লাইফ স্টাইল স্বাস্থ্য

জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি সম্পর্কে কিছু ভ্রান্ত ধারণা

নবদম্পতি, যারা একটু দেরিতে সন্তান নেবেন। কারও আবার একটি সন্তান আছে, পরের সন্তান নেওয়ার আগে কয়েক বছরের বিরতি চান। কেউ হয়তো ইতিমধ্যে দুই সন্তানের বাবা-মা, তাই জন্মনিয়ন্ত্রণে স্থায়ী পদ্ধতিতে নিতে চান। কেউ কেউ আবার প্রসব-পরবর্তী সময়ে কিংবা গর্ভপাত-পরবর্তী সময়ে জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি গ্রহণ করেন। জন্মনিয়ন্ত্রণের নানা পদ্ধতি রয়েছে। আর একই পদ্ধতি সবার জন্য প্রযোজ্য নয়। এক্ষেত্রে একেক দম্পতির জন্য একেক পদ্ধতি ভালো। যাহোক, জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি সম্পর্কে কিছু ভ্রান্ত ধারণা প্রচলতি আছে। এবার এনডিটিভি অনলম্বনে জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতির পাঁচটি ভ্রান্ত ধারণার কথা জেনে নিন-

‘আইইউসি’ সন্তান জন্মদানের ক্ষমতা লোপ করে জন্মনিয়ন্ত্রণে অনেকেই ‘ইন্ট্রাইউটেরাইন কন্ট্রাসেপশন’ বা আইইউসি ব্যবহার করতে চান না। কেননা তাদের ধারণা জরায়ুর মধ্যে টি-শেপের একটি ডিভাইস বসানো হলে ভবিষ্যতে চাইলেও সন্তান জন্ম দেওয়া কঠিন হয়ে পড়বে। কিন্তু চিকিৎসকরা বলছেন, এটা ভিত্তিহীন ধারণা। আর ভবিষ্যতে আইইউসি পদ্ধতি ব্যবহার করা নারী অন্যদের মতোই সন্তান নিতে পারবেন। এই পন্থা যে কোন বয়সের, এমনকি যাদের কোনো সন্তান নেই এমন নারীদের জন্যও কার্যকর। জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি খেলে ওজন বাড়ে জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ির জটিল রাসায়নিক গঠন ভ্রুণের বৃদ্ধি রোধ করে। কারো কারো ক্ষেত্রে ওজন বাড়াতে কিছুটা ভূমিকা রাখতে পারে। তবে তার মানে এই নয়, যে কোনো নারী এই বড়ি গ্রহণ করলে তার ওজন বেড়ে যায়। বড়ি নয়, বরং ওজন আরও নানা কারণে বাড়তে পারে। জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি গ্রহণে মাঝেমধ্যে বিরতি মেয়েরা চাইলে যতদিন খুশি ততদিন জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি খেতে পারেন, কারণ এটা পুরোপুরি নিরাপদ। আর যখন গর্ভবতী হতে চাইবেন, তখন পিল ছাড়লেই চলবে। তবে আপনার চিকিৎসক যে বড়ি খেতে বলেন, সেটা খাওয়া সবচেয়ে নিরাপদ। ধূমপান করলে বড়ি খাওয়া উচিত নয় অনেকেই আছেন যারা ধূমপান করেন, তাদের ক্ষেত্রে সাধারণ বড়ি কাজ নাও করতে পারে। কারণ বেশিমাত্রায় ধূমপান সাধারণ বড়ির কার্যক্ষমতা নষ্ট করে দেয়। তবে তাদের জন্য উচ্চমাত্রার বড়ি রয়েছে, যা চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী গ্রহণ করা যেতে পারে। ইসি বড়ি আর গর্ভপাত বড়ি একই জিনিস ‘এমার্জেন্সি কন্ট্রাসেপশন’ বা ইসি বড়ি গর্ভপাত বড়ি নয়। এটি গর্ভধারণ প্রতিরোধ করে এবং অরক্ষিত যৌনমিলনের পাঁচদিন পর অবধি গ্রহণ করা যায়। আর একজন নারী অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার পর যদি ইসি বড়ি গ্রহণ করেন, তবে তা কোনো ফল বয়ে আনবে না।