Advertisements
খেলা-ধুলা

গতিমানব উসাইন বোল্টের থেকেও জোরে দৌড়ান ধোনি!

গতিমানব উসাইন বোল্টের থেকেও জোরে দৌড়ন ভারতের সাবেক অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি। এমন কথা শুনলে যে কেউ চমকে উঠবেন।
ঠিক এভাবেই চমকে উঠেছিলেন শ্রীলঙ্কার সাবেক ক্রিকেটার মাহেলা জয়বর্ধনেও। যখন ধোনির এক ভক্ত দাবি করে বসেন, গতিতে বিশ্বের দ্রুততম ব্যক্তিকেও নাকি পিছনে ফেলে দেন ধোনি।

ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ডে যখনই পা রেখেছেন, ইতিহাস গড়েছেন। আবার নিজের রেকর্ড নিজেও ভেঙেছেন একাধিকবার। সেই বোল্ট ক্যারিয়ারের শেষ রেসে শীর্ষস্থান ধরে রাখতে পারেননি। ব্রোঞ্জ নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে তাকে। এর জন্য অবশ্য বোল্টের প্রতিভার প্রতি তার ভক্তদের সম্মান ও শ্রদ্ধা এতটুকু কমেনি। এমনকী ফাইনাল ১০০ মিটার রেসে প্রথম হওয়ার পর গ্যাটলিনও তার সামনে মাথা নত করেছেন।

বোল্টের শেষ চ্যালেঞ্জ দেখতে টিভির পর্দায় চোখ রেখেছিলেন শ্রীলঙ্কার সাবেক অধিনায়ক জয়বর্ধানেও। সারা বিশ্বের মতো তিনিও অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছিলেন ফলাফলের জন্য। তবে ফল যাই হোক না কেন, বোল্টের অবিশ্বাস্য ক্যারিয়ারের জন্য টুইটারে তাকে অভিনন্দন জানান তিনি।

সোমবার তিনি টুইট করে বলেন, “বোল্টকে সম্মান। ” এই টুইটের পরই ধোনির এক ফ্যান জয়বর্ধনের উদ্দেশে লেখেন, “ধোনিকেও সম্মান জানান, যিনি বোল্টের থেকেও দ্রুত গতিতে দৌড়তে পারেন। ”

স্বাভাবিকভাবেই ধোনি-ভক্তের কথায় বেশ অবাক হন জয়বর্ধানে। মজা করে পালটা প্রশ্ন ছুড়ে দেন তিনিও। জানতে চান, “সেই সময় কি ধোনি মোটরবাইকে ছিলেন?”

জয়বর্ধানে যতই মজা করুন, ধোনি ভক্ত কিন্তু তথ্য ঘেঁটে সাবেক শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটারের সামনে তুলে ধরেন কেন তিনি একথা বলেছেন। তথ্য বলছে, ক্রিজে প্যাড পরে ২০ মিটার অতিক্রম করতে ধোনির সময় লাগে ২.৭০ সেকেন্ড। সেখানে বোল্ট রেসের শুরুর ২০ মিটার দৌড়তে সময় নেন ২.৮৯ মিটার। আর এভাবেই থান্ডার বোল্টকে পিছনে ফেলে দেন ধোনি।

সেই ব্যাখ্যার প্রেক্ষিতে যদিও আর কোনও টুইট করেননি মাহেলা। তবে তার মজার টুইট এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় চর্চার বিষয় হয়ে উঠেছে।

Advertisements