চট্টগ্রাম বিভাগীয় সংবাদ

চলন্ত বাস উল্টে কক্সবাজারে নিহত ২, আহত ৪০

rকক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের রামুর রশিদনগর গ্যারেজ এলাকায় চলন্ত বাস উল্টে নারীসহ দুইজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় শিশুসহ আহত হয়েছে আরও অন্তত ৪০ জন।

রোববার বেলা দেড়টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরবের বাসিন্দা কাশেম (৪২) ও চকরিয়া উপজেলার পূর্বভেওলার মৃত কবির আহামদের স্ত্রী নূরুন্নাহার (৪০)।

তাদের মরদেহ কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে নেয়া হয়েছে।

আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এদের মধ্যে জামাল উদ্দিন (৭০) জালাল (২৭), সাকিব (১৪), ছাবের আহমদ (৩৫), জান্নাতুল মাওয়া (৫মাস) মনির আলম (৩৬), রিয়াজি মোস্তফা (৪), আবদুল আলীম (৩০), সুমন (৩৬), নুরুল আমিন (৬০), আবুল হোসেন (৫০), উম্মেকুলসুম (৮), আবদুল হাকিম (২২), উম্মে হাবিবা (৪), মুবিনুল হক (৪৮), ছৈয়দ উল্লাহ (৩২), রেজাউল কাদের (২৫), তসলিম (৩৫), উত্তম মল্লিক (২২), মেহেদী হাসান (১৮) এবং মোহাম্মদ শোয়াইবের (২১) পরিচয় জানা গেছে। বাকিদের নাম ও পরিচয় পাওয়া যায়নি।

দুর্ঘটনার পর সড়কের দুইপাশে শত শত বাস আটকা পড়ে। এতে যাত্রীদের মধ্যে চরম দুর্ভোগের সৃষ্টি হয়। ফায়ার সার্ভিস, পুলিশ, বিজিবি ও সেনা সদস্যরা উদ্ধার অভিযানে যোগ দেন। সাড়ে ৩ ঘণ্টা পর সড়কে স্বাভাবিকতা ফিরে আসে।

রশিদনগর ইউপি চেয়ারম্যান এমডি শাহ আলম জানান, চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা ইউনিক পরিবহনের একটি বাস (ঢাকা মেট্টো-ব-১৪-০১০৫) দ্রুত গতিতে কক্সবাজার যাচ্ছিল। বাসটি বেলা দেড়টার দিকে মহাসড়কের রামুর রশিদনগর গ্যারেজ এলাকায় পৌঁছামাত্র হঠাৎ চলন্ত সড়কের ওপর উল্টে যায়। এতে গাড়ির ভেতর যাত্রীরা আটকা পড়ে। ভেতর থেকে কান্নার শব্দ আসছিল। এ সময় পুরো রাস্তা বন্ধ হয়ে যায়।

রামু হাইওয়ে পুলিশের পরিদর্শক আজাদ বলেন, বাসের দু’পাশের বড়ি কেটে আটকে পড়া যাত্রীদের বের করে হাসপাতালে নেয়া হয়। যাত্রীদের অনেকের মাথা ফেটে গেছে, অনেকের হাত ভেঙে গেছে। পা কেটে রক্তাক্ত হয়েছে অনেকে।

রামু উপজেলা চেয়ারম্যান রিয়াজুল আলম বলেন, রামু হাসপাতালে নেয়ার পর আহতদের দুইজন মারা যান। অবস্থার অবনতি হওয়ায় প্রায় ২৫ জনকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

কক্সবাজার সদর হাসপাতালের দায়িত্বরত চিকিৎসক রফিকুল ইসলাম বলেন, দুর্ঘটনায় আহত প্রায় ৩০ জনকে কক্সবাজার হাসপাতালে আনা হয়। এদের মাঝে দুইজন হাসপাতালে পৌঁছার আগেই মারা গেছেন। বাকিদের চিকিৎসা চলছে।

ফায়ার সার্ভিসের কক্সবাজার স্টেশন ইনচার্জ আবদুল মজিদ জানান, বিজিবি, সেনাবাহিনী ও অন্যদের সহযোগিতায় অনেক চেষ্টার পর বেলা ৫টার দিকে দুর্ঘটনা কবলিত বাসটি সরানো সম্ভব হয়। বাসের বড়ি কেটে উদ্ধারকরা যাত্রীদের যে যেদিকে পেরেছে হাসপাতালে নিয়ে গেছেন। এখনও পর্যন্ত ২ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে।

Add Comment

Click here to post a comment



সর্বশেষ খবর