক নারী-পুরুষদেরই নয়। আজকাল বাচ্চাদের ওজন যে হারে বাড়ছে তাতে করে বিশ্বব্যাপী বিশেষজ্ঞরা উদ্বিগ্নতা প্রকাশ করছেন। জার্মানীর প্রখ্যাত বিশেষজ্ঞ ড. ক্রিস্টিয়ান ফালকেনব্যার্গ বলেন, ‘গত শতাব্দীর আশি ও নব্বইয়ের দশকের তুলনায় শিশু-কিশোরদের মধ্যে অতিরিক্ত ওজনের প্রবণতা ৫০ শতাংশ বেড়ে গেছে৷ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা একে মহামারি হিসেবে গণ্য করছে’

তাই ওজন কমানোর সাধনায় নিয়োজিত হতে হবে শিশু, বৃদ্ধ আর সব বয়সের সকলের। জার্মানির এক স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ওজন কমানো এবং স্লিম থাকার অভিনব ৭ টি উপায় বের করেছেন। আপনার শরীর স্লিম রাখার সাধনায় এগুলো বেশ কাজে আসতে পারে।

 

১. চোখের আড়াল, মনের আড়ালঃ
‘চোখের আড়াল হলেই মনের আড়াল’ – এই প্রবাদ বাক্যটি ওজন কমানোর ক্ষেত্রেও বেশ প্রযোজ্য। কারণ, খাবার দেখলেই যে অনেকের খিদে পেয়ে যায়! তাই তৈরি বা রান্না করা খাবার অ্যালুমিনিয়াম ফয়েল পেপার দিয়ে ঢেকে রাখুন, যেন প্রথমেই চোখে না পড়ে৷ খাবার না দেখলে খাওয়ার আগ্রহও কমে যাবে৷ আর এতে স্বাভাবিকভাবেই ওজন কমবে৷

২. রান্নাঘরেই টিভি বা কম্পিউটারঃ
টিভি দেখা বা কম্পিউটারে কাজ করার সময় অনেকেই চিপসের প্যাকেট বা এ ধরনের ফ্যাটযুক্ত খাবার সাথে নিয়ে সোফায় আরাম করে বসেন৷ আর সারাক্ষণ খেতে থাকেন৷ এ সব খাবার ওজন বাড়ানোয় বিশেষ ভূমিকা রাখে৷ আপনি যদি টিভি বা কম্পিউটারটা রান্না ঘরেই রাখেন, তাহলে এ সব যন্ত্রই হয়ত আপনাকে খাওয়া থেকে দূরে রাখবে৷

৩. কীভাবে ?
অ্যামেরিকার পুষ্টি বিশেষজ্ঞ প্রফেসর ব্রায়ান ওয়েজনিকের করা এক গবেষণা থেকে জানা গেছে, কিচেনে বসে বিনোদনমূলক কোনো অনুষ্ঠান দেখার সময় অংশগ্রহণকারীরা কমপক্ষে ২০০ ক্যালোরি কম গ্রহণ করেছেন এবং এতে করে বছরে ১০ কেজি ওজন কমেছে৷

৪. সবকিছু নিয়ন্ত্রণে রাখুন:
রান্নাঘর যতটা গুছানো আর ছিমছাম থাকবে, ওজন কমানো কিন্তু ততটাই সহজ হবে৷ রান্নাঘরে খাবার-দাবার বা জিনিসপত্র একদমই এলোমেলো করে না রেখে যেখানে যা রাখার ঠিকঠাকমতো রাখুন৷ তখন আপনার এমন অনুভূতি হবে যে মনে হবে সবকিছুই আপনার নিয়ন্ত্রণে আছে, এমনকি আপনার শরীরের ওজনটাও! এতে মানসিক শক্তি পাবেন৷ যে কোনো নতুন কিছু করার জন্য তো এই মানসিক শক্তিই বেশি প্রয়োজন৷

৫. ফ্রিজ গুছিয়ে রাখুন:
যেসব খাবার মোটা করে সেই খাবারগুলো ফ্রিজে ভেতরের দিকে রাখুন৷ আর যেসব খাবার তেমন মোটা করেনা বা ওজন বাড়ায় না, সেগুলো সামনের দিকে সুন্দর করে সাজিয়ে রাখুন৷ কিচেনের গ্লাস লাগানো আলমারিগুলোর ক্ষেত্রেও ট্রিকস প্রযোজ্য৷ অর্থাৎ চিপস, বিস্কুটের প্যাকেট, বাদাম বা চকলেট জাতীয় খাবার একটু আড়াল করে রাখুন৷

৬. টেবিলে ফলমূল রাখুন:
রান্নাঘর এবং বসার ঘরের টেবিলে ফলমূল রাখুন৷ বসার ঘরের টেবিলে এমন সব ফল রাখুন যেন হালকা খিদের ভাব হলে তা সেগুলো না কেটেই চট করে মুখে দেওয়া যায়৷ সোজা কথা, খিদের ভাব হলে যেন চোখের সামনে রাখা ফল খেতে পারেন৷

৭. ফুলের সুগন্ধ খিদে কমায়:
খাবার ঘর বা রান্না ঘরের টেবিলে অন্তত একটি করে তাজা ফুল রাখুন, কারণ, ফুলের সুগন্ধ খাবারের সুগন্ধকে ছাপিয়ে যায়৷ মাঝে মাঝে ফুলের কাছে নাক নিয়ে সুগন্ধ গ্রহণ করুন৷ এতে করে বার বার খাওয়ার ইচ্ছে বা ‘খাই খাই’ ভাবটা দমন হবে৷ যদি তাজা ফুল রাখা সম্ভব না হয়, তাহলে মাঝে মাঝে ঘরের ভেতর গোলাপ বা জেসমিন ফুলের গন্ধযুক্ত ‘রুম স্প্রে’ ছড়িয়ে দিন৷ সুবাসিত মোমবাতি জ্বালিয়েও কিন্তু একই ফল পেতে পারেন!