রাজনীতি

ছাত্রলীগ নেতা দিয়াজ, ৯৫ কোটি টাকার টেন্ডারের বলি ?

eছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সম্পাদক ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের দিয়াজ গ্রুপের প্রধান দিয়াজ ইরফান চৌধুরী বিশ্ববিদ্যালয়ের ৯৫ কোটি টাকার টেন্ডারের বলি হয়েছেন! রোববার বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসসংলগ্ন বাসা থেকে দিয়াজের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধারের পর এ বিষয়টিই ঘুরে-ফিরে আসছে। এটি হত্যা না আত্মহত্যা পুলিশ তা নিশ্চিত করে বলতে না পারলেও দিয়াজের পরিবার ও সতীর্থদের দাবি এটি হত্যাকাণ্ড। টেন্ডার নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে প্রতিপক্ষ গ্রুপ দিয়াজকে হত্যা করে লাশ বাসার সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে রেখে পালিয়ে যায়। তারা এ হত্যাকাণ্ডকে আত্মহত্যা বলে চালানোর অপচেষ্টা চালাচ্ছে। এটি প্রতিষ্ঠিত করতে প্রতিপক্ষ গ্রুপ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও নানা অপপ্রচার চালাচ্ছে। যদিও এরই মধ্যে দিয়াজ যে আত্মহত্যা করেননি তার বেশ কিছু আলামত পেয়েছে পুলিশ। বিশেষ করে ময়নাতদন্তে দিয়াজের শরীরের বিভিন্ন স্থানে ক্ষত চিহ্ন পাওয়া গেছে। লাশ সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে থাকলেও পা ছিল খাটের সঙ্গে লাগানো। এ কারণে এটি আত্মহত্যা নয় বলেই বদ্ধমূল ধারণা দিয়াজের সহকর্মী ও পরিবারের। দিয়াজের লাশ ময়নাতদন্ত শেষে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।
দিয়াজ গ্রুপের একাধিক নেতাকর্মী ও দিয়াজের পরিবারের সদস্যরা বলছেন, বঙ্গবন্ধু হলের সম্প্রসারণ ও নতুন কলা অনুষদ ভবনের সম্প্রসারণের ৯৫ কোটি টাকার টেন্ডার নিয়ে চবি ছাত্রলীগের দু’পক্ষের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলছিল। এক পক্ষের নেতৃত্বে বর্তমান সভাপতি আলমগীর টিপু এবং আরেকপক্ষের নেতৃত্বে ছিলেন দিয়াজ ইরফান। তারা নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের অনুসারী। এর জেরে ৩০ অক্টোবর দিয়াজের বাসায় ভাংচুর ও লুটপাট হয়।
রোববার রাত ১২টায় দিয়াজের লাশ ঝুলন্ত অবস্থা থেকে নামিয়ে নেয় পুলিশ। পরে লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সোমবার সকালে তার মরদেহ নিতে এসে পরিবারের সদস্যরা এটিকে পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড বলে দাবি করেন। দিয়াজের মামা রাশেদ আমিন চৌধুরী ও বোনের স্বামী সরওয়ার আলম বলেন, কিছুদিন আগে দিয়াজের বাসায় যারা হামলা চালিয়েছে তারাই পরিকল্পিতভাবে তাকে (দিয়াজকে) খুন করে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে লাশ ঝুলিয়ে দিয়েছে।
পরিবারের মতো এটিকে পরিকল্পিত হত্যা বলে অভিযোগ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। দিয়াজ ইরফানকে হত্যার পর লাশ ঝুলিয়ে রেখে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেছেন তারা। বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের শতাধিক বর্তমান ও সাবেক নেতা এ নিয়ে নানা বক্তব্য তুলে ধরেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। এটি কেন আত্মহত্যা নয় তার পক্ষে যুক্তি তুলে ধরেন তারা। পাশাপাশি এ ঘটনার পর ৩ ঘণ্টায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কোনো কর্তাব্যক্তি ঘটনাস্থলে না আসায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন তারা। বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি নাজিম উদ্দিন বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন নিয়ন্ত্রিত টেন্ডার সিন্ডিকেটের হাতেই খুন হয়েছেন দিয়াজ। এটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড।’
লাশ উদ্ধারের পর দিয়াজের শরীরের তিন জায়গায় আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আফসানা বিলকিস। তিনি বলেন, দিয়াজের গলার উভয় পাশে আঁচড়ের চিহ্ন আছে। তবে বাঁ পাশে আঁচড়ের পরিমাণ বেশি। এছাড়া তার হাতের কবজি ও পায়ে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। ভিসেরা প্রতিবেদন পাওয়ার পর মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে।
সড়ক অবরোধ, ডেমু ট্রেন ভাংচুর : দিয়াজের মৃত্যুর খবরে শোকে ফেটে পড়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থী ও ছাত্রনেতারা। দিয়াজকে হত্যা করা হয়েছে এমন অভিযোগ এনে এ ঘটনার বিচার দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়গামী সব ট্রেন ও সড়ক অবরোধ করেন ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। সোমবার সকাল ৮টায় ক্যাম্পাসগামী প্রথম ট্রেনটি ফতেয়াবাদে পৌঁছলে তারা আটকে দেন। এর পরবর্তী ট্রেনও একই স্থানে পৌঁছলে তারা আটকে দেন। এর ফলে কোনো ট্রেনই ক্যাম্পাসে পৌঁছতে পারেনি। একই ঘটনায় হাটহাজারী সড়কের বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটক এলাকায়ও অবরোধ করেন তারা। এছাড়া চট্টগ্রাম-রাঙ্গামাটি সড়কের নন্দীরহাটে অবরোধ করেছেন তারা। অবরোধের ফলে চট্টগ্রাম-রাঙ্গামাটি সড়কে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়। সড়কে দু’পাশে আটকে থাকে অসংখ্য গাড়ি। ফলে ভোগান্তিতে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। ট্রেন অবরোধের বিষয়টি নিশ্চিত করে ষোলোশহর রেলওয়ে স্টেশনের ম্যানেজার সাহাব উদ্দিন বলেন, ফতেয়াবাদে দুটি শাটল ট্রেন আটকে দেয়া হয়। ফলে সকাল থেকে কোনো ট্রেন ক্যাম্পাসে পৌঁছতে পারেনি। এ সময় ডেমু ট্রেন ভাংচুর করেছেন তারা। এর আগে একই দাবিতে নগরীর প্রবর্তক মোড়ে সকাল ৬টা থেকে ৯টা পর্যন্ত সড়ক অবরোধ করে রাখেন ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। এ সময় তীব্র যানজট সৃষ্টি হয় সড়কে। অবরোধ চলাকালে বিপুলসংখ্যক পুলিশ ঘটনাস্থলে ছিল। পরে দিয়াজের পরিবারের অনুরোধ ও পুলিশের আশ্বাসের পরিপ্রেক্ষিতে অবরোধ তুলে নেয়া হয়।
দিয়াজের মৃত্যুর খবরে শোক প্রকাশ করেছে ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় সংসদ। সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন বলেন, ‘আমরা শোকাহত। দিয়াজের মতো একটি ছেলে এমন কাজ করেছেন বলে বিশ্বাস হচ্ছে না।’ এটি হত্যাকাণ্ড কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ফরেনসিক রিপোর্ট পাওয়ার পরে কোনো ধরনের অসংগতি পাওয়া গেলে আমরা ব্যবস্থা নেব।
হত্যার সন্দেহ যে কারণে ঘনীভূত হচ্ছে : বিশ্ববিদ্যালয়ের ২নং গেট এলাকায় চার তলা একটি ভবনের দ্বিতীয় তলায় বাসা ভাড়া নিয়ে থাকতেন দিয়াজ ও তার পরিবারের সদস্যরা। রোববার রাত সাড়ে ৯টার দিকে ঝুলন্ত অবস্থায় দিয়াজের লাশ পাওয়া যায়। এ সময় বাসায় কেউ ছিলেন না। প্রতিবেশী ও সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সূত্র বলছে, দিয়াজ যে বাসার দ্বিতীয় তলায় পরিবারের সঙ্গে থাকতেন সেই বাসাটি নির্মাণাধীন। দ্বিতীয় তলায় একটি জানালা রয়েছে যেটি দিয়ে সহজেই একজন লোক গমনাগমন করতে পারে। তা ছাড়া বাসার বাইরে একটি মইও পড়েছিল। বাসার দরজায় ছিল ডিজিটাল লক সিস্টেম। দরজা ভেঙে প্রবেশ করে পুলিশ লাশ উদ্ধার করলেও বলা হচ্ছে, যে কেউ ভেতর থেকে দরজা লক করে বের হয়ে গেলে বাইরে থেকে চাবি ছাড়া খোলার কোনো অবকাশ নেই। এসব সুযোগ কাজে লাগিয়েই দুষ্কৃতকারীরা দিয়াজকে হত্যা করে লাশ সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে রেখে পালিয়ে গেছে বলেই সন্দেহ করছেন সংশ্লিষ্টরা।

Add Comment

Click here to post a comment



সর্বশেষ খবর